এই সময়ের প্রতিশ্রুতিশীল নৃত্যশিল্পী, মডেল ও অভিনেত্রী নুসরাত জান্নাত রুহীর আজ জন্মদিন। বিশেষ এই দিনটি ঘরোয়া পরিবেশে পরিবারের মানুষজন নিয়েই আনন্দে কাটাচ্ছেন বলে জানান রুহী। তিনি বলেন, ‘জন্মদিন আমার কাছে অনেক আনন্দ আর একটি বিশেষ দিন। আমি সবসময় জন্মদিনটা পরিবারের মানুষদের সঙ্গে কাটাতেই বেশি পছন্দ করি। এবারও তার ব্যতিক্রম হয়নি। রাত ১২ টায় পরিবারের সবাই আমাকে সারপ্রাইজ দেয়। তাদের সবাইকে নিয়ে কেক কেটে জন্মদিন পালন করি। আর ফেসবুক ও মোবাইলে পরিচিত বন্ধু-বান্ধব থেকে শুরু করে শোবিজ মিডিয়ার অনেকেই শুভেচ্ছা জানায়। জন্মদিনে শুভেচ্ছা জানানোর জন্য সবার কাছে আমি সত্যি কৃতজ্ঞ।’ রুহী আরো জানায়, বিশেষ এই দিনে তিনি অন্যান্য বারের মতো এবারও পথ শিশুদের সাথে কিছুটা সময় কাটাবেন।

শোবিজের অনেক শাখায় তিনি কাজ করছেন রুহী। নাচ, অভিনয়, মডেলিং ও উপস্থাপনা করা- মিডিয়ার প্রায় সব শাখায় তিনি কাজ করছেন। গত দুই ঈদে রুহী অভিনয় করেছেন বেশকিছু নাটকে। ভিন্ন ভিন্ন সব গল্পে সে কাজ করেছেন। এরমধ্যে দেশের শীর্ষ প্রযোজনা প্রতিষ্ঠান ক্রাউন এন্টারটেইনমেন্ট প্রযোজিত ও মেহেদী হাসান মুকুল পরিচালিত ‘কসাই গ্যাং’, রনি খানের ‘বিলাই দ্যা মেউ, কামরুল হাসান ফুয়াদের ‘সেমাই-চিনি’, সজীব মাহমুদের ‘রকি দ্যা গ্রেট’, মানসুর আলম নির্ঝরের ‘হেলথ কাভারেজ’ ও ‘লাভ উইথ বেনিফিটস’সহ আরো কিছু নাটক।

রুহী ছোটবেলা থেকেই নাচের সঙ্গে সম্পৃক্ত। তিনি বাফা, বাংলাদেশ শিশু একাডেমি, জাতীয় শিল্পকলা একাডেমিসহ দেশের প্রায় সব ইনস্টিটিউট থেকেই তিনি ক্ল্যাসিক্যাল নাচের উপর প্রশিক্ষণ নিয়েছেন। শান্ত- মারিয়াম বিশ্ববিদ্যালয় থেকে নাচের উপর তিনি মাস্টার্স করেছেন। ফ্যাশন ডিজাইনিং এও তিনি অনার্স ও মাস্টার্স করেছেন। রুহী বুলবুল একাডেমী অব ফাইন আর্টস (বাফা) এ বেশ কয়েক বছর ধরে সিনিয়র নৃত্য শিক্ষক হিসেবে কর্মরত রয়েছেন।

শোবিজ মিডিয়ায় রুহী কাজ শুরু অনেক আগে থেকেই। বিটিভি থেকে শুরু করে দেশের প্রায় সব ক‘টি টিভি চ্যানেলে তিনি নাচের অনুষ্ঠানে পারফর্ম করেছেন। সেই সময়ে তিনি বিজ্ঞাপন, মিউজিক ভিডিও ও নাটক-টেলিফিল্মেও কাজ করেছেন। মাঝে পড়াশুনার জন্য নিয়েছেন লম্বা একটি বিরতি। বিইউএফটি থেকে ফ্যাশন ডিজাইন ও শান্ত মারিয়াম থেকে মাস্টার্স করার ফলে তিনি মডেলিং এবং অভিনয় থেকে সরে আসেন। মাঝের বিরতির পর ২০১২ সাল থেকে রুহী আবার নিয়মিত কাজ শুরু করেছেন। অভিনয়, মডেলিং এবং উপস্থাপনা করছেন নিয়মিত।

বর্তমানে রুহী নাটকে অভিনয় নিয়েই বেশি ব্যস্ত। তার অভিনীত অনেকগুলো নাটক আলোচনায় আসে। তারমধ্যে রয়েছে নাজমুল রনির ‘আকাশ বদল’, ‘ভালোবাসার অন্য অনুভূতি’, ‘এই বৈশাখে’, রাইসুল তমালের ‘বুক পকেটের গল্প’, আবু হায়াত মাহমুদের ‘কালের আবর্তে’, তপু খানের ‘সময়ের গল্প’, তানভীর হোসেন প্রবালের ‘গল্পটি ভ-এর’, হারুন রুশো’র ‘দহনকালের ভালোবাসা’ ও ‘এবং বিচ্ছেদ এবং ভালোবাসা’, অনিক বিশ্বাসের পরিচালনায় ‘দ্রোহ’, ‘জননীর চোখ’, সজীব মাহমুদের ‘যে পাখির ডানা নেই’, ‘অচেনা প্রেম’, ‘ছেলেটির কোনো দোষ ছিলো না’, মাসুদ আল জাবেরের ‘পুতুলের সংসার’ ও ‘তখন এই সময়ে’, তুহিন হোসেনের ‘ভুল কাব্য’, রাফাত মজুমদার রিংকুর ‘বেবী রাসেল’, জুলফিকার ইসলাম শিশিরের ‘ছোট পরিবার আবশ্যক’সহ অনেকগুলো নাটকে রুহী অভিনয় করেছেন এবং আলোচনায় এসেছেন। এই পর্যন্ত রুহী প্রায় ৭০টি সিঙ্গেল নাটকে অভিনয় করেছেন। আরো রয়েছে বেশকিছু ধারাবাহিক নাটক। এরমধ্যে সৈয়দ শাকিলের ‘আনন্দ ভ্রমণ’, সজীব মাহমুদের ‘মমতাজ মহল’, মোহন খানের ‘নীড় খোঁজে গাঙচিল’, সঞ্জীব মাহমুদের ‘আলো আধাঁর’ উল্লেখযোগ্য। খুব শিগগিরই কিছু নতুন ধারাবাহিকে রুহীকে দেখা যাবে। যারমধ্যে উল্লেখযোগ্য হচ্ছে সজীব মাহমুদের ‘আকবর দ্যা কিং’ ও ‘হৈচৈ ডটকম’। মিউজিক ভিডিওতেও মডেল হয়েছেন খুলনার মেয়ে রুহী। শিল্পী মিলন মাহমুদ-এর ‘প্রিয়জন’, এফএ সুমন- এর ‘মন শুধু তুই তুই’ করে সহ বেশ কয়েকটি গানে তাকে মডেল হিসেবে দেখা গেছে। নাচের মেয়ে হওয়াতে মিউজিক ভিডিও করতে বেশ স্বাচ্ছন্দ্যবোধ করেন। তবে মিউজিক ভিডিওর কনসেপ্ট এবং গানটি অবশ্যই ভালো হওয়া চাই।
রুহী নিয়মিত বিজ্ঞাপন ও স্টিল ফটোগ্রাফিতে কাজ করছেন। দেশের সবক’টি জাতীয় দৈনিকের লাইফস্টাইল পেইজে কাভার ফটোশ্যুট করেছেন তিনি। আরো করেছেন ফ্যাশন হাউজগুলোর ফটোশ্যুটও। যারমধ্যে রয়েছে রঙ বাংলাদেশ, ইন-টোটো, সাজমন, জ্যোতি শাড়ি হাউজ, বিশ্বরঙ, প্রেমস কালেকশন সহ আরো অনেকগুলো ফ্যাশন হাউজ। টিভিসি ও ওভিসিতেও কাজ করেছেন রুহী। আরএফএল ডিসপো, ম্যাক্স ব্যাগসহ বেশকিছু বিজ্ঞাপনে কাজ করেছেন। উপস্থাপনাতেও রয়েছে রুহীর দক্ষতা। বেশকিছু টিভি অনুষ্ঠান সহ নানান ধরনের কর্পোরেট প্রোগ্রাম তিনি উপস্থাপনা করে থাকেন।

রুহী বর্তমানে আন্তর্জাতিক ওটিটি প্ল্যাটফর্মের চলচ্চিত্রে অভিনয়ের জন্য প্রস্তুতি নিচ্ছেন। তিনি বলেন, ‘আসলে সময়টা এখন ডিজিটাল মাধ্যম ও ওটিটির যুগ। তাই নিজেকে সেভাবে গুছিয়ে নিচ্ছি। আজকে সারাবিশ্বে বড় বড় সব চলচ্চিত্র ওটিটিতে মুক্তি দেয়া হচ্ছে। বাংলাদেশেও সেই যুগ শুরু হয়েছে। এখন আর একটি কাজ দেশের থাকে না। সারাবিশ্বের বাংলা ভাষাভাষি মানুষ আমাদের কনটেন্ট দেখছেন। তাই সামনে আমাদের দেশের চলচ্চিত্র বিশ্বের ওটিটি প্ল্যাটফর্মে দেখা যাবে। সেই দিন আর বেশি দূরে নয়। ক্রাউন এন্টারটেইনমেন্টের মতো বড় প্রতিষ্ঠানই এমন উদ্যোগ নিবে নিঃসন্দেহে।’

রুহীর বাবা একজন যুদ্ধাহত মুক্তিযোদ্ধা। তিনি চলচ্চিত্র পরিচালক, প্রযোজক ও মঞ্চ নাটক নির্দেশক ছিলেন। তার বাবার চলচ্চিত্র প্রযোজনা হাউজের নাম ছিলো এসআরএস প্রোডাকশনস। তার মা হেলেন বদরুদ্দীন একজন লেখক। গত দুই বছরে একুশে বইমেলায় তার মায়ের লেখা ‘পতাকার মিছিল’ ও ‘স্বচ্ছ আয়না’ নামের দুটি উপন্যাস বের হয়। এক ভাই এক বোনের মধ্যে রুহী ছোট। তার বড় ভাই আবু হাসিব রণ ডিবিএল সিরামিকস এর হেড অব সেলস হিসেবে কর্মরত রয়েছে।

Previous articleঢাকা আসছেন শান্ত খানের জন্য কলকাতার কৌশানী
Next articleমিউজিক একাডেমি খুললেন কর্ণিয়া

Leave a Reply