সালাহ্ উদ্দিন শোয়েব চৌধুরী

আজ পনেরো অগাষ্ট। উনিশ শ পচাত্তর সালের এই দিনে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান, বঙ্গমাতা শেখ ফজিলতুন্নেসা, শেখ কামাল, শেখ জামাল, শেখ রাসেলসহ বঙ্গবন্ধু পরিবারের সদস্যদের নৃশংসভাবে হত্যা করে কুচক্রী শয়তানের দল। খুনীরা ভেবেছিলো, বঙ্গবন্ধুকে স্বপরিবারে হত্যার মাধ্যমে বাংলার মাটি থেকে তাঁর স্মৃতি মুছে দেবে। কিন্তু, যে মানুষটার সাথে বাঙ্গালী জাতির রক্তের বন্ধন, যে মানুষটা মিশে আছেন কোটিকোটি বাঙ্গালীর হৃদয়ের স্পন্দনে, তাঁর স্মৃতি কি মুছে দেয়া সম্ভব?

১৯৯৬ সালে শেখ হাসিনার নেতৃত্বে আওয়ামীলীগ ক্ষমতায় আসার পর বঙ্গবন্ধু হত্যার বিচার প্রক্রিয়া শুরু হয়। এরপর ২০০১ সালে উগ্র সাম্প্রদায়িক বিএনপি এবং এদের দোসর, স্বাধীনতা বিরোধী ভয়ঙ্কর জামাত ক্ষমতায় এলে খুনীদের ফাঁসি কার্যকরের প্রক্রিয়া থেমে যায়। কিন্তু ২০০৯ সালে আবারও শেখ হাসিনার নেতৃত্বে আওয়ামীলীগ বিপুল ভোটে বিজয়ী হয়ে ক্ষমতায় এলে জাতির জনকের স্বঘোষিত খুনী চক্রের বিচারের প্রক্রিয়া আবার শুরু হয়। এরই মাঝে খুনীদের কয়েকজনের মৃত্যুদণ্ডাদেশ কার্যকর হলেও, এখনও বিদেশে পালিয়ে আছে বেশ কজন মৃত্যুদন্ডপ্রাপ্ত খুনী। কানাডায় আছে নুর চৌধুরী। পাকিস্তানে বহিষ্কৃত কর্নেল খন্দকার আব্দুর রশিদ ও বহিষ্কৃত মেজর শরিফুল হক ডালিম। জানা গেছে, এই দুই খুনীর সাথে পাকিস্তানী গোয়েন্দা সংস্থা আইএসআই এর গভীর মাখামাখি।

জাতির জনককে হত্যার পর স্বঘোষিত খুনীরা বিদেশে পালিয়ে যায়। এসময় রশিদ এবং ফারুক চলে যায় লিবিয়ায়। সেখানে মুয়াম্মার আল গাদ্দাফির সাথে গড়ে তোলে গভীর সম্পর্ক। গাদ্দাফি এদের শুধু আশ্রয় প্রশ্রয়ই দেননি, বাংলাদেশ থেকে লিবিয়ায় শ্রমিক পাঠানোর কনট্র্যাক্ট এদের হাতেই তুলে দেন। যার ফলে রশিদ-ফারুক খুবই অল্প সময়ের মঝে বিপুল টাকার মালিক বনে যায়। লিবিয়ায় ওরা গড়ে তোলে বিশাল কনস্ট্রাকশন কোম্পানী, যেটি পরবর্তীতে গাদ্দাফির ব্যাক্তিগত সুপারিশে মধ্যপ্রাচ্যের কিছু দেশে কনস্ট্রাকশনের চুক্তি পায়। একই সাথে এরা গাদ্দাফির মাধ্যমেই ইয়াসির আরাফাতের সাথে সম্পর্ক গড়ে ফিলিস্তিনে কোটিকোটি ডলারের অস্ত্র সরবরাহ করেছে। রশিদ-ফারুকদের অস্ত্র ব্যবসায় প্রত্যক্ষ সহায়তা দিয়েছে পাকিস্তানী আইএসআই এবং আলোচিত অস্ত্র ব্যবসায়ী আদনান খাশোগী।

একদিকে বিপুল অর্থ আর অন্যদিকে অস্ত্র সরবরাহের আন্তর্জাতিক নেটওয়ার্কের সাথে যুক্ত হওয়ার পর রশিদ-ফারুকদ্বয় ভারতের উত্তর পূর্বাঞ্চলের বিচ্ছিন্নতাবাদী গোষ্ঠী এবং জম্মু কাশ্মীরের জঙ্গী গোষ্ঠীগুলোর কাছেও অস্ত্র সরবরাহ করতে থাকে। এমন কথাও শোনা যায়, পাকিস্তানী আইএসআই-এর মাধ্যমে রশিদ-ফারুক আফগানিস্তানে মাদক সিন্ডিকেটেও প্রবেশ করে। সেখান থেকেই ওরা কোটিকোটি ডলারের আফিম চোরাচালান করেছে ম্যাক্সিকো, কলম্বিয়াসহ বিভিন্ন দেশের ড্রাগ কার্টেলদের কাছে।

অনেকের ধারণা খুনী রশিদের কাছে বুঝি এখন আর আগের মতো অর্থবিত্ত নেই। এটা একেবারেই ভুল। এখনও খন্দকার আব্দুর রশিদের কাছে দুই বিলিয়ন ডলারেরও বেশী নগদ অর্থ এবং সম্পদ আছে। গাদ্দাফী কন্যা আয়েশা’র সাথে খুনী রশিদের ব্যবসা এখনও চলছে। বর্তমানে আয়েশা গাদ্দাফী আছেন আলজেরিয়ায়। আবার অনেকেই বলেন আয়েশা আলজেরিয়া ছেড়েছেন বেশ ক’বছর আগেই এবং এখন তিনি সম্ভবত দক্ষিন আমেরিকার কোনও দেশে বসবাস করছেন।

 বঙ্গবন্ধু খুনীদের সাথে বিএনপি নেতা তারেক রহমানের যোগাযোগ

বর্তমানে ব্রিটেনে পালিয়ে থাকা বিএনপি’র নেতা তারেক রহমানের সাথে খুনী ডালিম ও রশিদের যোগাযোগ স্থাপিত হয় ২০১০ সালে পাকিস্তানের বিতর্কিত ব্যবসায়ী এবং এআরওয়াই-গোল্ড এর মালিক আব্দুর রাজ্জাক ইয়াকুবের মাধ্যমে। পাকিস্তানের স্বর্ণ ধনকুবের নামে পরিচিত আব্দুর রাজ্জাক দুবাইতে এআরওয়াই-গোল্ড এবং পরবর্তীতে এআরওয়াই-মিডিয়া গ্রুপ প্রতিষ্ঠা করেন। তাঁর প্রতিষ্ঠান বাংলাদেশে ২০০৪ সালে ধরা পড়া ১০-ট্রাক অস্ত্র ঘটনার সাথে প্রত্যক্ষভাবে জড়িত ছিলো এবং এরাই ওই অস্ত্র কেনার অর্থের যোগান দেয়। মূলত এআরওয়াই-গ্রুপের আড়ালে আছে পাকিস্তানী আইএসআই। ইয়াকুবের সাথে যোগাযোগ স্থাপিত হওয়ার পর থেকেই তারেক রহমান নানাভাবে এআরওয়াই-এর কাছ থেকে নিয়মিতভাবে টাকা পাচ্ছেন। আর এই সংযোগের মাধ্যমেই তারেক রহমানের সাথে ঘনিষ্টতা হয় খুনী ডালিম ও রশিদের। এরা ২০১০ সাল থেকেই বাংলাদেশে নাশকতা চালিয়ে ক্ষমতাসীন আওয়ামীলীগ সরকারকে ক্ষমতাচ্যুত করার ষড়যন্ত্র করছে। এক্ষেত্রে তারেককে খুনী রশিদও বিভিন্ন সময়ে “ডোনেশন” দিয়ে আসছে।

জাতির জনকের জন্মশতবার্ষিকী এবং জাতীয় শোক দিবসে আমাদের ব্যর্থতা

গত বছর ১৭ মার্চ থেকে জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জন্মশতবার্ষিকী শুরু হয়েছে। আর চলতি বছর মার্চ মাসে উদযাপিত হলো আমাদের মহান স্বাধীনতার পঞ্চাশ বছর। কোভিড পরিস্থিতির কারণে বাংলাদেশে জাতির জনকের জন্মশতবার্ষিকী এবং স্বাধীনতার পঞ্চাশ বছর যেভাবে উদযাপিত হওয়ার কথা ছিলো সেটা সম্ভব হয়নি। কিন্তু বিদেশের পত্র-পত্রিকায় বিশেষ করে জাতির জনক বঙ্গবন্ধুর জন্মশতবার্ষিকী উপলক্ষে ব্যাপক প্রচার-প্রচারনার প্রয়োজন ছিলো। বিশ্ববাসীর কাছে তুলে ধরার প্রয়োজন ছিলো বঙ্গবন্ধু সম্পর্কে অনেক-অনেক তথ্য। এক্ষেত্রে আমরা বিদেশী পত্রপত্রিকার পাশাপাশি আন্তর্জাতিক টিভি চ্যানেলগুলোয় প্রচার করতে পারতাম প্রামান্যচিত্র। পারতাম বঙ্গবন্ধু কেন্দ্রীক কিছু ৯০-মিনিটের চলচ্চিত্র নির্মাণ করে সেগুলো নেটফ্লিক্স, আমাজন ইত্যাদির মতো আন্তর্জাতিক প্ল্যাটফর্ম এবং ভারতীয় জি-৫, হইচই ওটিটি প্ল্যাটফর্মে প্রচার করতে। সেটা আমরা করিনি। কেনো করিনি, এ প্রশ্ন আমি সংশ্লিষ্টদের কাছে বিনয়ের সাথেই রাখছি।

আজ বাংলাদেশ বিশ্বের বুকে গর্বের সাথে মাথা তুলে দাঁড়িয়েছে দ্রুত উন্নয়নশীল দেশ হিসেবে। এই বিশাল গর্বের অধিকারী আমরা হতে পেরেছি, একমাত্র মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার কঠোর পরিশ্রম আর একাগ্রতার কারণে। তিনি বঙ্গবন্ধুর সোনার বাংলা’র স্বপ্নকে ক্রমশ বাস্তবে রূপ দিচ্ছেন। ওনার বলিষ্ঠ নেতৃত্বে গোটা জাতি আজ অংশগ্রহন করেছে উন্নয়নের রাজনীতির সোনালী পথে। কিন্তু শেখ হাসিনার নেতৃত্বে বাংলাদেশের এই অকল্পনীয় উন্নয়নে জ্বলেপুড়ে মরছে, একাত্তরের পরাজিত অপশক্তি আর জঙ্গীবাদী বিএনপি-জামাত চক্র। ওরা ক্রমাগত ষড়যন্ত্র করেই যাচ্ছে। সাম্প্রতিক সময়ে আমাদের সবার স্বপ্নের পদ্মা সেতুতে বারবার ফেরী কিংবা নৌযান ধাক্কা লাগাচ্ছে। অনেকেই ভাবছেন এসব নেহায়েত দুর্ঘটনা। কিন্তু বাস্তবে এগুলো দুর্ঘটনা নয়। এসবই দেশবিরোধী অপশক্তির ষড়যন্ত্রের অংশ। একারণেই এই বিষয়টা গুরুত্বের সাথে তদন্তের বিনীত অনুরোধ রাখছি।

 বঙ্গবন্ধু আছেন, থাকবেন চিরকাল

খুনী চক্র ভেবেছিলো পনেরো অগাষ্ট জাতির জনককে নির্মমভাবে হত্যার মাধ্যমে বাঙ্গালী জাতির হৃদয় থেকে বঙ্গবন্ধুর নাম মুছে দেবে। কিন্তু এটাও কি সম্ভব? আমি বলবো সেদিন বত্রিশ নম্বরে বঙ্গবন্ধুর রক্ত ঝরেনি। ওই রক্ত ছিলো গোটা বাঙ্গালীর বুকের রক্ত। কারণ বঙ্গবন্ধুর সাথে এই জাতির রক্তের বন্ধন। আর ওই পবিত্র রক্তের শপথ নিয়েই আমি এবং আমরা আজ বলবো, বঙ্গবন্ধু আছেন, থাকবেন চিরকাল এই বাঙ্গালী জাতির হৃদয়ে। আমরা সবাই যার যার অবস্থান থেকে মাননীয় প্রধানমন্ত্রী ও বঙ্গবন্ধু কন্যা শেখ হাসিনার পাশে থাকবো। একত্তরের পরাজিত অপশক্তি এবং বিএনপি-জামাত চক্রের সব ষড়যন্ত্র আমরা সম্মিলিতভাবে প্রতিহত করবো।

সালাহ উদ্দিন শোয়েব চৌধুরী, আন্তর্জাতিক খ্যাতিসম্পন্ন পুরস্কারপ্রাপ্ত জঙ্গিবাদ বিরোধী সাংবাদিক, গবেষক, কলামিষ্ট এবং প্রভাবশালী ইংরেজী পত্রিকা ব্লিটজ-এর সম্পাদক 

Previous articleপরীমনির মুক্তির দাবীতে মানববন্ধন
Next articleজাতীয় শোক দিবসে বঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতিতে শ্রদ্ধা চলচ্চিত্র শিল্পী সমিতির

Leave a Reply