ইউটিউবে ‘আহ জীবন’ নাটকটি ব্যাপক দর্শকের সাড়া ফেলছে। নাটকটি নিয়ে ইতিবাচক মন্তব্য করেছেন হাজার হাজার দর্শক।প্রশংসা কুঁড়াচ্ছে আজাদ কালামের ‘আহ জীবন’ তাদের অনুভূতি লিখছেন কমেন্ট বক্সে যা চোখ এড়ায়নি। নাটকের গল্প আর চরিত্র ছিল বাস্তব জীবনের অনন্য একটি কাহিনী,যা প্রতিটি মানুষের হৃদয়ে গভীর দাগ কেটেছে। শুরুতেই চমকে উঠেছিলাম, শরীরের সমস্ত লোমগুলো জেগে উঠেছিল! বুঝতেই পারিনি যে, শেষ দৃশ্য দিয়ে শুরু হচ্ছে! মিছিলের শ্লোগান শুনে শিউরে উঠেছিলাম! মনে হচ্ছিল ৫২ কিংবা ৭১ এর কোন মিছিলে নির্বিঁচারে গুলি করা হচ্ছে! মুহুর্তের জন্য স্তব্ধ হয়ে গিয়েছিলাম!

পরিচালক আজাদ কালাম সাহেবের প্রতিটি নাটকেই বৈচিত্র্যময় আলাদা কিছু থাকে। তিনি সব সময় সমাজের বিভিন্ন দিকগুলো নাটকের মাধ্যমে তুলে ধরেন! “আহ জীবন” নাটকটিও তার ব্যাতিক্রম নয়! চোখের জল ধরে রাখতে পারিনি! শহরে পড়ালেখা করার সময় বস্তির জীবন দেখার সুযোগ হয়েছিল, ”আহ জীবন” নাটকের মাধ্যমে আবার দেখলাম! একজন পরিচালক হিসাবে আজাদ কালাম “আহ জীবন” নাটকের মাধ্যমে আবারও প্রমাণ করলেন, তিনি সব সময়ই সেরাদের সেরা! বাস্তবতার নিরিখে কাহিনীটি তুলে ধরার জন্য আজাদ কালাম সাহেবকে নিরন্তর ধন্যবাদ ও শুভেচ্ছা!

অভিনেতা মোশাররফ করিম সব সময়ই সেরা,এখানেও সেরাটা দিয়েছেন।সব চরিত্রের সাথে তিনি মানিয়ে নেন। এই নাটকেও পরিচালক আজাদ কালাম সাহেব মেশাররফ করিমকে সুনিপুণ ভাবে ব্যবহার করেছেন! গ্রামীণ চরিত্রের সাথে মোশাররফ করিম শতভাগ মিশে গিয়েছেন! পরিচালক সাহেব তাকে সুদক্ষ হাতে ফুটিয়ে তুলেছেন! মোশাররফ করিমও শতভাগ দিয়ে কাজটা উপভোগ করেছেন! এজন্যই মোশাররফ করিম সবার এত প্রিয়! ময়মনসিংহের আঞ্চলিক ভাষার সাথে তিনি পুরোটা মিশে গিয়েছেন! আন্তরিক ধন্যবাদ মোশাররফ করিমকে!

সামিয়া হক নতুন হলেও প্রশংসার দাবীদার! শতভাগ মেধা দিয়ে চরিত্রের সাথে মিশে গিয়েছেন! “আহা জীবন” নাটকের চরিত্রে তাকে দেখে আমি মুগ্ধ! মোশাররফ করিমের মত একজন শক্তিমান অভিনেতার সাথে পাল্লা দিয়ে চরিত্রটা ফুটিয়ে তুলেছেন,কতটুক অভিনয় গুন থাকলে তা সম্ভব, ভাবা যায়! প্রতিটি দৃশ্যের সাথে তিনি এমন ভাবে মিশে গিয়েছেন,বুঝায় যায়নি তিনি নবাগতা! “আহ জীবন” নাটকের নায়িকার চরিত্রের সাথে মিশে যেতে পারে এমন চেহারার একজন নতুন নায়িকা আবিষ্কার শুধুমাত্র পরিচালক আজাদ কালাম সাহেবের পক্ষেই সম্ভব! যেমন অভিনয় দরকার ছিল,আজাদ কালাম সাহেব সামিয়া হককে সেই ভাবেই সুনিপুণ দক্ষতার সাথে কাজে লাগিয়েছেন! সামিয়া হকের আগামী দিনের জন্য শুভ প্রত্যাশা!

ইকবাল হোসেনের চরিত্র আর অভিনয় ছিল চোখে পড়ার মতো! দারুন ভাবে পরিচালক তাকে ব্যবহার করছেন! ছোট হলেও চরিত্রটা মনে রাখার মত! ধন্যবাদ ইকবাল হোসেন! বস্তির ভিতর মিরার অভিনয় দারুন লেগেছে! পরিচালক সাহেব অল্প একটু চরিত্রে তাকে দারুন ভাবে মেলে ধরেছেন! ধন্যবাদ মিরা! শিশুশিল্পী তানজিদ দারুন অভিনয় করেছেন, প্রশংসার যোগ্য দাবীদার! তানজিদের জন্য নিরন্তর ভালোবাসা!

আদিত্য সন্ন্যাসীর আবহ সঙ্গীত দারুন ভাবে মুগ্ধ করেছে! নাটকের গল্প আর চরিত্রের সাথে মিলেমিশে একাকার! ধন্যবাদ আদিত্য সন্ন্যাসী! “আহ জীবন” আমার দেখা সেরা একটি নাটক।

সাধারণ জীবনের নিদারুণ কাহিনী অসাধারন ভাবে ফুটে উঠেছে! নিম্নশ্রেণীর মানুষের গল্প নিয়ে আহা জীবন নাটকটি নিয়ে যতই প্রশংসা করি শেষ হবেনা! অভাবী মানুষের জীবনের একটি কঠিন সংগ্রাম নাটকের মাধ্যমে ফুটে উঠেছে! টাকায় যে জীবনের সব কিছি নয়, টাকা ছাড়াও যে মানুষের মনে সুখ থাকে তা নাটকটিতে বুঝানো হয়ছে! সংসারের মায়া বড় কঠিন মায়া! এই মায়া ছেড়ে কেও দুরে যেতে চায়না! নাটকের একটি বিষয় সব চেয়ে ভালো লেগেছে। তা হলো, স্বামী-স্ত্রী’র ভালোবাসা! সাধারণত আমাদের সমাজে স্বামীরা বাহির থেকে আসলে স্ত্রী আগে টাকা, পয়সার হিসাব নেয়, কিন্তু এই নাটকে গ্রামের সেই হারিয়ে যাওয়া দৃশ্য, স্বামী বাড়ী আসছে আগে স্বামীকে সালাম করে, তাকে সেবা করার বিষয়টি ফুটে উঠেছে!

নাটকের সমাপ্তি হৃদয়ে কান্নার ঢেউ তুলে দিয়েছে! শেষ পরিণতি আমাদের সবার জন্য একটি মেসেজ রেখে গেছে। শহর নয়,টাকা নয়,গ্রাম আর গ্রামের সহজ,সরল জীবন,অকৃত্রিম ভালোবাসায় সুখের চাবি! সর্বোপরি পরিচালক আজাক কালাম সাহেব সহ কলাকুশলীদের সবাইকে নিরন্তর ধন্যবাদ, এমন একটি নাটক উপহার দেওয়ায়! অভিনয়ে- মোশাররফ করিম, সামিয়া হক, ইকবাল হোসেন, মিরা ও শিশুশিল্পী তানজিদ সহ আরও অনেকেই।

Previous articleনিজের চ্যানেলেই মনোযোগ চমক তারা’র
Next articleদর্শক নন্দিত হলো শামীম জামান ও সামিনার ‘তুমিও একদিন বাবা হবে’

Leave a Reply