আন্তর্জাতিক খ্যাতিসম্পন্ন পুরস্কারপ্রাপ্ত সাংবাদিক, গবেষক, জঙ্গিবাদ বিশেষজ্ঞ এবং প্রভাবশালী ইংরেজী পত্রিকা ব্লিটজ’র সম্পাদক সালাহ্ উদ্দিন শোয়েব চৌধুরীর আজ জন্মদিন। ১৯৬৫ সালে ১২ জানুয়ারি সুনামগঞ্জের দিরাই উপজেলায় জন্মগ্রহন করেন তিনি। আজ তার শুভ জন্মদিনে মিডিয়াঙ্গনের অনেকেই শুভকামনা জানিয়েছেন। জমজমাট-এর পক্ষ হতেও অনেক শ্রদ্ধা ও ভালোবাসা।

সংস্কৃতিপ্রেমী সালাহ্ উদ্দিন শোয়েব চৌধুরী বাংলা ও ইংরেজিতে বেশ কয়েকটি বই লিখেছেন। ২০০৭ সালে অবিচার এবং জিহাদ নামে বই প্রকাশিত হয়েছিল। ২০০৮ সালের মে মাসে ইতালীয় প্রকাশনা সংস্থা নেফতাসিয়া চৌদ্দুরীর বইটি নন সোনো কোলেপোভোল নামে ইতালীয় ভাষায় প্রকাশ করেছিল। এটি ইতালিতে অনুবাদ করা কোনও সমসাময়িক বাংলাদেশী সাংবাদিকের প্রথম বই ছিল। আমেরিকা যুক্তরাষ্ট্রের সিটিজেন ইউনাইটেড প্রোডাকশনস প্রযোজিত আমেরিকা অ্যাট রিস্ক শীর্ষক একটি ডকুমেন্টারি ছবিতে তার সাক্ষাৎকার নেওয়া হয়েছে।

তিনি প্রভাবশালী ইংরেজি পত্রিকা ব্লিটজ্ -এর সম্পাদক এবং বাংলা সাপ্তাহিক জামজমাট- এর প্রধান সম্পাদক। তার নিবন্ধগুলি নিয়মিতভাবে বিভিন্ন আন্তর্জাতিক পত্রিকায় প্রকাশিত হয়। তিনি সারা বিশ্বের জঙ্গিবাদের মতো বিষয়গুলির বিশেষজ্ঞ হিসাবেও বিবেচিত এবং জিহাদের মূল কারণ অনুসন্ধানে ব্যাপকভাবে গবেষণামূলক কাজ করেন। বিশ্বজুড়ে বহু নামীদামী প্রতিষ্ঠান তাকে ইসলামী জঙ্গিবাদ, জিহাদ, বিদ্বেষমূলক বক্তব্য এবং রাজনৈতিক ইসলামের মতো বক্তৃতা দেওয়ার জন্য স্পিকার হিসাবে আমন্ত্রিত করে থাকেন।

তিনি  বাংলাদেশে প্রথম বেসরকারী স্যাটালাইট টেলিভিশনের জনক হিসেবে ‘এ-২১ টেলিভিশন’ চালু করেন। পরবর্তীতে তিনি বেসরকারী টেলিভিশন ইনকিলাব টেলিভিশনের ব্যবস্থাপনা পরিচালক হিসেবেও ছিলেন।

দর্শকপ্রিয় গীতিকার ও সুরকার সালাহ্ উদ্দিন শোয়েব চৌধুরী। বাংলাদেশের জীবন্ত কিংবদন্তী কন্ঠশিল্পী রুনা লায়লা থেকে শুরু করে সিনিয়র শিল্পীদের মধ্যে প্রায় সবাই গেয়েছেন তাঁর লেখা গান। শুধু তিনি গান লেখেনই না, সুরকার হিসেবেও তার খ্যাতি রয়েছে। এ প্রজন্মের শিল্পীরাও তাঁর লেখা ও সুরে গান করেছেন।  তিনি শুধু বাংলা গান লিখছেন তা নয়। উর্দু, হিন্দি ও ইংরেজী গান লিখেছেন ও সুর করেছেন তিনি। ইদানীং লিখেছেন নাটকও।

সংস্কৃতিপ্রেমী সালাহ্ উদ্দিন শোয়েব চৌধুরী মাত্র চার বছর বয়স থেকে টানা ১৬ বছর ওস্তাদ আখতার সাদমানী, ওস্তাদ রাম গোপাল মহন্ত, ওস্তাদ ফুল মোহাম্মদ খান, ওস্তাদ বারীন মজুমদারদের মতো সঙ্গীতজ্ঞদের কাছে শাস্ত্রীয় সঙ্গীত শিখেছেন। তাঁর প্রতিটি গানের কথাতেই গভীরতা ব্যাপক এবং প্রতিটি গানই শ্রোতাকে ডুবিয়ে নেবে ভাবনা আর অনুভূতির অন্য আরেক জগতে।

সংস্কৃতিকে ভালোবেসে তিনি তৈরি করেছেন প্রযোজনা প্রতিষ্ঠান ক্রাউন এন্টারটেইনমেন্ট ও ক্রাউন ক্রিয়েশনস্। ক্রাউন নিয়মিত নাটক প্রযোজনা করছেন। করোনা মহামারিতে যখন সবাই হাত গুটিয়ে নিয়েছে তখন ক্রাউন নাটকের জন্য আশীর্বাদ হয়ে আসে। মাত্র দুই বছরের কম সময়ে প্রতিষ্ঠানটি শীর্ষ স্থান জায়গা করে নিয়েছে।

Previous articleসানী-মৌসুমী, ফেরদৌস-পূর্ণিমা’য় উচ্ছসিত-মুগ্ধ দর্শক
Next articleশিল্পী সংঘের নির্বাচনে লড়ছেন মিষ্টি মারিয়া

Leave a Reply