আলোচনার কেন্দ্রবিন্দু এখন “রাগী” চলচ্চিত্রের একটি গানের ফুটেজ ফাঁসের ঘটনা নিয়ে। পরিচালক ও প্রযোজকের পৃথক দুটি অভিযোগ করেন চলচ্চিত্র পরিচালক ও প্রযোজক সমিতিতে। এদিকে গত ২৮ নভেম্বর বিকাল ৪ টায় চলচ্চিত্র পরিচালক সমিতির বর্তমান সভাপতি সোহানুর রহমান সোহান বিবাদী রানা বর্তমানকে জিজ্ঞাসাবাদ করতে দেখা যায়। সেখানে তাকে নানা রকম প্রশ্নের জবাবে আর অভিযোগ সত্যতা স্বীকার করেন অভিযুক্ত রানা বর্তমান।

চলচ্চিত্র পরিচালক সমিতির সভাপতি সোহানুর রহমান সোহান তিনি বলেন, ‘আমাদের পরিচালক সমিতির পূর্ণাঙ্গ সদস্য মিজানুর রহমান মিজান। তার “রাগী” চলচ্চিত্রের একটি গানের ফুটেজ ফাঁসের ঘটনা নিয়ে বিবাদী রানা বর্তমানকে পরিচালক সমিতিতে ডেকে জিজ্ঞাসাবাদ করি এবং তিনি তা স্বীকার করেন। তাৎক্ষনিক তাকে পুলিশে সোপর্দ করার চিন্তা করলেও পরে জানতে পারি ছেলেটি ডিরেক্টর গিল্ডের সদস্য। পরবর্তীতে এ বিষয়ে ডিরেক্টর গিল্ডের সাধারণ সম্পাদক কামরুজ্জামান সাগর এর সঙ্গে ফোনে কথা বলি। চলচ্চিত্র পরিচালক সমিতির পক্ষ থেকে তাদেরকে একটি চিঠি ফরওয়ার্ড করব।’ তিনি আরও বলেন, ‘ডিরেক্টর গিল্ড এর বিচারের অপেক্ষায় থাকব। এরপর যদি তাদের কোন সুরহা না পাই তখন আমরা আমাদের সমিতির মাধ্যমে আইনি পদক্ষেপ নিতে বাধ্য হব। কেননা এই চলচ্চিত্রের ক্লান্তিলগ্নে একজন পরিচালকের কোটি টাকার ক্ষতি আমরা কোনদিনও চাইব না।’

এ প্রসঙ্গে প্রযোজক জাকিয়া খাতুন জয়া জানান, ‘ইতিমধ্যে চলচ্চিত্র প্রযোজক সমিতির প্রশাষকের বরাবর আর একটি অভিযোগ দায়ের করেছেন। অপেক্ষা এখন ডিরেক্টর গিল্ডের জন্য। ডিরেক্টর গিল্ড কোন সুরহা না পেলেই এই প্রযোজক আইনি পদক্ষেপ গ্রহণ করবেন।’ তিনি আরও জানান, ‘করোনা পরিস্থিতির মধ্যেও এই “রাগী” চলচ্চিত্রের কাজ সমান তালে শেষ করেছেন। আজ সেই গানের জন্য কোটি টাকার উপরে চলচ্চিত্রের ক্ষতির সম্মূখিন হয়েছেন। বিষয়টি সবার কাছে সামান্য হলেও এই প্রযোজকের কাছে ক্ষতির পরিমান ১০ লক্ষাধিক টাকার বেশি। তার পুরো চলচ্চিত্র এখন হুমকির মুখে। কোনভাবে চলচ্চিত্রটি মুক্তির আগে যদি সোস্যাল মিডিয়াতে গানের ফুটেজ এর মতো ফাঁস হয়ে যায় তাহলে তিনি আর্থিকভাবে ব্যাপক ক্ষতি হবেন।’

পরিচালক মিজানুর রহমান মিজান বলেন, ‘চলচ্চিত্র পরিচালক সমিতির পক্ষ থেকে আমাকে জানানো হয় বিকাল ৩ টায় সমিতিতে উপস্থিত থাকার জন্য। সেখানে আমি উপস্থিত হই বেলা ২.৩০ মিনিটে। আমার ‘রাগী’ চলচ্চিত্রের হিরো উপস্থিত হয় প্রায় ৩টায়। সেখানে আমাদেরকে ১ঘন্টার মতো বসিয়ে থাকতে হয় এই বিবাদী রানা বর্তমানের জন্য। এক পর্যায়ে বিরক্ত হয়ে আমরা বিচার সমাপ্তির কথা চিন্তা করি। পরে আমাদের সভাপতি সোহানুর রহমান সোহান তাকে বারংবার ফোন দিলেও ফোন রিসিভ না করে ১৫ মিনিট পর উপস্থিত হতে দেখা যায়। পরে বিচারে অংশগ্রহণ শুরু হলেও উনার কথায় বেশ বিরক্ত হই। কেননা কথার বলার সময় ফান হিসেবে আমাদের ধরে নিচ্ছিলেন। পূণরায় তাকে আবার একটি ধমকও দেই। কারণ ছেলেটি আমাদের সঙ্গে হেসে হেসে কথা বলছিলেন!’ তিনি আরও বলেন, ‘যেখানে আমাদের কোটি টাকার একটি চলচ্চিত্র হুমকির মধ্যে সেখানে হেসে হেসে মাফ চাচ্ছেন তিনি। বিষয়টি খুব দুঃখজনক। ছেলেটির মধ্যে কোন অনুতপ্ত নেই। তার দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি দাবি করেছেন এই পরিচালক।’

“রাগী” চলচ্চিত্রের অভিনেতা পারভেজ চৌধুরী আবির বলেন, ‘ছেলেটির কথা শুনে মনে হয়েছে উনি একটা অশিক্ষিত। মোবাইলের চলমান চিত্রকে উনি চলচ্চিত্র বানিয়ে নিজের পেজে ফিল্ম ডিরেক্টর লাগিয়ে বসে আছেন। অথচ কোন চলচ্চিত্র নির্মাণ করেননি তিনি। চলচ্চিত্রের কোন প্রাতিষ্ঠানিক মর্যাদা নেই তার কাছে! চলচ্চিত্রের কোন ডেফিনেশন জানা নেই তার! বিষয়গুলি নিয়ে বেশ অবাক হলাম!! প্রথম থেকে তার ভুল-ভাল বক্তব্য বেশ বিরক্তিকর মনে হয়েছে।’ তিনি আরও বলেন, ‘তার ভুলের জন্য হেয় প্রতিপন্ন হয়েছি। ছেলেটির জন্য আমার বেশ ক্ষতি হয়েছে, যা বলে বুঝাতে পারব না। অনেকেই ভাবছেন আমরা হয়তো মোবাইল দিয়েই চলচ্চিত্র নির্মাণ করি! তাকে ক্ষমা করা যায় না। ‘

তবে বিবাদী রানা বর্তমানের ভাষ্যে, ‘তিনি ভুল করেছেন। একটি ইউটিউব থেকে ভিডিওটি এডিট করে নিজের কণ্ঠের গান লাগিয়ে তার নিজের পেজে আপলোড করেছেন।’

উল্লেখ্য, তবে একটি বিশ্বস্থসূত্রে এর আগেও একাধিক অভিযোগের বাইরেও রানা বর্তমানের নামে অশ্লীল ভিডিও নির্মাণের অপরাধে গ্রেফতারের কথা জানায় যায়।

Previous articleতিন কমিশনারের পদত্যাগ টিভি প্রযোজকদের ঘিরে বিশৃঙ্খলা
Next articleনাট্যকার হিসেবে ‘বারী সিদ্দিকী সম্মাননা-২০২১’ পেলেন রিজভী

Leave a Reply