বাংলাদেশের প্রাচীন ব্যান্ডদল গুলোর মধ্যে অন্যতম একটি ‘অবস্কিউর’। ১৯৮৫ সালে টিপু’র হাত ধরে যে ব্যান্ডদলটির যাত্রা শুরু হয়েছিলো এবং যাত্রার শুরুতেই সারা দেশে আলোড়ন সৃষ্টি করেছিলো। যাত্রা শুরুর পর থেকে ‘অবস্কিউর’র শুধু সফলতার গল্প, শ্রোতা দর্শকের ভালোবাসায় সিক্ত হবার গল্প। একজন ভোকালিস্ট হিসেবে টিপু চাইলেই নিজের একক ক্যারিয়ার গড়তে পারতেন। কারণ এক সময় তিনি একক অ্যালবাম ‘একাকী একজন’(১৯৯০), ‘ভবের পাগল’ (১৯৯২), ‘রঙধনু হতে চাই’(২০০৭) এবং সর্বশেষ রবীন্দ্র সঙ্গীতের অ্যালবাম ‘সকলই ফুরালো’ (২০০৮) প্রকাশ করেছেন। কিন্তু ‘অবস্কিউর’কে ছেড়ে একাকী ক্যারিয়ার গড়ার চিন্তাও ছিলোনা তার। এ প্রসঙ্গে টিপু বলেন, ‘আমার স্বপ্নই ছিলো ব্যা- দলটিকে প্রতিষ্ঠিত করার। যে কারণে যখন নিজের একক অ্যালবামগুলো প্রকাশ করছিলাম, তখন নিজেরই মনের ভেতর এমন বোধোধয় হলো যে এভাবে চলাটা আসলে আমার ব্যা- দলের জন্য ক্ষতিকর। সরে দাঁড়ালাম নিজেকে এককভাবে প্রতিষ্ঠার ভাবনা থেকে।’

১৯৮৫ সালে সারগাম থেকে প্রকাশিত অবসকিউর’র প্রথম অ্যালবাম ছিলো ‘অবস্কিউর ভলিউম ওয়ান’। এই অ্যালবামের ‘মাঝ রাতে চাঁদ যদি আলো না বিলায়’, ‘ছাইড়া গেলাম মাটির পৃথিবী’ ,‘কলিকালের ’সহ আরো বেশ কিছু গান শ্রোতা দর্শকের মধ্যে ব্যাপক সাড়া ফেলে। প্রথম অ্যালবাম দিয়েই ‘অবস্কিউর’ ব্যান্ডদল হিসেবে সঙ্গীতাঙ্গনেও সাড়া ফেলে দেয়। অন্যান্য ব্যান্ডদলগুলোও তাদের নিয়ে ভাবতে শুরু করে। এরপর নানান সময়ে ‘অবস্কিউর ভলিউম টু’,‘স্বপ্নচারিনী’, ‘ফেরাতে তোমায়’, ‘অপেক্ষায় থেকো’, ‘ইচ্ছের ডাকাডাকি’,‘ফেরা’, ‘অবসকিউর ও বাংলাদেশ’,‘ স্টপ জনোসাইড’, ‘টিটোর স্বাধীনতা’সহ আরো বেশকিছু অ্যালবাম ও গান প্রকাশিত হয়।

নিজের গান শেখা এবং সঙ্গীত জীবনে প্রাপ্তি প্রসঙ্গে টিপু বলেন,‘ এটা ভীষণ সত্যি কথা যে গানে আমার প্রাতিষ্ঠানিক কোন শিক্ষা নেই। ছোটবেলা থেকেই আমি গান শুনতাম শ্রদ্ধেয় মান্না দে, সন্ধ্যা মুখার্জি, লতা মুঙ্গেশকর, আশা ভোসলের গান। বাংলাদেশের ব্যান্ডদল সোলস’র তপন দা’র গান শুনে আমার মাথাই খারাপ হয়ে যায়। তপন দাদাই মূলত আমার গানে আসার মূল অনুপ্রেরণা। তারপর গানের ভুবনে পথচলা, এখনো চলছি। এই দেশের শ্রোতা দর্শক আমাকে ভীষণ ভালোবাসে, আমি জানিনা তাদের এই ভালোবাসা পাবার যোগ্যতা আমার আছে কী না। তাদের ভালোবাসার প্রতিদান দেবার মতো কাজ করেছি কী না তাও জানিনা আমি। ছোট্ট এই জীবনে মানুষের যে ভালোবাসা পেয়েছি, এটাই আসলে বিরাট প্রাপ্তি।’

টিপু বর্তমানে গানের পাশাপাশি বন্ধু আলিমের সঙ্গে গার্মেন্টস ব্যবসার সাথে সম্পৃক্ত। ১৯৬৭ সালের ১৬ জানুয়ারি জন্ম নেয়া টিপুর বাবা হিম্মত আলী (মারা গেছেন ১৯৯১ সালে) , মা আনোয়ারা আক্তার (মারা গেছেন ১৯৮২ সালে)। তার এক মেয়ে আনায়া ও এক ছেলে অয়ন। তৌকীর আহমেদ’র ‘দারুচিনি দ্বীপ’এ তিনি এসআই টুটুলের সুর সঙ্গীতে জীবনে একবারই প্লে-ব্যাক করেছেন।

Previous article‘কমলাপুরের বিজলী’ তিনি
Next articleদোকানপাট-শপিংমল খোলা রাত ৯টা পর্যন্ত

Leave a Reply