কিছুদিন আগেই মঞ্চ, টিভি ও সিনেমার অভিনেত্রী চমক তারা’ তার নিজের নামেই একটি ইউটিউব চ্যানেলের যাত্রা শুরু করেন। এখন অভিনয়ের পাশাপাশি তার পূর্ণ মনোযোগ নিজের ‘চমক তারা’ ইউটিউব চ্যানেলটিকে নিয়ে। যে কারণে তার নিজের চ্যানেলের কন্টেন্ট বাড়ানো নিয়ে ব্যস্ত তিনি। তবে হঠাৎ করে কঠোর লকডাউন দিয়ে দেবার কারণে তিনি টানা বেশ ক’দিন শুটিং করতে পারছেন না। তৈরী করতে পারছেন না নতুন নতুন কনটেন্ট।

‘চমক তারা’ চ্যানেলে শুরুতেই যে গানটি দর্শকের মধ্যে বেশি সাড়া ফেলে দিয়েছিলো তা হলো চমক তারা অভিনীত ‘আসোনা আমার বুকে আসোনা’ গানটির মিউজিক ভিডিও। এই মিউজিক ভিডিওতে সুইমিং পুলের পাশে চমক তারা নিজেকে বেশ সাহসীভাবে উপস্থাপন করেছেন। যে কারণে মিউজিক ভিডিওটির ভিউও বাড়ছে দিনদিন। চমক জানান কোনরকম বুস্ট ছাড়া এরইমধ্যে গেলো মে মাসে প্রকাশিত ‘আসোনা আমার বুকে আসোনা’ গানটি ৭৬ হাজারের বেশি ভিউয়ার্স উপভোগ করেছেন। এই গানটি লিখেছিলেন ও সুর করেছিলেন ফিরোজ প্লাবন। গেয়েছেন নাজনীন নাজু। মিউজিক ভিডিও নির্মাণ করেছেন প্রিন্স খান।

এদিকে গেলো ঈদের দিন তার চ্যানেলে প্রকাশিত হয়েছে ‘উড়ু-উড়ু’ শিরোনামের আরেকটি গান। এই মিউজিক ভিডিওটি বেশ নান্দনিক এবং শৈল্পিক। যথারীতি এটি নির্মাণ করেছেন প্রিন্স খান। গানটি লিখেছেন, সুর সঙ্গীত করেছেন কাজী জামাল। গেয়েছেন তপতী। এরইমধ্যে গানটিতে নিজের উপস্থিতির জন্য বেশ সাড়া পাচ্ছেন চমক তারা।

চমক বলেন,‘ সত্যি বলতে কী নিজের চমক তারা চ্যানেলটি নিয়েই আমার যতো ব্যস্ততা এখন। আসোনা আমার বুকে আসোনা এবং উড়– উড়– এই মনটা গান দু’টির জন্য বেশ ভালো সাড়া পাচ্ছি। আমি ভাবতেও পারিনি এতো সাড়া পাবো। যদিও নিজেকে একটু সাহসী করেই উপস্থাপন করতে হচ্ছে। কিন্তু তারপরও অনেকেরই অনুপ্রেরণা পাচ্ছি। আমার চ্যানেলটি ভালোভাবে প্রতিষ্ঠিত করে আমি এই চ্যানেল নিয়েই আগামী দিনে আরো এগিয়ে যেতে চাই। চ্যানেলটিকে ঘিরে আমার অনেক স্বপ্ন। নানান ধরনের অনুষ্ঠান নির্মিত হবে এই চ্যানেলে থেকে। সেই পরিকল্পনা নিয়েই আমি ধীরে ধীরে এগিয়ে চলেছি। দেখা যাক শেষ পর্যন্ত কী হয়।’

এদিকে লকডাউন শেষ হলে ঢাকার বাইরে বেশ কয়েকটি নতুন গানের মিউজিক ভিডিওর শুটিং নিয়ে যাবার কথা রয়েছে চমকের। বর্তমানে চলছে নতুন নতুন গান নির্বাচনের কাজ। চলছে নিজের ভাবনাতেই ড্রেস ডিজাইন ও তৈরীর কাজ এবং এর পাশাপাশি গানে তারসঙ্গে মডেল কে হবেন তার সিদ্ধান্ত নেবার কাজ।

Leave a Reply