রঞ্জু সরকার
তিন বছর ধরে বাংলাদেশের নাটক সেক্টরে যাত্রা শুরু করা প্রযোজনা প্রতিষ্ঠান ক্রাউন এন্টারটেইনমেন্ট এখন আক্ষরিক অর্থেই দেশের অন্যতম শীর্ষ প্রযোজনা প্রতিষ্ঠান। যাত্রা শুরুর পর থেকে প্রতিষ্ঠানটি প্রায় পাঁচ শ’র বেশি নাটক প্রযোজনা ও পরিবেশনা করেছে। এটা বড় কথা নয়। সবচেয়ে বড় কথা হলো বঙ্গবন্ধুর জন্মশতবার্ষিকী, জাতীয় শোকদিবস, স্বাধীনতার সুবর্ণজয়ন্তী ইত্যাদির মতো গুরুত্বপূর্ণ দিবসকে সামনে রেখে প্রতিষ্ঠানটি বিপুল সংখ্যক নাটক, টেলিফিল্ম ও স্বল্পদৈর্ঘ্য চলচ্চিত্র নিজেদের উদ্যোগে নির্মাণ করেছে। এক্ষেত্রে স্পন্সরদের কেউই আশানুরূপভাবে এগিয়ে আসেনি। দু’একটি টেলিভিশন চ্যানেল বাদে সহযোগিতা পাওয়া যায়নি বেশিরভাগ টিভি চ্যানেলগুলোর কাছ থেকেও। এমনকি ভিউ বাণিজ্যের কারনে ইউটিউব চ্যানেলগুলোও এই ধরনের মুক্তিযুদ্ধের কাজ তাদের চ্যানেলে আপলোড দিতে এক রকম অনীহা প্রকাশ করে থাকে। তাদের বক্তব্য হচ্ছে- স্বাধীনতা তথা মুক্তিযুদ্ধের নাটক ইউটিউবে ভিউ হয় না। তবুও দেশপ্রেম এবং নাগরিক দায়িত্বের তাগিদে ক্রাউন এন্টারটেইনমেন্ট বেসরকারী প্রতিষ্ঠান হয়েও এসব মহতী উদ্যোগ নিতে কার্পণ্য করেনি।

সম্প্রতি বাংলা নাটকের অন্যতম পৃষ্ঠপোষক ইভ্যালি ও ধামাকা শপিং আইনী জটিলতার ফাঁদে পরে অনিশ্চয়তার মুখে ধাবিত হয়েছে। এই প্রতিষ্ঠান দুটি গত কয়েক বছরে বিশেষ দিবস থেকে শুরু করে ঈদ উৎসব পার্বণে অনেকগুলো নাটকের পৃষ্ঠপোষকতা করেছে। সেসব বিল আটকে যাওয়ার ফলে দেশের অনেকগুলো প্রযোজনা প্রতিষ্ঠান মারাত্মক সংকটে পড়েছে। শুধুমাত্র ক্রাউন এন্টারটেইনমেন্টের-ই এই প্রতিষ্ঠানগুলোর কাছে পাওনার পরিমাণ কোটি কোটি টাকা। ইভ্যালির কর্ণধার মোহাম্মদ রাসেল স্ব-স্ত্রীক কয়েকমাস ধরে কারাগারে আটক। তিনি কবে কিংবা আদৌ মুক্তি পাবেন কিনা এ নিয়ে এরইমাঝে সংশয় দেখা দিয়েছে। উচ্চ আলালতের নির্দেশে ইভ্যালির দায়-দেনার হিসাব করছেন একটি কমিটি। এখন পর্যন্ত ওই কমিটির পক্ষ থেকে ক্রাউন এন্টারটেইনমেন্টসহ ইভ্যালির অন্য পাওনাদারদের (প্রযোজনা প্রতিষ্ঠান, এজেন্সি বা ভেন্ডর) সাথে যোগাযোগ করা হচ্ছে না। অর্থাৎ নাটক সেক্টরের লগ্নিকারী প্রযোজনা প্রতিষ্ঠানগুলোর পাওনা টাকা আদায়ের বিয়ষটি এখনও অনিশ্চিত। একইভাবে ধামাকা শপিং নামের আরেকটি প্রতিষ্ঠানের কাছে পাওনা কোটি কোটি টাকা আদায়ের বিষয়টিও ঝুলে আছে। ধামাকা শপিং কর্তৃপক্ষ বারবার বলছে সরকার তাদের ওপর থেকে আরোপিত নিষেধাজ্ঞাগুলো বা ব্যাংক একাউন্টগুলো অবমুক্ত করলে তারা গ্রাহক সহ সকলের পাওনা পরিশোধ করবে। এই প্রতিষ্ঠানটির ধামাকা শপিং ছাড়াও আরো অন্যান্য ব্যবসা প্রতিষ্ঠান রয়েছে, যা দিয়ে সকল দায় মেটানো সম্ভব বলে জানা যায়। প্রতিষ্ঠানটির ব্যবস্থাপনা পরিচালক জসিমউদ্দিন চিশতী বারবার সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে লাইভে এসে নানা ধরনের আশারবাণী শোনাচ্ছেন। কিন্তু বাস্তবে ব্যাংক হিসাব অবমুক্তকরণের দোহাই দিয়ে তিনি পাওনাদারদের টাকা পরিশোধে কোনোই ব্যবস্থা নিচ্ছেন না। সরকার বলছে ওই প্রতিষ্ঠানের দেনা বিপুল অংকের টাকার হদিস-ই নেই। এই সব তর্কাতর্কির যাতাকলে সবচেয়ে বিপদে পড়েছে নাটকের প্রযোজনা প্রতিষ্ঠানগুলো।

ক্রাউনের ডেপুটি সিইও বলেন, ‘নাটকের সেক্টরে আজ পৃষ্ঠপোষক পাওয়াই মুশকিল হয়ে পড়েছে। ২০০৮ সালে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ও সরকারের তথ্যবিষয়ক উপদেষ্ঠা সজীব ওয়াজেদ জয় সেই সময়ে ডিজিটাল বাংলাদেশের বীজ রোপন করেছিল। তাঁদের দূরদর্শিতায় আজ বাংলাদেশ ডিজিটাল দুনিয়ার পথে হাঁটছে স্ব-গৌরবে। আজ সোশ্যাল মিডিয়া, ইউটিউব, অ্যাপস সহ নানান মাধ্যমে বাংলা নাটক বেশ জনপ্রিয়তা পেয়েছে। শুধু তাই নয় নাটক সেক্টরের মানুষজন আজকাল বিশ্বের সঙ্গে তাল মিলিয়ে ‘ওটিটি’ প্ল্যাটফর্মেও কাজ করছে। নির্মাণ করছে ভালো মানের সব ওয়েব কন্টেন্ট। বর্তমানে সিনেমাপাড়া সেই পুরনো আমলের নিয়মেই পড়ে আছে। তারা গতানুগতিক ধারায় প্রেক্ষাগৃহে ছবি মুক্তির পক্ষে। অথচ সারা পৃথিবী বিশেষ করে হলিউড-বলিউড ‘ওটিটি’ প্ল্যাটফর্মের যুগে পদার্পণ করে আজ তারা সফল। ওটিটি প্ল্যাটফর্মে একেকটি চলচ্চিত্র ও ওয়েব সিরিজ মুক্তি দিয়ে সারা ফেলছে সিনেমাপ্রেমীদের কাছে। করোনাকালীন এই সময়ে মানুষের ব্যস্ততা ও অভ্যাসে বেশ পরিবর্তন হয়েছে। প্রেক্ষাগৃহে ছবি দেখার মতো অনেক সময় হাতে থাকে না। এই সময়ে ওটিটি- এর যে উত্থান হয়েছে তা আজ সারাবিশ্বে বিনোদন মিডিয়ায় বেশ সাড়া ফেলেছে। তাই তো আমাদেরকেও এমন যুগোপযোগী সিদ্ধান্ত নিতে হবে। আধুনিকতার এই নেতৃত্ব নাটকের সেক্টরের নির্মাতা-কলাকৌশলীরাই ভালো দিতে পারবেন বলেই আমরা বিশ্বাস করি। কেননা এই সেক্টরের মানুষদের মধ্যে থেকে ইতোমধ্যে দেশে ও দেশের বাইরের কিছু ওটিটি প্ল্যাটফর্মে বেশকিছু ওয়েবফিল্ম ও ওয়েব সিরিজ মুক্তি পেয়েছে। যা বেশ জনপ্রিয়তার পাশাপাশি আলোচিতও হয়েছে।

একটি বিষয় উল্লেখ না করলেই নয় তা হলো- করোনাকালীন সময়ে দেশের গার্মেন্টস সহ শিল্প কলকারখানায় প্রণোদনা দেয়া হয়েছে। আমাদের নাটকের সেক্টরের মানুষ এই প্রণোদনা চায় না। নাটকের সেক্টর থেকে জাতীয় রাজস্ব খাতে প্রতিবছর মোটা অংকের ভ্যাট-্ট্যাক্স জমা হয়। জাতীয় উন্নয়নে এই সেক্টরের মানুষের বেশ অবদান আছে। শুধু তাই নয়- বিজ্ঞাপন সেক্টর, টিভি মিডিয়া তথা প্রযোজনা হাউজ ও এজেন্সিগুলোর সাথে হাজার হাজার মানুষের জীবিকা সম্পৃক্ত। তাই প্রণোদনা না হলেও এই সংকটময় মুহূর্তে ৩% হারে সুদে ব্যাংক ঋণের ব্যবস্থা করে দিলে এই সেক্টর তার আগের জৌলুস ফিরে পাবে। কেননা বর্তমানের তরুণ প্রজন্ম সহ দেশের বিশাল জনগোষ্ঠীর বিনোদনের খোরাক এই সেক্টরের শিল্পী কলাকৌশলীরা করে যাচ্ছেন। তাছাড়া শিল্প-সংস্কৃতির হাজার হাজার মানুষজন সামাজিক দায়বদ্ধতা থেকে কাজ করার পাশাপাশি সমাজের নানান অসঙ্গতি নাটকের মাধ্যমেই তুলে ধরেন। তাই আজ এই সেক্টরের পৃষ্ঠপোষক সহ লগ্নিকৃত টাকা উঠানোর বিষয়ে জননেত্রী শেখ হাসিনা মহতী উদ্যোগ নিবেন বলে বিশ্বাস করি। একইসাথে বর্তমানের সংকটময় পরিস্থিতির বিষয়টিও জনগণের মানসকন্যার দূরদর্শী কোনো পদক্ষেপে ভিন্ন এক রূপ পাবে বলে আমরা আশা রাখি’।

Previous articleডিজিটাল স্বাস্থ্যসেবার প্রত্যয়ে জায়ন্যাক্স হেলথ’র যাত্রা শুরু
Next articleজিনিয়া জিনি’র মিউজিক ভিডিও ‘তুই যে আমার প্রানো বন্ধু’

Leave a Reply