মঞ্চনাটকে এখনো জীবন্ত কিংবদন্তি অভিনেত্রী ফেরদৌসী মজুমদার অনবদ্য-সেটি আরও একবার উপভোগ করছেন দর্শক। ৫ নভেম্বর নাট্যদল থিয়েটারের ৩৮তম প্রযোজনা ‘মুক্তি’ নাটকের শততম মঞ্চায়ন হয়ে গেল রাজধানীর শিল্পকলা একাডেমির পরীক্ষণ থিয়েটার হলে। লী ব্লেসিবংয়ের মূল গল্পে এ নাটকের ভাবানুবাদ করেছেন মিজারুল কায়েস। নির্দেশনা দিয়েছেন ফেরদৌসী মজুমদার ও রামেন্দু মজুমদার কন্যা ত্রপা মজুমদার।

এ নাটকে মা চরিত্রে ফেরদৌসী মজমুদার, সোহিনী চরিত্রে তানভীন সুইটি, রজনী চরিত্রে তামান্না ইসলাম এবং দামিনী চরিত্রে অভিনয় করেছেন তানজুম আরা শিল্পী। দীর্ঘদিন পর মঞ্চায়িত এ নাটকের শততম মঞ্চায়ন দর্শক বেশ উপভোগ করেন। অভিনয় দক্ষতায় আবারও ফেরদৌসী প্রমাণ করলেন, বয়স হলেও তিনি এখনো অনবদ্য। সুইটি, তামান্না, তানজুমরাও নিজেদের উতরে গেছেন। এ নাটকের প্রযোজনা উপদেষ্টা রামেন্দু মজুমদার বলেন, ‘নাটকে তিনকন্যা মায়ের কাছ থেকে দূরে চলে গিয়ে নিজেদের মতো করে মুক্তির আস্বাদ পেতে চাইছে। নিঃসঙ্গ মা ভাবেন, সারা জীবন তিনি কি এ পরিণতির জন্য তিন সন্তানকে মানুষ করেছেন? এভাবে কি মেয়েরা সত্যিকারের মুক্তি খুঁজে পাবে? নাটকের মধ্য দিয়ে আমরা এ প্রশ্নটিই করতে চেয়েছি।’

ফেরদৌসী মজুমদার বলেন, ‘দর্শক কষ্ট করে মুক্তির শততম মঞ্চায়নে এসেছেন, এ জন্য তাদের প্রতি আমি আন্তরিকভাবে কৃতজ্ঞ। আগামীতেও এমনি করেই আমাদের নাটকের পাশে থেকে অনুপ্রেরণা দিয়ে যাবেন বলে আমি বিশ্বাস করি।’ নাটকের নির্দেশক ত্রপা মজুমদার বলেন, ‘২০০৪ সালের ২৭ নভেম্বর মুক্তি নাটকের প্রথম মঞ্চায়ন হয়েছিল। সেই থেকে আজ অবধি দর্শকের কাছ থেকে আমরা যেভাবে সাড়া পেয়ে আসছি, তাতে সত্যিই মুগ্ধ আমরা। আমাদের পুরো টিমের কষ্ট সার্থক হলো মুক্তির শততম মঞ্চায়নের মধ্য দিয়ে। আমার বিশ্বাস আগামীতেও দর্শক আমাদের পাশে থাকবেন।’

তানভীন সুইটি বলেন, ‘মঞ্চে আমার অভিনীত উল্লেখযোগ্য নাটকের মধ্যে মুক্তি অন্যতম একটি নাটক। সোহিনী চরিত্রটিও আমার ভীষণ পছন্দের। এটি আমার জন্য পরম সৌভাগ্যের যে, এখনো আমি আমাদের কিংবদন্তি অভিনেত্রী, নন্দিত নাট্য ব্যক্তিত্ব শ্রদ্ধেয় ফেরদৌসী মজমুদারের সঙ্গে অভিনয় করতে পারছি।’

Previous articleগুরুর নাট্যদল থেকে সম্মানায় ভূষিত ওমর সানী
Next articleআজ চ্যানেল নাইনে তাজু কামরুলের পরিচালনায় সুমন – শাকিলার ‘টক্কর’

Leave a Reply