সাবেক স্বরাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী সোহেল তাজ গেল কয়েকদিন আগে পরীমণির ফেসবুক পোস্ট নিয়ে কয়েকদিন আগে সরব হয়েছিলেন। যেখানে সিগারেট হাতে হাজির হওয়াকে নেতিবাচক বলে উল্লেখ করেন তিনি। সেসময় সোহেল তাজ বলেন, ‘একজন সেলিব্রিটির কাছ থেকে এ রকম অশোভন আচরণ কাম্য নয়, আমাদের ছেলে-মেয়েদের ওপর নেতিবাচক প্রভাব ফেলবে।’ সোহেল তাজের এই পোস্টের পর পক্ষ-বিপক্ষে নানান তর্ক হয়েছে।

সোহেল তাজ এবার নিজের অবস্থান ব্যাখ্যা করেছেন। নিজেকে ‘ব্যক্তিস্বাধীনতায় বিশ্বাসী’ দাবি করে তিনি বলেছেন, একজন মানুষের অধিকার আছে নিজের ইচ্ছা অনুযায়ী ব্যক্তিগত জীবনযাপনের। তবে তিনি পরীমণির নাম উল্লেখ না করে ‘কিছু সেলেব্রিটির উচ্ছৃঙ্খল আচরণ’ নিয়ে আবারও প্রশ্ন তুলেছেন।

সোহেল তাজ লেখেন, ‘আমি ব্যক্তি স্বাধীনতায় বিশ্বাসী। কে কী পোশাক পড়লো বা ধূমপান করলো কী না করলো এগুলো শুধু নারী স্বাধীনতাই না, বরং ব্যক্তি স্বাধীনতার কাতারে পড়ে। আর তাই আমি মনে করি যে, একজন মানুষের (নারী বা পুরুষ) অধিকার আছে তার নিজের পছন্দ মতো তার ব্যক্তিগত জীবন পরিচালনা করার।’

ব্যক্তি স্বাধীনতা ও উচ্ছৃঙ্খল আচরণের পার্থক্য করে তিনি বলেন, ‘সমস্যা হচ্ছে, যখন আমরা উচ্ছৃঙ্খল আচরণকে নারী/ব্যক্তি স্বাধীনতার সঙ্গে মিলিয়ে ফেলি। বাংলাদেশে যখন মাদক একটি বিরাট সমস্যা যখন সোশ্যাল মিডিয়ার অ্যাডিকশনের কারণে ছেলে-মেয়েরা মানসিকভাবে আক্রান্ত হচ্ছে (ডিপ্রেশন) তখন নতুন প্রজন্মের জন্য প্রয়োজন ইতিবাচক অনুপ্রেরণা যা আমরা পাই অনুকরণীয় ব্যক্তিত্বদের জীবন থেকে— আর সেটা কখনোই সম্ভব হবে না যদি কিছু উচ্ছৃঙ্খল সেলিব্রিটিরা তাদের বেপরোয়া ব্যক্তিগত জীবনধারা তাদের সোশ্যাল মিডিয়ার মাধ্যমে আমাদের নতুন প্রজন্মের ওপর চাপিয়ে দেয়।’

তিনি বলেন, ‘আমাদের নতুন প্রজন্মের সামনে তুলে ধরতে হবে এমন ব্যক্তিত্বদের যারা তাদের দৃঢ়চেতা মনোবল এবং আত্মবিশ্বাসকে কাজে লাগিয়ে সকল প্রতিকূলতা পার করে শুধু নারী অধিকারের লড়াই করেন নাই বরং সকল মানুষের কল্যাণে কাজ করে গেছেন- উনাদের ইতিবাচক কর্মের মধ্যে রেখে গেছেন নতুন প্রজন্মের জন্য অনুপ্রেরণা।

Previous articleআবার বিয়ে করলেন ইভা রহমান
Next article‘রক্তমাখা সিড়ি’র জন্য সাড়া পাচ্ছেন নিশীতা

Leave a Reply