বাংলা চলচ্চিত্রের এক সময়ের দর্শকপ্রিয় চিত্রনায়ক কাজী মারুফ। এক সময়ের তুমুল ব্যস্ত এই নায়ক এখন সিনেমায় আর কাজ করেন না। স্থায়ীভাবে বসবাস করছেন সুদূর যুক্তরাষ্ট্রে। দেশ ছেড়ে মার্কিন মুলুকে স্থায়ী হয়েছেন কী কারণে? প্রবাসে কেমনই বা আছেন তিনি? এসব প্রশ্ন ঘুরপাক খায় দর্শকের মনে।

তবে এবার মারুফ নিজেই দিলেন জবাব। যুক্তরাষ্ট্রে থেকে লাইভে এসে ভক্তদের সঙ্গে আলাপ করেছেন, জানিয়েছেন তার অবস্থা সম্পর্কে। হাজার হাজার ভক্ত কেবল জানতে চেয়েছেন, তিনি কেমন আছেন? জবাবে মারুফ শুধু বলেছেন, তিনি ভালো আছেন।

সিনেমা ও দেশ ছেড়ে যুক্তরাষ্ট্রে যাওর কারণ জানিয়ে কাজী মারুফ জানান, বাংলাদেশে সিনেমা হচ্ছিল না। তেমন কাজ ছিল না। কিন্তু কিছু তো করে খেতে হবে। তা ছাড়া তাদের ‘ছিন্নমূল’ সিনেমা ২০১৬ সালের ১৪ ফেব্রুয়ারি মুক্তির কথা ছিল। কিন্তু সিনেমাটি মুক্তি দিতে দেয়নি একটি বড় প্রযোজনা প্রতিষ্ঠান।

আক্ষেপ জানিয়ে মারুফ আরও জানান, তার বাবাকে ওই প্রতিষ্ঠান জানিয়েছিলেন, তারা সিনেমা রিলিজ করতে না দিলে কীভাবে রিলিজ করবেন। তার বাবার মতো মানুষকেও এই কথা শুনতে হয়েছিল! আব্বা তাদের কথা শুনে বললেন, আমার আর বয়স নাই, আমি চাই না তুমিও যুদ্ধ করো। চলে যাও আমেরিকা। এই কারণেই চলে এসেছি।

সম্প্রতি এই অভিনেতা নির্মাণ করেছেন ‘গ্রিন কার্ড’ শিরোনামে একটি সিনেমা। বর্তমানে সিনেমাটি মুক্তির অপেক্ষায় আছে। শিগগিরই এটি তার ইউটিউব চ্যানেলে মুক্তি পাবে বলেও জানিয়েছেন অভিনেতা। সর্বশেষ ২০২১ সালে দীর্ঘ প্রতীক্ষার পর মারুফ অভিনীত ‘সৌভাগ্য’ সিনেমাটি মুক্তি পায়।

কাজী মারুফ ২০০২ সালে ‘ইতিহাস’ সিনেমার মাধ্যমে ঢালিউডে আত্মপ্রকাশ করেন। পরিচালনায় ছিলেন তার বাবা বরেণ্য অভিনেতা ও নির্মাতা কাজী হায়াৎ। সিনেমাটি সফল হয়েছিল, তিনিও পেয়েছিলেন জনপ্রিয়তা। এমনকি সেরা অভিনেতা হিসেবে জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কারও জিতে নেন।

এরপর একে একে অভিনয় করেছেন ‘অন্ধকার’, ‘শ্রমিক নেতা’, ‘পাঁচ টাকার প্রেম’, ‘গরিবের ছেলে বড় লোকের মেয়ে’, ‘মা আমার জান’, ‘মায়ের জন্য মরতে পারি’, ‘ওরা আমাকে ভাল হতে দিল না’, ‘মারুফের চ্যালেঞ্জ’, ‘দেহরক্ষী’, ‘ইভটিজিং’, ‘ছিন্নমূল’ ইত্যাদি।

Leave a Reply