বাংলাদেশ চলচ্চিত্র পরিচালক সমিতির সদস্যপদ হারালেন চলচ্চিত্র নির্মাতা নোমান রবিন। সেই সাথে বাতিল হয়েছে তার আন্তর্জাতিক ও তথ্য সচিবের পদও। সদস্যপদ ফিরে পেতে পরিচালক সমিতির বিরুদ্ধে মামলার প্রস্তুতি নিচ্ছেন ‘কমন জেন্ডার’ সিনেমার এই পরিচালক।

এ ব্যাপারে চলচ্চিত্র পরিচালক সমিতির সভাপতি সোহানুর রহমান সোহান বলেন, নোমান রবিন সংগঠনের সংবিধানের ধারা লঙ্ঘন করায় তার সদস্যপদ এক বছরের জন্য স্থগিত করা হয়েছে। নিয়ম অনুযায়ী সদস্যপদ স্থগিত হওয়ায় তার আন্তর্জাতিক ও তথ্য সচিবের পদটিও বাতিল হয়ে গেছে।

এমন সিদ্ধান্তের কারণ জানতে চাইলে সোহান বলেন, রবিন এমন কিছু কাজ করেছেন, যাতে সংগঠনের ভাবমূর্তি ক্ষুণ্ণ হয়েছে। এর আগেও তাকে শোকজ করা হয়েছিল। শোকজের জবাবে তিনি যে ব্যাখ্যা দিয়েছিলেন, তা সমিতির কাছে সন্তোষজনক মনে না হওয়ায়, এ সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছে।

এ ব্যাপারে বাংলাদেশ চলচ্চিত্র পরিচালক সমিতির উপমহাসচিব অপূর্ব রানা বলেন, নোমান রবিন সমিতির ইস্যুতে ফেসবুকে স্ট্যাটাস দিয়েছেন। এতে সমিতির সম্মান ক্ষুণ্ন হয়েছে। এছাড়াও তিনি অনলাইনে একটি শো করেন। সেখানেও সমিতি নিয়ে নানা ধরনের সমালোচনা করেছেন। এসবের কারণ জানতে চেয়ে এক মাস আগে রবিনকে কারণ দর্শানোর নোটিশ দেয়া হয়। তার উত্তরও দিয়েছেন নোমান রবিন।

নোমান রবিনের দেয়া উত্তর নিয়ে গত ৩০ অক্টোবর বৈঠকে বসে পরিচালক সমিতি। সেখানেই রবিনের সদস্যপদ স্থগিতের সিদ্ধান্ত নেয়া হয় বলে জানান অপূর্ব রানা।

এ প্রসঙ্গে নোমান রবিন বলেন, কিছুদিন আগে আমাকে চলচ্চিত্র পরিচালক সমিতি থেকে একটি চিঠি দেওয়া হয়। আমি তার উত্তর দিয়েছি। কিন্তু দ্বিতীয় চিঠির জবাবে তারা আমাকে বহিষ্কার করেছেন। এর কারণ হিসেবে জানা গেছে, আমার ব্যক্তিগত ফেসবুকে আমার কিছু ভাবনা তুলে ধরেছি এবং শাকিব খানের একটি সংবাদ শেয়ার করে মন্তব্য করি। এই দুটি কারণে আমার সদস্যপদ হারাতে হয়েছে।

যোগ করে এই নির্মাতা বলেন, আমরা যারা তরুণ নির্মাতারা আছি, তারা সিনেমা নির্মাণ করছি। দর্শক প্রেক্ষাগৃহমুখী করছি। সমিতিকে নিয়মিত চাঁদা দিচ্ছি। তারপরও আমাদের কাজে অসুবিধা হয়। সমিতি থেকে কোনো সহযোগিতা পাই না। বরং তারা কাজে বাধা প্রয়োগ করেন। এমন লোক দিয়ে তো সমিতি চলতে পারে না। সিনেমা সেন্সর হয়ে গেলেও সেন্সর বোর্ড সার্টিফিকেট দেয় না।

এর জন্য নিতে হবে এফডিসির এনওসি। সেটি নিতে গেলে তারা আবার কানে কানে বলে দেন পরিচালক সমিতিতে যান। পরিচালক সমিতি আসলে তারা বলে টাকা জমা দেন। আবার বলবে, প্রযোজক সমিতিতে যেতে। একজন পরিচালক সিনেমার সেন্সর সার্টিফিকেটের জন্য টাকা দিবে কেন? যখন সিনেমা মুক্তির সময়, তখন দেবে। সার্টিফিকেটের জন্য কেন টাকা দিবে? এ ব্যাপারে অনেকবার কথা বলেও কোনো ফলাফল পাইনি।

সদস্যপদ ফিরে পেতে সর্বশেষ পদক্ষেপের কথা জানিয়ে রোমান রবিন বলেন, আমি মামলার প্রস্তুতি নিচ্ছি। এরই মধ্যে আইনজীবির সঙ্গে কথা বলেছি। যেহেতু গত আট বছর ধরে আমি সমিতিকে চাঁদা দিচ্ছি, তাই আইন অনুযায়ী তারা আমার সদস্যপদ স্থাগিত করতে পারে কিনা সেটি আদালতের মাধ্যমে জানতে চাই। কার্যনির্বাহী সদস্যপদ থেকে প্রত্যার করেছেন, তা নিয়ে আমার মাথা ব্যথা নেই। কিন্তু আমার সদস্যপদ এক বছরের জন্য স্থগিত করেছেন, সেটি নিয়ে আমি জানতে চাই। বিভিন্ন সময় আমি নতুন পরিচালকদের সমিতির সদস্য হতে আগ্রহী করেছি। তার ফলাফল এটা?

অভিযোগ করে নোমান রবিন আরও বলেন, যে বিল্ডিংয়ে সমিতি রয়েছে, সেটি লাইব্রেরির অনুমতি থাকলেও সমিতি হিসেবে ব্যবহার হচ্ছে। এখানে কোনো লাইব্রেরি নেই। একটা রুমে অল্প কিছু বই আছে। কিন্তু সেখানে সাধারণ সদস্যরা প্রবেশ করতে পারে না। সেটি তালাবদ্ধ রাখা হয়। শুধু কার্যনির্বাহী সদস্যরা প্রবেশ করতে পারেন।

নোমান রবিন মনে করেন, সমিতির পদ ব্যবহার করে অনেকেই ব্যক্তিগত সুবিধা নিচ্ছেন। এ ব্যাপারে সমিতিকে অবগত করলেও কোনো ফলাফল পাননি তিনি। চিঠিতে উল্লেখ করে বর্তমান কমিটিকেও জানিয়েছেন যে, বিগত দিনে সমিতির পদ ব্যবহার করে অনেকেই অনেক কিছু করেছেন। বর্তমানেও করছেন এর তালিকা আমার কাছে আছে। সমিতি চাইলে আমি দিতে পারব। সমিতি অসাধারণ একটি জায়গা। কিন্তু এফডিসির সর্বশেষ নীতিচ্যূত মানুষগুলো শাহীন সুমনসহ অন্যরা মিলে সমিতি পদ ব্যবহার করে নিজেদের ব্যক্তিগত স্বার্থ হাসিল করছেন।

যোগ করে তিনি বলেন, কান চলচ্চিত্র উৎসব মাতানো ‘রেহানা মরিয়ম নূর’ সিনেমার পরিচালক আবদুল্লাহ মোহাম্মাদ সাদকে সম্মান জানিয়ে সম্ভব হলে তাকে সদস্যপদ উপহার দেওয়া হোক পরিচালক সমিতিকে আমি বলেছিলাম। কিন্তু তারা যে ডায়লগ আমাকে দিয়েছেন, তা অবাক করার মতো। তারা চলচ্চিত্রের ভালোর জন্য আসেনি। বদমায়েশি করতে এসেছেন।

মূলত ফেসবুক স্ট্যাটাসকে কেন্দ্র করে নোমান রবিনের সদস্যপদ স্থগিত করা হয়েছে। যে স্ট্যাটাস ঘিরে সদস্যপদ হারাতে হয়েছে নোমান রবিনকে, সেইসাথে একই পথে হাঁটছেন পরিচালক সমিতির মহাসচিব শাহীন সুমন। তিনিও একটি স্ট্যাটাস দিয়েছেন সামাজিক যোগাযোগমাধ্যম ফেসবুকে।

তিনি লিখেছেন, একসাথে পাগল এবং ছাগল সাধারণত দেখা যায় না! কিন্তু আজ (বুধবার, ৩ নভেম্বর) একটা ফেসবুক লাইভে দেখলাম। পাগল আর ছাগল পাশাপাশি বসে কথা বলছে, সৃষ্টিশীল মানুষ নিয়ে! দেশটা রসাতলে গেল বুঝি…!

তিনি সরাসরি কারো নাম উল্লেখ না করলেও নোমান রবিনকে ইঙ্গিত করেই তার এই স্ট্যাটাস, তা স্পষ্ট। এই স্ট্যাটাস ঘিরে প্রশ্ন রেখে নোমান রবিন বলেন, যেহেতু সে একটি স্ট্যাটাস দিয়েছেন- নাম উল্লেখ না করলেও আমার লাইভ ইঙ্গিত করেই তার এমন স্ট্যাটাস। তাহলে তার আর আমার মধ্যে পার্থক্য কী?

যদিও বিএফডিসির সমিতি ঘিরে এমন কাঁদা ছোড়াছোড়ি নতুন নয়। বেশ কয়েক বছর ধরেই এমন কাঁদাছোড়া চলছে। সর্বশেষ শিল্পী সমিতির নির্বাচন ঘিরে মৌসুমী, ওমর সানী ও জায়েদ খানের মধ্যে দূরত্ব তৈরি হয়। কিন্তু সম্প্রতি তারা ভেদাভেদ ভুলে এক হয়ে ‘সোনার চর’ নামের একটি সিনেমায় অভিনয় করছেন।

Previous articleসুবাহর খোলা চিঠিতে ক্রিকেটার নাসিরকে যা বললেন
Next articleগৌতম সাহার কোরিওগ্রাফিতে রয়েল মালাবারের ফটোশুটে বুবলী

Leave a Reply