সালাহ উদ্দিন শোয়েব চৌধুরী

সময়টা ২০০১ সাল। আমি তখন দেশের শীর্ষ একটা দৈনিকের বিশেষ প্রতিবেদক এবং বেসরকারী টেলিভিশন চ্যানেলের ব্যবস্থাপনা পরিচালক। একটা অপরিচিত নম্বর থেকে মোবাইলে কল এলো। ওপাশের কন্ঠটা শুনেই মনে হলো যেনো হৃদয় থেকে কথা বলছেন। ফোনটা রেখেই সরাসরি গাড়ীতে উঠে একটা ঠিকানা দিয়ে ড্রাইভারকে বললাম, এখানে যাও। এপয়েন্টমেন্ট ছাড়া তখন ওনার সাথে দেখা করা অনেকের পক্ষেই অসম্ভব। কিন্তু আমি ওসব আনুষ্ঠানিকতা না মেনেই চলে গেলাম। ওনার অফিসের লোকেরা আমায় চিনে ফেললেন। নিয়ে গেলেন সাজানো-গোছানো অফিসকক্ষে। একটা সিগনেচার হাসি ওনার ঠোঁটে লেগেই আছে। ভীষণ অমায়িক। মানুষটা মুহূর্তে আমার হৃদয়ে স্থান করে নিলেন। ওনার নাম, দেওয়ান হাবিব। বাংলাদেশের অন্যতম বিনোদন কাগজ ‘বিনোদন বিচিত্রা’র সম্পাদক। দেওয়ান হাবিব ভাইর পরিচয় শুধু ‘বিনোদন বিচিত্রা’র সম্পাদক বললে অন্যায় হবে। বরং তিনি যুগযুগ ধরে ওই কাগজের মাধ্যমে বাংলাদেশের চলচ্চিত্র, নাটক এবং মডেলিংয়ে বিপুল সংখ্যক তারকার জন্ম দিয়েছেন – ওনার কাগজের মাধ্যমে আমাদের বিনোদন জগত পেয়েছে প্রতিভাবান বহু শিল্পী। আজকের বিনোদন জগতের অনেক খ্যাতিমানই ওই ‘বিনোদন বিচিত্রা’র হাত ধরে মিডিয়ার পাদপ্রদীপে এসেছেন, নিজেদের যোগ্যতাগুনে অবস্থান তৈরী করে নিয়েছেন। খুব ভালো লাগে যখন দেখি, ওনাদের প্রায় সবাই আজ অব্দি দেওয়ান হাবিব ভাই এবং ‘বিনোদন বিচিত্রাকে নিজের আত্মার আত্মীয় ভাবেন।

দেওয়ান হাবিব ভাইর পরিচয় শুধু ‘বিনোদন বিচিত্রা’র সম্পাদক নয়। ওনার সামাজিক অবস্থান বিশাল। এমনকি রাষ্ট্রক্ষমতার গুরুত্ব পূর্ণ পদে অধিষ্ঠিতদের প্রায় সবার সাথেই ওনার গভীর সম্পর্ক। কিন্তু এসব কখনোই তিনি নিজের স্বার্থে ব্যবহার করেননি। এটা হাবিব ভাইর আরেক বিশাল গুণ কিংবা ব্যক্তিত্বের বহিঃপ্রকাশ।

সারাটা জীবন বাংলা সংস্কৃতি আর বিনোদন দুনিয়ার সেবা করে যাচ্ছেন নীরবেনিভৃতে। একেবারেই প্রচারবিমুখ এই মানুষটাকে ওই ২০০১ সালে দেখার পর থেকেই আজ অব্দি ভীষণ ভালোবাসি – শ্রদ্ধা করি। আমার জীবনে নানা উত্থানপতন ঘটেছে। কিন্তু হাবিব ভাই কখনোই আমায় ত্যাগ করেননি, ভুলে থাকেননি। এটা ওনার এক বিশাল মানবিক গুণ।

দেখতে-দেখতে মিডিয়ার সাথে আমার সম্পর্ক ৩০ বছর অতিক্রম করেছে। এরই মাঝে বিনোদন জগতের বিভিন্ন শাখা-প্রশাখায় নানা উদ্যোগ নিয়েছি। কখনো সফল হয়েছি, কখনো হইনি। কিন্তু দিন যতো যাচ্ছে, এই সেক্টরের সাথে মমতার গহীনতাটা ক্রমশ বাড়ছে। বিনোদন জগত থেকে শুধুমাত্র টাকা কামানোর মতো মানসিকতা আমার নেই। এটা হাবিব ভাইসহ অনেকেই জানেন। এমনকি যে সাংবাদিকতা পেশায় আছি আজ ৩৩ বছর, এই সাংবাদিকতা কিংবা পত্রিকার সম্পাদকের পদবী ব্যবহার করে আখের গোছানোর বদঅভ্যেস থাকলে এখন এই ঢাকা শহরেই আমার বাণিজ্যিক টাওয়ার থাকতো, কলকারখানা থাকতো, এক বিঘা জমির উপর গুলশানে বাড়িও থাকতো। এসব আমি চাইলেই হয়ে যেতো। কিন্তু আমাকে দিয়ে এসব হয়না। হয়তো এসব করার জন্যে যে ধরনের যোগ্যতা লাগে সেটা আমার নেই। তা না হলে, সেই ১৯৯২ সালেই তো শেখ হাসিনা আমায় বলেছিলেন, “আমি প্রধানমন্ত্রী হলে তোকে একটা টিভি চ্যানেল করে দেবো”। একবার যদি প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে মনে করিয়ে দিতাম কথাটা, তাহলেই তো আমার টিভি চ্যানেল হয়ে যেতো সেই কবেই। কিন্তু এটা করতে পারিনি। ওই যে বললাম, এসব করার জন্যে যে যোগ্যতা লাগে, সেটা আমার নেই। একারণেও হয়তো দেওয়ান হাবিব ভাইর মতো মানুষদের ভালবাসা পাই সবসময়।

স্রষ্টার কাছে প্রার্থনা, মিডিয়ার ষ্টার তৈরীর কারিগর দেওয়ান হাবিব ভাই দীর্ঘ জীবন লাভ করুন। সুস্থ থাকুন, আজীবন যুবক থাকুন।

Previous articleজাতীয় শোক দিবসে বঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতিতে শ্রদ্ধা চলচ্চিত্র শিল্পী সমিতির
Next articleআজ পরীমণির জামিন আবেদন

Leave a Reply