আজ দেশের অভিনয় জগতের গুণী এই ব্যক্তিত্ব পীযুষ বন্দ্যোপাধায় শুভ জন্মদিন। ১৯৫০ সালের ২৩ সেপ্টেম্বর জন্মগ্রহণ করেছিলেন।

বেতার, মঞ্চ, টেলিভিশন কিংবা চলচ্চিত্র; তিনি অভিনয় করেছেন সব মাধ্যমে। তার সাবলীল অভিনয়ের দ্যুতি ছড়িয়েছে দশকের পর দশক। ভরাট কণ্ঠের সংলাপে তিনি মুগ্ধ করেছেন দর্শকদের। তিনি পীযুষ বন্দ্যোপাধ্যায়।

বাংলাদেশের মুক্তিযুদ্ধে অংশ নেওয়া পীযুষ বন্দোপাধ্যায় আশির দশক থেকে নিয়মিত অভিনয় করেছেন। বিটিভির দর্শকনন্দিত ধারাবাহিক ‘সকাল-সন্ধ্যা’তে অভিনয় করে তিনি জনপ্রিয়তা অর্জন করেছিলেন। শূন্য দশকে এসেও তিনি নিয়মিত অভিনয় করেছেন। বেসরকারি টিভি চ্যানেলগুলো ছড়িয়ে পড়ার আগে বিটিভির যুগে পীযুষ বন্দ্যোপাধ্যায় ছিলেন দারুণ পরিচিত মুখ।

মঞ্চ নাটকে পীযুষ বন্দ্যোপাধ্যায়ের অবদান অসামান্য। নামি নাট্যদল ঢাকা থিয়েটারের অন্যতম সদস্য তিনি। এই দলের হয়ে তিনি বহু নাটকে অভিনয় করেছেন। এর মধ্যে আছে- ‘কীর্তনখোলা’, ‘প্রাচ্য’, ‘বনপাংশুল’, ‘শকুন্তলা’ ও ‘বাসন’ ইত্যাদি।

নাটকের বাইরে চলচ্চিত্রের অভিনয়েও দক্ষতার সাক্ষর রেখেছেন পীযুষ বন্দ্যোপাধ্যায়। ১৯৮৪ সালে খ্যাতিমান নির্মাতা মোরশেদুল ইসলামের পরিচালনায় ‘আগামী’ নামের স্বল্পদৈর্ঘ্যে অভিনয়ের মধ্য দিয়ে চলচ্চিত্রে আত্মপ্রকাশ করেন তিনি।

পীযুষ বন্দ্যোপাধ্যায় একজন লেখকও। তিনি পত্রিকায় নিয়মিত কলাম লেখেন। এছাড়া বেশ কিছু গল্প ও উপন্যাসের বইও রয়েছে তার।

এরপর তিনি অভিনয় করেছেন ‘একাত্তরের যিশু’, ‘মহামিলন’, ‘উত্তরের খেপ’, ‘কিত্তনখোলা’, ‘মেঘলা আকাশ’, ‘আধিয়ার’, ‘আমার আছে জল’, ‘আমার বন্ধু রাশেদ’, ‘গেরিলা’, ‘মৃত্তিকা মায়া’ ও ‘আমি শুধু চেয়েছি তোমায়’ ইত্যাদি সিনেমায়। এর মধ্যে ‘কিত্তনখোলা’ সিনেমায় তার ইদু কনট্রাক্টরের চরিত্রটি দাগ কেটেছিল দর্শকদের হৃদয়ে। এছাড়া ‘গেরিলা’র মতো সফল সিনেমায় তার অভিনয় এখনো মনে আছে দর্শকদের।

Previous article২৫ সেপ্টেম্বর ‘ম্যাচ উইনার’
Next articleসড়ক দুর্ঘটনায় আহত জারা

Leave a Reply