এফডিসিতে বাংলাদেশ চলচ্চিত্র উন্নয়ন করপোরেশন (বিএফডিসি) আতুরঘর হিসেবে পরিচিত। অবশেষে সব ধরনের পশু কোরবানী করা থেকে নির্দেশনা দিয়ে নোটিশ টানিয়েছে। এমন খবরে চলচ্চিত্র পরিচালক, সিনিয়র শিল্পী এবং টেকনিশিয়ানরা সন্তোষ প্রকাশ করেছেন। তাদের বক্তব্য ‘কোরবানীর নামে অসুস্থ প্রতিযোগিতার হাত থেকে চলচ্চিত্র সংশ্লিষ্টগণ রক্ষা পেয়েছে, বাইরে এ নিয়ে নেতিবাচক কথা শুনতে হয়। সময়োচিত ভাবনার জন্য এফডিসি কর্তপক্ষকে ধন্যবাদ।’ গতকাল রবিবার সকালে এফডিসি কর্তৃপক্ষ এই নোটিশ ক্যান্টিনের সামনে নারিকেল গাছে সাটিয়ে রাখে।

নোটিশে লেখা রয়েছে- ‘এফডিসি অভ্যন্তরে কোরবানীর পশু প্রবেশ এবং কোরবানীর পশু জবাই করা কঠোরভাবে নিষেধ করা হলো।’ এরফলে চলতি বছরে এফডিসি অভ্যন্তরে পরিচালক, শিল্পী ও প্রযোজক সমিতির সমন্বয়ে ১৪টি গরু কোরবানীর পরিকল্পনা আপাতত স্থগিত হলো। জানা গেছে, অসহায় শিল্পীদের নাম করে এফডিসিতে শিল্পী সমিতি এবং বিতর্কিত নায়িকা পরীমনির ব্যক্তিগত উদ্যোগে গরু কোরবানী দেওয়ার রেওয়াজ চালু হলে শুরুতে বাহবা পায়। পরবর্তীতে এই উদ্যোগে সামিল হন শাপলা মিডিয়ার সেলিম খান। চলতি বছরে ব্যবসায়ির সঙ্গে বিতর্কিত কর্মকাণ্ড এবং আয়ের সঙ্গে ব্যায়ের অসংগতির কারণে সমালোচিত হন পরীমনি।

পরিমনি তার বিতর্কিত কালো অধ্যায় ধামাচামা দিতে সারাধারণ শিল্পীদের হাতে কোরবানির গরু জবাই দিচ্ছে বলে অনেকে মনে করে। সমালোচনার মধ্যে তিনি ছয় গরু কোরবানী দেওয়ার ঘোষণা দেন; এ নিয়ে নেটিজনদের মাঝে বিরূপ প্রতিক্রিয়া দেখা দিলে এফডিসি কর্তৃপক্ষ সব ধরনের পশু প্রবেশ এবং কোরবানী নিষিদ্ধ করে। এ নিয়ে বিস্তারিত জানতে এফডিসির পরিচালকের (অ্যাডমিন) সঙ্গে যোগাযোগের চেষ্টা করা হলেও সাড়া পাওয়া যায়নি।

Previous articleচঞ্চল চৌধুরীর সঙ্গে মায়মুনা
Next articleআজ গাজী টিভিতে দিপু হাজরা’র ঈদের বিশেষ নাটক “মেনু কার্ড”

Leave a Reply