প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ঘোষিত বরাদ্দ থেকে ঋণ সুবিধা নিতে অবশেষে আবেদন জমা পড়েছে। এতে বন্ধ থাকা, সংস্কার প্রয়োজন এমন প্রেক্ষাগৃহ ছাড়া নতুন সিনে/মাল্টিপ্লেক্স উদ্যোক্তাদের আবেদনও জমা পড়েছে।

৩০ মার্চ ঘোষিত বরাদ্দ থেকে ঋণ সুবিধা পেতে আবেদন জমা পড়েছে ৫৩টি। জমা পড়ার বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন বাংলাদেশ ব্যাংকের তফসিলভুক্ত রূপালি ব্যাংকের জেনারেল ম্যানেজার গোলাম মুর্তজা।

তিনি বলেন, সরকার ঘোষিত ঋণ সুবিধা পেতে অর্ধশত সিনেমা হলের আবেদন জমা পড়েছে। এরই মধ্যে অর্থ ছাড়ের বিষয়টি জানিয়ে বাংলাদেশ ব্যাংক বরাবর আবেদনও করেছি। শিগগিরই সেটা হয়ে যাবে আশা করছি।

কতদিনের মধ্যে ঋণ প্রক্রিয়া শুরু হবে এমন প্রশ্নের জবাবে এই ব্যাংক কর্মকর্তা বলেন, বাংলাদেশ ব্যাংকের সঙ্গে অর্থ ছাড়ের বিষয়টি প্রক্রিয়াধীন। সেটা হয়ে গেলে ঋণ সুবিধা পেতে যে আবেদনগুলো পড়েছে সেগুলো যাচাই বাছাই করা হবে।

কি ধরনের যাচাই বাছাই করা হবে জানতে চাইলে গোলাম মুর্তজা বলেন, দেখুন সরকার যে ফিগার দিয়েছে সেটা যাতে মিস ইউজ না হয় সেটাও ব্যাংকে দেখতে হবে। যার যতটুকু দরকার অর্থাৎ যিনি ৫ বা ১০ কোটির জন্য আবেদন করেছেন যাচাই বাছাই করার পর যদি দেখি তার আবেদন সেটার উপযুক্ত বা কম হলেও চলে তাহলে সেভাবেই মুল্যায়ন করা হবে। প্রধানমন্ত্রী যেমন চান সিনেমা শিল্পের বিকাশ ঘটুক তেমনি তার সেই প্রত্যাশা যেন দ্রুত বাস্তবায়ন করা যায় ব্যাংক সে ব্যাপারে পুরোপুরি সহযোগিতা করবে-যোগ করেন তিনি।

জানা গেছে, সরকারি ঋণ সুবিধা পেতে বুধবার সকালে ৫৩টি ফাইল জমা পড়ে রূপালি ব্যাংকের কাছে। এসময় বাংলাদেশ চলচ্চিত্র প্রদর্শক সমিতির সাধারণ সম্পাদক আওলাদ হোসেন উজ্জল এবং সমিতির প্রধান উপদেষ্টা সুদীপ্ত কমার দাস উপস্থিত ছিলেন।

সমিতির সাধারণ সম্পাদক আওলাদ হোসেন উজ্জল বলেন, দীর্ঘদিন হলেও সর্বশেষ জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার পদক বিতরণ অনুষ্ঠানে সিনেমা শিল্পের বিকাশে প্রধানমন্ত্রীর আবেগঘন আহ্বানে সমিতির কাছে ৩০ মার্চ পর্যন্ত ৫৩টি ফাইল জমা পড়েছে। আমরা সে ফাইলগুলো গুছিয়ে রূপালী ব্যাংক বরাবর জমা দিয়েছি। ব্যাংক এ ব্যাপারে দ্রুত পদক্ষেপ নিবে বলে আশা করছি।

ঋণ সুবিধা পেতে বন্ধ ও সংস্কারের জন্য ৩০টি এবং নতুন সিনে/মাল্টিপ্লেক্সের জন্য ২৩টি ফাইল জমা পড়েছে।

মুক্তারপুরের ‘পান্না’ সিনেমা হলের মালিক আজগর হোসেন বলেন, সত্যি বলতে ভালো সিনেমার অভাবে এমনিতেই আমরা কোণঠাসা অবস্থায় আছি। তারওপর যখন ঋণ সুবিধার ঘোষণা এলো তখনও আবেদন করতে রাজি হইনি। পরবর্তীতে ঋণ পরিশোধে নিয়ম কানুন শিথিল হওয়ায় আবেদন করেছি।

সিনেমা শিল্পের বিকাশে প্রধানমন্ত্রী ঘোষিত ঋণ সুবিধা পেতে ২৩ নতুন উদ্যোক্তা আবেদন করেছেন। এদের মধ্যে প্রধানমন্ত্রীকে ধন্যবাদ জানিয়ে ঢাকা সিনেপ্লেক্স, প্রিমরোজ সিনেপ্লেক্স, সদরঘাট সিনেপ্লেক্স এর উদ্যোক্তরা বলেন, ঋণ পরিশোধে নিয়ম কানুন শিথিল করায় সিনেমা শিল্পের বিকাশে সহায়ক হবে। এতে করে আমরা যারা নতুন উদ্দ্যোক্তা তাদের পক্ষে টিকে থাকার সুযোগও সৃষ্টি হবে। একইসঙ্গে নতুন কর্মসংস্থানের সুযোগও বাড়বে। সে কারণেই ঋণ সুবিধার জন্য আবেদন করেছি। আশা করছি আমাদের আবেদন ব্যাংক বিবেচনা করবে।

এদিকে,আজ ৩১ মার্চ আবেদনের শেষ সময়সীমা থাকায়, বুধবার প্রথম ধাপে ৫৩টি ফাইল ব্যাংকে জমা দেওয়া হয়। ঈদের পরপরই ফাইলের কাজ শুরু করবে ব্যাংক। ইতোমধ্যে দেশের বিভিন্ন প্রান্ত হতে সমিতির সঙ্গে যোগাযোগ করতে শুরু করেছেন। তার পরিপ্রেক্ষিতে বুধবার বাংলাদেশ ব্যাংকের কাছে ঋণ সুবিধা পেতে সময়সীমা বৃদ্ধির আবদেন করেছে চলচ্চিত্র প্রদর্শক সমিতি।

গত ২৩ মার্চ জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার বিতরণী অনুষ্ঠানে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, সরকার দেশের চলচ্চিত্র শিল্পকে আরো সমৃদ্ধ করার অংশ হিসেবে জেলা এবং উপজেলা পর্যায়ে আধুনিক সুযোগ-সুবিধা সম্বলিত সিনেমা হল বা সিনেপ্লেক্স স্থাপনের জন্য এক হাজার কোটি টাকা বরাদ্দ দিয়েছে।

প্রসঙ্গত, গত ২০২০ সালের ২৫ আগস্ট একনেকে সভায় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা সিনেমা হল চালু করতে ঋণ তহবিলের আগ্রহের কথা জানানোর দুদিন পর তথ্যমন্ত্রী হাছান মাহমুদের সঙ্গে বিস্তারিত আলোচনা করেন বাংলাদেশ চলচ্চিত্র প্রযোজক ও পরিবেশক সমিতি, চলচ্চিত্র পরিচালক সমিতি ও প্রদর্শক সমিতির নেতারা। ওই সময় বন্ধ হয়ে যাওয়া হলের সংস্কার ও নতুন সিনেমা হল গড়তে স্বল্প সুদে প্রায় ৭০০ কোটি টাকা ঋণ দেয়ার উদ্যোগের কথা জানায় সরকার। পরবর্তীতে গত বছরের জানুয়ারিতে ঋণ তহবিলের পরিমাণ বাড়িয়ে এক হাজার কোটি টাকা করা হয়।

Previous article“গ্রামরত্ন” উপাধি পেলেন এ কালের জসীম উদ্দীন
Next articleভুবন বাদ্যকরের ‘কাঁচা বাদাম’ গানের তালে তালে নাচলেন মাধুরী-রিতেশ

Leave a Reply