একুশে পদকপ্রাপ্ত গুণী অভিনেতা, নাট্যকার, নির্দেশক ও শিক্ষক ড. ইনামুল হক আনন্দলোক থেকে অনন্তলোকের পথে পাড়ি জমালেন। তথ্যটি নিশ্চিত করেছেন শিল্পী সংঘের সাধারণ সম্পাদক আহসান হাবীব নাসিম।

শিল্পী সংঘের সাধারণ সম্পাদক নাসিম বলেন, “বাসায় পালস পাওয়া যাচ্ছিল না ড. ইনামুল হকের। পরে ইসলামী ব্যাংক হাসপাতালে নিয়ে গেলে তাকে মৃত ঘোষণা করা হয়। এখন তাকে কোয়ান্টামে গোসল করানোর জন্য নিয়ে যাওয়া হয়েছে। তারপর বেইলি রোড কমপ্লেক্সে নেওয়া হবে।”

তিনি জানান, মরদেহে শ্রদ্ধা নিবেদনের জন্য শিল্পকলা বা শহীদ মিনারে নেওয়া হবে কি না—সেটা পরে জানানো হবে।

ড. ইনামুল হকের পুরো পরিবারই নাটকের সঙ্গে জড়িয়ে আছেন। তার দাম্পত্য সঙ্গী বরেণ্য নাট্যজন লাকী ইনাম। তাদের সংসারে দুই মেয়ে হৃদি হক আর প্রৈতি হক।

ফেনী পাইলট হাইস্কুল থেকে এসএসসি, ঢাকার নটর ডেম কলেজ থেকে এইচএসসি এবং পরবর্তীকালে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের রসায়ন বিভাগ থেকে তিনি অনার্স ও এমএসসি সম্পন্ন করেন। পরবর্তীতে মানচেস্টার ইউনিভার্সিটি থেকে পিএইচডি লাভ করেনন ড. ইনামুল হক।

বাংলাদেশ প্রকৌশল বিশ্ববিদ্যালয়ে তিনি দীর্ঘ ৪৩ বছর শিক্ষকতা পেশায় নিয়োজিত থাকার সময় ১৫ বছর রসায়ন বিভাগের চেয়ারম্যান এবং দুই বছর ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগের ডিন হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন। নটরডেম কলেজে পড়াশোনাকালীন তিনি প্রথম মঞ্চে অভিনয় করেন।

ফাদার গাঙ্গুলীর নির্দেশনায় তখন তিনি ‘ভাড়াটে চাই’ নাটকে প্রথম অভিনয় করেন। ১৯৬৮ সালে প্রতিষ্ঠিত ‘নাগরিক নাট্যসম্প্রদায়’র অন্যতম প্রতিষ্ঠাতা সদস্য ছিলেন তিনি। দলটির ভাইস প্রেসিডেন্ট হিসেবেও দায়িত্ব পালন করেন ড. ইনামুল হক। এই দলের হয়ে প্রথম তিনি মঞ্চে অভিনয় করেন আতাউর রহমানের নির্দেশনায় ‘বুড়ো শালিকের ঘাড়ে রো’ নাটকে।

Previous articleচিত্রনায়িকা পপি এখন গাজীপুরে!
Next articleএক হচ্ছেন নোবেল ও তার স্ত্রী সালসাবিল

Leave a Reply