সৈয়দ ইকবাল
বর্তমান সময়ে বিনোদনের অন্যতম মাধ্যম হচ্ছে ডিজিটাল দুনিয়া। একটা সময় টেলভিশন-রেডিওতে মানুষ বিনোদনের খোরাক যোগাতো। তবে সিনেমার আবেদন সবসময়ই একই রকম ছিলো। যদিও করোনাকালীন সময়ে মানুষের অভ্যাসে বেশ পরিবর্তন হয়েছে। সারা দুনিয়া দেখেছে ঘরে বসে কতোভাবে সব কাজ করা যায়। ঠিক এই সময়ে ‘ওটিটি’ প্ল্যাটফর্মগুলোর সারা পৃথিবীতে জনপ্রিয়তা বাড়ে। সেই ধারা এখনো অব্যাহত আছে। মানুষ ওটিটিতে ভিন্নধর্মী সব গল্পের ওয়েবফিল্ম, ওয়েব সিরিজ দেখে ভিন্ন রকম রোমাঞ্চে চলে যায়। তাই তো মানুষ এখন সেসব গল্পই দেখতে ভালোবাসেন। আগের মতো গতানুগতিক ধারায় প্রেক্ষাগৃহে গিয়ে ছবি দেখার মতো ধৈর্য্য, সময় কোনোটাই এখন মানুষের নেই। তার থেকে বড় কথা হচ্ছে- ঐ যে অভ্যেস। ঘরে বসে বড় টিভিতে চমৎকার সব ছবি দেখার যে অভ্যাস তৈরি হয়েছে তা রয়েই গেছে। তাই তো বিনোদনের সবচেয়ে বড় মাধ্যম এখন ‘ওটিটি’। সারাবিশ্বে শুধুমাত্র ওটিটিতে মুক্তি দেয়ার উদ্দেশ্যে বিগ বাজেটের সকল ছবি ও ওয়েব সিরিজ এখন বিনোদন জগতের মাঠ কাঁপাচ্ছে। বিনোদনের ট্রেডিশনাল মাধ্যম অর্থাৎ টেলিভিশন মানুষ এখন সংবাদের জন্যই বেশি দেখে থাকেন। তারপরও সেটা কিছু সংখ্যক দর্শক। বরং, তরুণ-তরুণী, ব্যবসায়ী এবং কর্পোরেট জগতের মানুষজন সেই খবরও এখন ইউটিউবেই বেশি দেখেন।

আমাদের টিভি নাটকের জয়জয়কার অবস্থা এই ইউটিউবের জন্য অনেকাংশে বেড়েছে বলা যায়। একটা সময় মানুষ বাংলা নাটক টিভিতেই বেশি দেখতেন। ২০১৫/২০১৬ সালের পর থেকে দর্শক আস্তে আস্তে টিভি নাটক টেলিভিশনের চাইতে ইউটিউবেই বেশি দেখতে শুরু করেন। ২০১৮/২০১৯ সালের দিকে এসে এই বিষয়টি রীতিমত জোয়ারে রূপ নেয়। বলা যায়- বাংলা নাটকের দর্শক বাড়তেই থাকে। সোশ্যাল মিডিয়ায় বাংলা নাটকের বিভিন্ন গ্রুপে সকল নাটক নিয়ে তরুণদের আলোচনা-সমালোচনা হতে থাকে। অপূর্ব, নিশো, মেহজাবীনের পাশাপাশি তৌসিফ, জোভান, তানজিন তিশা, সাফা কবির, মুশফিক ফারহান, শামীম হাসান সরকার সহ একঝাঁক তরুণ অভিনয়শিল্পী নাটকের সেক্টরে রাজত্ব করতে থাকেন। সেই ধারা এখানো অব্যাহত আছে। এই সময়ে বেশিরভাগ নাটকের গল্পে কমেডি ও প্রেম-ভালোবাসার ফাজলামো আর দুষ্টুমিতে ভরা গল্পের জোয়ার আসতে থাকে। যা শুরুতে দর্শক দারুণভাবে গ্রহণ করতে থাকেন। ফলে ইউটিউব চ্যানেলের (লেভেল কোম্পানি) কোম্পানিগুলোও এসব গল্পের নাটক নির্মাণ করতে থাকেন। কারন ভিউ হলেই টাকা। আর লগ্নিকৃত টাকা কোম্পানিগুলো ফিরে পাবার জন্য এটা ছাড়া কোনো পথও নেই। একটি নাটক আজকে আপলোড মানেই একদিন-দু’দিনের মধ্যে এক মিলিউন ভিউ হতে হবে। তবেই ঐ নাটককে সেরা নাটক বলা হয় এবং অভিনয়শিল্পীদের গায়ে ‘ভিউ’- এর তকমা লাগতে শুরু করে। অমুকের ভিউ আছে, তমুকের ভিউ নেই বলা হতে থাকে। এতে করে যে শিল্পীর নাটকের ভিউ বেশি, তার পারিশ্রমিকও বেশি। ফলশ্রুতিতে অভিনয়শিল্পীদের মধ্যে ভিউ নিয়ে রেশারেশি তৈরি হয়েছে। ফলে নাটকের সেক্টরে কিছু শিল্পীর এতো কাজ আর কিছু কিছু শিল্পীর হাতে কাজই নেই। এই সেক্টরের শিল্পীদের মধ্যে গত কয়েক বছরে একটা বৈষম্যও দেখা দিয়েছে। একেজন শিল্পী নিজেদের অস্তিত্ব টিকিয়ে রাখার জন্য সোশ্যাল মিডিয়ায় নিজেদের মেনটেইন করার জন্য লোকজন রেখে আলোচনা-সমালোচনা মূলক পোস্ট দেয়া শুরু হয়। বাংলা নাটকের বিভিন্ন গ্রুপে বিভিন্ন নাটক নিয়ে চলে আলোচনা-সমালোচনা। একটা পর্যায়ে টিভি চ্যানেলওয়ালারাও সেই একই ধারার গল্পের নাটকগুলো নির্মাণ ও প্রচার শুরু করতে থাকে। যতো স্থুল গল্প ঠিক ততোই যেনো ভিউ। আর এরই সুযোগে ‘ট্রেন্ডি’ গল্প বলার নামে যাচ্ছেতাই নাটক নির্মাণ হতে থাকে। এরই ফাঁকে কিছু নির্মাতা নিজেদেরকে না বদলে কিছু ভালো মানের গল্পের নাটক নির্মাণ করছেন। তবে সেটা সংখ্যায় খুব কম। যে নাটকগুলো সমাজ ব্যবস্থা কিংবা সমাজের কোনো না কোনো জায়গার কথা তুলে আনে। যেটা আসলে নাটকের আসল বক্তব্য। কারন বলা হয়ে থাকে- ‘নাটক হচ্ছে সমাজের দর্পন।’ কিন্তু কর্পোরেট বাণিজ্য তথা ভিউয়ের বাণিজ্যের রেশারেশিতে নাটক আজকে কোথায়? যারা এসব স্থুল বিষয় নিয়ে নাটকগুলো বানাচ্ছেন- তারা কী সন্তুষ্ট? যে গল্পটি দেখার পর একজন দর্শককে ১০ মিনিটও ভাবায় না, বিবেকের জায়গায় নাড়া দেয় না, তা নিয়ে আত্মতৃপ্তির ঢেকুর তোলা যায়?

হয়তো অনেকেই বলবে- দর্শক তো নিচ্ছে। কিন্তু রুচিশীল দর্শক ভালো ভালো গল্পের নির্মাণের মাধ্যমে তৈরি করতে হবে। যদি সুরসুরি প্রেম-ভালোবাসা আর কমেডিই সব হবে- তাহলে সারাবিশ্বে ইরানী ছবি এতো জনপ্রিয়তা পেতো না। জীবন নির্ভর সেসব ছবি সারা পৃথিবীতে আলোড়ন সৃষ্টি করতো না। ভিউ-ই যদি সব হবে তাহলে পর্নোগ্রাফির ভিউ সবচেয়ে বেশি। সাধারণত একটি নাটক পুরো না দেখলেও তা ভিউ হিসেবে বিবেচিত হচ্ছে। ফলে নাটকের মান বিচার করা যাচ্ছে না। এ ক্ষেত্রে চটুল গল্পের ভাঁড়ামোপূর্ণ নাটকের সংখ্যা বেশি। বিগত দুই বছরে সর্বাধিক ভিউয়ের বেশিরভাগ নাটকের গল্প দেখলে বিষয়টি স্পষ্ট হয়ে উঠে।

অনেক নির্মাতা মনে করেন, অভিনেতা-অভিনেত্রীদের কেউ কেউ সম্ভাব্য ভাইরাল গল্পের বাইরে কাজ করতে আগ্রহ দেখান না। প্রযোজনা ও লেভেল কোম্পানি প্রতিষ্ঠানগুলোও সেই ধরনের গল্পের নাটকগুলোর বেশি প্রচারণা চালাচ্ছেন। ফলে গল্পনির্ভর নাটকের সংখ্যা কমে যাচ্ছে। ভাল গল্পের নাটকগুলো প্রচারণার অভাবে দর্শকের চোখে পড়ছে কম। তবে কমেডি গল্পের অবশ্যই নাটক হতে পারে। সেটার মাত্রা আর ভাড়ামির মাত্রাটাও খেয়াল রাখা দরকার।
এমনও জানা যায়, অনেক নাটকের ভিউ নাকি সেই নাটক সংশ্লিষ্ট অভিনয়শিল্পী নানান কায়দায় বুস্ট করে এবং নিজস্ব টিম দিয়ে ভিউ বাড়িয়ে থাকে। সেটা হতেই পারে। একটি নাটক তার দর্শকদের কাছে পৌঁছানোর জন্য এমনটি করতেই পারেন। তবে কথা হচ্ছে- কোন ধরনের কাজটা নিয়ে এতো পরিশ্রম আর এতো টাকা খরচ হচ্ছে। নাটক শুধুমাত্র বিনোদনের জন্য নয়। এটার সাথে সামাজিক দায়বদ্ধতার পাশাপাশি সমাজকে প্রতিনিধিত্ব করে এমন বিষয়ও তুলে আনতে হবে। একটা সময় বিটিভিতে নাটকের ড্রয়িংরুম সাজানো দেখে মধ্যবিত্ত বাঙালির রুম সাজানো হতো। একজন দর্শকের রুচির জায়গা এবং মনস্তাত্ত্বিকভাবে সেই রুচি বহনের কাজটিও একটি ভালো গল্পের নাটক-সিনেমা থেকে হয়ে থাকে। এমন অনেক গল্পের নাটক-চলচ্চিত্র আছে যা দেখে একজন মানুষের বোধের জায়গা তৈরি হবে। কিন্তু এখন কথা হচ্ছে- বর্তমানে নাটক সেক্টরকে নেতৃত্ব দিচ্ছে ইউটিউব চ্যানেলগুলো। তারা তো শুধু বাণিজ্যটাই বোঝেন। দায়বদ্ধতার জায়গা আছে বলে তাদের কোনো কাজ উল্লেখ করার মতো কিছু চোখে পড়ে না। তাই তো এসব চাওয়াই হচ্ছে ‘অরণ্যে রোদন’ করা।

আজ থেকে কয়েক বছর আগেও নাটকের বাজেট নিয়ে নানান কথা শোনা গেছে। ভালো গল্প কিংবা ভালো মেকিংয়ের জন্য কথা তুললেই নির্মাতা-কলাকুশলীরা বাজেট নেই, এটা সেটা বলতো। কিন্তু বর্তমান সময়ে সেই কথা বলার কি সুযোগ আছে? বোধকরি না। বতর্মানে একেকটি নাটকের বাজেট ৮/১০ লাখ টাকাও হয়। এভারেজে ৩/৪/৫ লাখ টাকায় নাটক তো হরহামেশাই হচ্ছে। কিন্তু এর বিনিময়ে কি পাওয়া যাচ্ছে? ঐ একই ধারার গল্পের সব নাটক। কারন ভিউ তো পেতে হবে। সেজন্য ‘কমেডি মার্কা বা মজার বা ট্রেন্ডি’ গল্প না হলে তো আবার ইউটিউব চ্যানেলগুলো নিবে না। লেভেল কোম্পানিগুলোর ধারণা কমেডি না হলে নাটক কেউ দেখেন না। তাহলে বাজেটটা যাচ্ছে কোথায়? একেকজন শিল্পীর আকাশছোঁয়া পারিশ্রমিক, অযথা বাড়তি শুটিং খরচ, না লাগলেও প্রপসের ব্যবহার সহ নানান খাতে অহেতুক বাজেট বাড়ানো হচ্ছে। অথচ, ভালো বাজেটের একটি গল্প কেউই নির্মাণের ব্যাপারে যেনো আগ্রহ নেই। কারন গল্প তো কমেডি আর ট্রেন্ডি হলেই হিট!

আমরা যাচ্ছি কোথায়?

ইউটিউব দর্শক যত বেশি দেখেন, ততই বাড়ে ‘ভিউ’। কেউ বুস্ট করে ভিউ বাড়ান এমন খবরও আছে। তাই ডিজিটাল মাধ্যমের এই ভিউ নিয়ে আছে নানা কথা। কেউ বলছেন, নাটক আর গানের বেশি ভিউ মানেই মানসম্মত তা কিন্তু নয়। ইউটিউব ভিউ মোটেও মানসম্মত কাজের মাপকাঠি হতে পারে না। অলরেডি দর্শক একই ধরনের এসব গল্প দেখে বিরক্ত। মুখ ফিরিয়ে নিতে শুরু করেছে। কারন সারাপৃথিবীতে এখন ‘ওটিটি’র কল্যাণে ভালো কন্টেন্ট দর্শক দেখতে পাচ্ছেন। নেটফ্লিক্স, অ্যামাজন প্রাইম, ডিজনি হটস্টার, হৈচৈ সহ আরো কিছু ওটিটি প্ল্যাটফর্ম- এ দর্শক এখন দূর্দান্ত সব ওয়েবফিল্ম, ওয়েব সিরিজ দেখছেন। হলিউড-বলিউড এখন এই ওটিটি প্ল্যাটফর্মকেই প্রাধান্য দিচ্ছে। আমাদের দেশেও এক শ্রেণীর দর্শক তৈরি হয়েছে এটা নিঃসন্দেহে বলা যায়। এসব প্ল্যাটফর্ম- এর সঙ্গে আমাদের বিনোদন মাধ্যমগুলোও এখন প্রতিযোগিতা করতে হচ্ছে। এটা ঠিক যে, এসব বাজেটের মতো আমাদের নাটকের বাজেট নয়। তারপরও যে বাজেটটা আমরা এখন নাটকে পাচ্ছি- সেখানে অবশ্যই গল্প নির্ভর কিছু কাজ করা সম্ভব। আমাদের নাটকের স্থুল গল্পগুলো এখন আর ‘ওটিটি’-এর সেসব কনটেন্টের সামনে কোনোভাবেই দাঁড়াতে পারছে না। তাই নাটকে যে বাজেট পাওয়া যাচ্ছে- সেই বাজেটেই নাটকের মতো করে গল্প নির্ভর নাটক বানাতে হবে। তা না হলে আমাদের চলচ্চিত্রের মতো বাংলা নাটক থেকেও দর্শকরা মুখ ফিরিয়ে নিবে। সম্ভবত সেই দিন আর বেশি দূরে নয়। এখুনি সময় এসেছে এই বিষয়টি নিয়ে ভাববার।

মোট কথা, দর্শকের চাহিদা নিয়ন্ত্রণ করতে হবে। রুচিশীল দর্শক তৈরি করতে হবে। যারা এই বিষয়টি বোঝে এবং যারা বছরের পর বছর এই শিল্প-সংস্কৃতির জায়গা কাজ করেছেন তাদের হাতে নাটকের নিয়ন্ত্রণ থাকতে হবে। সস্তা গল্পের ভাঁড়ামোপূর্ণ নাটক দিয়ে ভিউ বাড়িয়ে ব্যবসায়িক চিন্তা বাদ দিতে হবে। স্পন্সর কোম্পানিগুলোকেও বোঝাতে হবে ভিউ মানেই কাঙ্খিত ভোক্তাদের কাছে পণ্যের প্রসার নয়। বরং, টার্গেট ভোক্তাদের কাছে যেতে হলে সব ধরনের দর্শকদের জন্য ভালো মানের কাজ উপহার দিতে হবে। আমাদের নাটকের ঐতিহ্য রয়েছে। এই ঐতিহ্য ধরে রাখতে হবে। কারণ, ইউটিউবের মাধ্যমে সারাবিশ্বে আমাদের নাটক ছড়িয়ে দেয়া হচ্ছে। ভাল গল্পের নাটক না হলে আমাদের নাটক সম্পর্কে বিশ্বে মন্দ ধারণা সৃষ্টি হতে পারে।
লেখক: বিনোদন সাংবাদিক, নাট্যকার ও জনসংযোগ বিশেষজ্ঞ

Leave a Reply