রোববার (৩১ অক্টোবর) বিএফডিসির সামনে চলচ্চিত্রের সকল সংগঠন মানববন্ধন করেন। দেশের বিভিন্ন স্থানে সাম্প্রদায়িক হামলার প্রতিবাদে সরব হয়েছেন শিল্পী-কলাকুশলীরা। সাম্প্রদায়িক হামলার প্রতিবাদে রাজপথে নেমেছেন চলচ্চিত্র শিল্পী-কলাকুশলীরা। ব্যানার-ফেস্টুন আর স্লোগানের সঙ্গে প্রতিবাদ জানাচ্ছেন তারা।

এ প্রসঙ্গে মিশা সওদাগর বলেন, আমাদের সোনার বাংলায় নিন্দনীয় ঘটনা ঘটছে, এটা খুবই দুঃখজনক। এতে আমাদের দেশেরই সম্মানহানি হচ্ছে। যেখানে দেশ এগিয়ে যাচ্ছে, সেখানে দিনদিন দেশে সহিংসতা বাড়ছে। এতে আমাদের দেশের সম্মান নষ্ট হচ্ছে। আমাদের সবাইকে মিলেমিশে থাকতে হবে। সম্প্রতি ঘটে যাওয়া বিচ্ছিন্ন ঘটনাটির সুস্থ তদন্ত হোক, বিচার হোক। একজনের বিচার করে অন্যদের সর্তক করে দিতে হবে। প্রত্যেকের ধর্ম পালনের অধিকার সমান। কাউকে কটাক্ষ করা যাবে না। সরকারের উন্নয়নে বাংলাদেশ এগিয়ে নিতে আমাদের সবাইকে সহায়তা করতে হবে।

সাধারণ সম্পাদক জায়েদ খান বলেন, দেশ যখন এগিয়ে যাচ্ছে, তখন কিছু কুচক্র-মহল অরাজকতা সৃষ্টির চেষ্টা চালাচ্ছে। এভাবে হাঙ্গামা তৈরি করে দেশের উন্নয়নে বাধাগ্রস্ত করা যাবে না। সম্প্রতির এই দেশে সবাই থাকি মিলেমিশে। হানাহানি চাই না।

এর আগে, শনিবার (৩০ অক্টোবর) রাজধানীর মানিক মিয়া এভিনিউতে সমাবেশ করে টিভিসংশ্লিষ্ট ১৪টি সংগঠন, মানববন্ধন করে রাজপথে নেমে। এ সময় নাটক, মঞ্চ, সঙ্গীতসহ সংস্কৃতির বিভিন্ন অঙ্গনের তারকারা এক হয়ে নেমেছেন রাজপথে। ব্যানার-ফেস্টুন আর স্লোগানের সঙ্গে প্রতিবাদ জানিয়েছেন তারা।

এ সময় উপস্থিত ছিলেন- বাংলাদেশ চলচ্চিত্র পরিচালক সমিতির সভাপতি সোহানুর রহমান সোহান, সাধারণ সম্পাদক শাহীন সুমন, শিল্পী সমিতির সভাপতি মিশা সওদাগর, সাধারণ সম্পাদক জায়েদ খান, মাসুদ পারভেজ রুবেল, চিত্রনায়িকা অঞ্জনা রহমান, ওমর সানী, আলেকজেন্ডার বো, রোজিনা, মারুফ আকিব, কবিরুল ইসলাম রানা, সাদেক সিদ্দিকী, সায়মন তারিক, মাসুম বাবুল, আজিজ রেজা প্রমুখ।

Previous articleজহির খানের পরিচালনায় অর্পনা-তারভীরের টেলিফিল্ম ‘নীলার লাল শাড়ী’
Next articleমিয়াভাই আগের চেয়ে ভালো আছেন

Leave a Reply