শাহনাজ বেলী, শ্রোতাপ্রিয় লালন সঙ্গীতশিল্পী। এর পাশাপাশি সব ধরনের লোকজ গানেও বেশ পারদর্শী তিনি। কুষ্টিয়ার মেয়ে শাহনাজ বেলী’র বাবা মনসুর আলী বিশ্বাস ও মা সুজাতা আলী সূর্য। মা-বাবার প্রতি পরম শ্রদ্ধাশীল তিনি। নিজ দায়িত্বেই তিনি মা বাবার হজ¦ করিয়েছেন। এ কারণে শাহনাজ বেলী আল্লাহ’র কাছে সবসময় শুকরিয়া আদায় করেন। আবার তার নিজের একমাত্র কন্যা মোবাশ্বিরা কবির আভাকেও মানুষের মতো মানুষ করার চেষ্টা করছেন। শাহনাজ বেলী যে শুধু নিজের পরিবার আর নিজের গান নিয়েই ভাবেন-এমনটি একদমই নয়।

তিনি শ্রোতা দর্শকের কথা ভেবে যেমন ভালো ভালো গান প্রকাশের চেষ্টায় যেমন মত্ত থাকেন ঠিক তেমনি আগামী প্রজন্মের মাঝে লালন সঙ্গীতের আরো প্রসার ঘটাতে তিনি নিজ উদ্যোগে কুষ্টিয়াতে তার নিজ গ্রামে পশ্চিম আবদালপুরে ‘শাহনাজ বেলী সঙ্গীত একাডেমি’। গেলো ৩ এপ্রিল জাতীয় চলচ্চিত্র দিবসে একাডেমিটির যাত্রা শুরু হয়েছে। একাডেমির প্রতিষ্ঠাতা ও সভাপতি শাহনাজ বেলী। সহ-সভাপতি জমির হোসেন। সাধারণ সম্পাদক হিসেবে আছেন মোঃ শাহজাহান সিরাজ।

শাহনাজ বেলী জানান, একাডেমিতে বর্তমানে ৫০ জন শিক্ষার্থী গান শিখছেন। এখনো সেভাবে তেমন কোন ওস্তাদ পুরো সময়ের জন্য চুড়ান্ত করা হয়নি। আগামী ঈদের পর এ বিষয়ে চুড়ান্ত সিদ্ধান্ত নেয়া হবে বলে জানান শাহনাজ বেলী।

নিজের একাডেমি নিয়ে স্বপ্ন প্রসঙ্গে শাহনাজ বেলী বলেন,‘ বিশেষত লালন সঙ্গীত নিয়েই একাডেমি ঘিরে আমার স্বপ্ন। লালনের গানের আরো অনেক বেশি প্রসারের ক্ষেত্রেই এই একাডেমি বিশেষ ভ‚মিকা রাখবে। যেহেতু আমি লালনের গানে নিজেকে মগ্ন করেছি। আমি চাই এই গানের আরো প্রসার ঘটাতে। আমার একাডেমিতে যারা গান শিখবে তারা মূলত লালন গানেই নিজেকে দক্ষ করে তুলবে। আমি চাই সত্যিকারের শিল্পীরা বেরিয়ে আসুক। লালনের গানের আরো প্রসার হোক। আর লালনের গানের আরো প্রসারের মধ্যদিয়ে আমার একাডেমির নামও ছড়িয়ে পড়ুক যাতে লালন সঙ্গীতে আগ্রহীরা এখানে তালিম নিতে আসেন।

এর চেয়ে বড় স্বপ্ন আর কি-ই-বা হতে পারে আমার। আমার সৌভাগ্য আমার মাথার উপর আমার বাবা মা ছায়া হয়ে আছেন। তারা আমার সঙ্গেই আছেন। এটাও আমার জন্য অনেক বড় আশীর্বাদ।’ শাহনাজ বেলী জানান এরইমধ্যে তিনি আগরতলা থেকেও শো করে ফিরেছেন। এছাড়া স্টেজ মৌসুমের শেষপ্রান্তে তিনি টাঙ্গাইল, আরিচা, কালিয়াকৈর’সহ আরো বেশকিছু জাযগায় স্টেজ শোতে পারফর্ম করেছেন। শাহনাজ বেলী’র ছোট দুই বোন হচ্ছেন কল্পনা ও প্রিয়া।

Leave a Reply