শাহেদ আলী, বাংলাদেশের নাট্যাঙ্গনের একজন জনপ্রিয় অভিনেতা। বহুনাটকে সিনেমায় ভিন্ন ঘরানার চরিত্রগুলোতে অভিনয় করে তিনি দর্শকের কাছে প্রিয় হয়ে উঠেছেন। ওয়েব সিরিজ নির্মাণের কিংবা নাটক টেলিফিল্ম নির্মাণে নির্মাতারা চ্যালেঞ্জিং চরিত্রগুলোতে শাহেদ আলী’র উপর অনায়াসে আস্থা রাখছেন। যে কারণে করোনাকালীন এই সময়েরও বহু নাটক/টেলিফিল্ম এবং ওয়েব সিরিজ নির্মাণে তারা শাহেদ আলী’কে নিয়ে অনেক কাজ করেছেন।

শাহেদ আলী জানান আগামী ঈদের জন্য তিনি এরইমধ্যে শেষ করেছেন তানিম রহমান অংশুর ফিকশন ‘সাহসিকা’, মাবরুর রশীদ বান্নাহ’র নাটক ‘মায়ের ডাকে’, সাইদুর ইমনের ‘টোয়েন্টি ফোর আওয়ার্স’, জাহিদ প্রীতমের ‘ভয় পেওনা’, রাফাত মজুমদার রিংকুর ‘দ্য ডিরেক্টর’, রেজানুর রহমানের ‘করোনাকালের ভালোবাসা’, সঞ্জয় সমদ্দারের ওয়েব সিরিজ ‘অমানুষ’, অনন্য মামুনের সিনেমা ‘অমানুষ’, আশফাক নিপুণের ওয়েব সিরিজ ‘জিরো টলারেন্স, রুবেল হাসানের একটি নাটক ও ভিকি জায়েদ’র নাটক ‘পূণর্জন্ম’ নাটকের কাজ। প্রত্যেকটিতে শাহেদ আলীকে ভিন্ন ভিন্ন চরিত্রে দেখা যাবে। শাহেদ আলী এবারের ঈদের প্রত্যেকটি কাজ নিয়ে ভীষণ আশাবাদী।

করোনাকালীন এই সময়ে কাজ করা এবং নির্মাতাদের তাকে ঘিরে আস্থা তৈরী হওয়া প্রসঙ্গে শাহেদ আলী বলেন, ‘এটা আসলে আল্লাহ’র অশেষ রহমত এবং সবার দোয়ায় সম্ভব হয়েছে। আমি আমার আজকের অবস্থান নিয়ে সবসময়ই শুকরিয়া আদায় করি। আমার সমসাময়িক অনেকেই অভিনয় করছেন। কিন্তু তারপরও ভিন্ন ধরনের চ্যালেঞ্জিং চরিত্রগুলোর জন্য নির্মাতারা আমার উপর অনায়াসে নির্ভর করছেন, আস্থা রাখছেন-এটা আমি সেরকম প্রত্যাশিত ফলাফল দিতে পারছি বলেই আস্থা রাখছেন। আমি নির্মতাদের এই আস্থার প্রতি শ্রদ্ধা রেখেই বলছি-আগামী দিনগুলোতে অভিনয়ে নিজেক আরো ভালোভাবে উপস্থাপন করতে চাই। আরো ভালো ভালো কাজ উপহার দিতে চাই। আর অবশ্যই দর্শকের কাছে কৃতজ্ঞ যে তারা আমার অভিনীত কাজগুলো নিয়মিত দেখছেন এবং তাদের ভালোলাগা মন্দলাগা নানান মাধ্যমে আমার সঙ্গে শেয়ার করছেন।’ উল্লেখ্য, অভিনেত্রী দীপা খন্দকার শাহেদ আলী’র সহধর্মিনী। দীপা খন্দকারও অভিনয়ে নিয়মিত এখন।

Previous articleঈদে এটিএন বাংলায় ডন এর একক সংগীতানুষ্ঠান
Next articleঈদে আঞ্জুমান আরা বেগম’র গান ঐশী’র কন্ঠে

Leave a Reply