‘নায়িকা শিমুকে হত্যা করেছেন তার স্বামী। ইতোমধ্যেই তাকে গ্রেপ্তার করে কেরানীগঞ্জ থানায় রাখা হয়েছে। অযথা শিল্পী সমিতির বিপক্ষে যারা শিমুর বাসায় গিয়ে বিভ্রান্তমূলক কথাবার্তা বলেছেন তাদের শাস্তি প্রয়োজন। কেননা প্রমাণ ব্যাতীত একজনের বিরুদ্ধে আঙুল ওঠানো ১০০ পার্সেন্ট শাস্তিযোগ্য অপরাধ।’

চিত্রনায়িকা রাইমা ইসলাম শিমুর বস্তাবন্দি মরদেহ উদ্ধার করেছে পুলিশ। এই হত্যাকাণ্ড নিয়ে চলচ্চিত্র শিল্পীরা সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে বিচারের দাবিতে সোচ্চার হয়েছেন। ঘটনার বিচার দাবি করে এভাবেই সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে লিখেছেন জনপ্রিয় চিত্রনায়িকা অঞ্জনা।

তিনি আরও লিখেছেন, ১৮৪ জনের সদস্যপদ কি শুধু জায়েদ খান স্থগিত করেছে? উপদেষ্টা কমিটি এবং সমগ্র কার্যকরী পরিষদ অবগত ছিল। যা করা হয়েছে শিল্পী সমিতির সংবিধানের গঠনতন্ত্র অনুযায়ী করা হয়েছে। তারা যে সিগনেচার করেছে এটা তো মিথ্যা নয়।

উল্লেখ্য, দু’একজন শিল্পী এই হত্যাকাণ্ডে জায়েদ খানের দিকে অভিযোগের তীর ছুঁড়েছেন। যদিও গতকাল রাতেই গ্রেপ্তার হন শিমুর স্বামীসহ দুজন। শিমুর স্বামী এই হত্যাকাণ্ডের কথা শিকারও করেছেন।

Previous articleঅভিনেতা মমতাজউদদীন আহমেদের জন্মদিন আজ
Next articleতারা ফিল্মের জন্য কী করেছেন : ডিপজল

Leave a Reply