ঢাকাই চলচ্চিত্রের সোনালী দিনের চিত্রনায়ক ওয়াসিম আর নেই। আজ শনিবার (১৭ এপ্রিল) রাত ১২টা ৩০ মিনিটে শেষ নিঃশ্বাস ত্যাগ করেন (ইন্না লিল্লাহি ওয়া ইন্না ইলাইহি রাজিউন)।

পরিবার থেকে জানানো হয়েছিল তার উন্নত চিকিৎসার প্রয়োজন। কিন্তু করোনার প্রকোপ বেড়ে যাওয়ার কারণে আন্তর্জাতিক ফ্লাইট বন্ধ থাকায় উন্নত চিকিৎসার জন‌্য তাকে বিদেশে নিয়ে যেতে পারছিলেন না।

স্বর্ণ দিনের চিত্রনায়ক ওয়াসিম। বাংলা সিনেমার উজ্জল নক্ষত্র বাণিজ্যিক অ্যাকশন, বিশেষ করে ফোক-ফ্যান্টাসি সিনেমার এক নম্বর আসনটি দখল করে নিয়েছিলেন। অনেক বছর ধরে প্রেক্ষাগৃহে বা সিনেমার কোনো অনুষ্ঠানে উপস্থিতি ছিলো না। গুরুতর অসুস্থ হয়ে শয্যাশায়ী হয়ে বাসায় অবস্থান করছিলেন।

বরেণ্য এই অভিনেতার মৃত্যুর খবরটি নিশ্চিত করেন চলচ্চিত্র শিল্পী সমিতির সাধারণ সম্পাদক জায়েদ খান। বাদ জোহর গুলশান আজাদ মসজিদে প্রথম নামাযে জানাযা অনুষ্ঠিত হবে।এর পর বনানী কবরস্থানে দ্বিতীয় জানাযা শেষে বনানী কবরস্থানে তাকে দাফন করা হবে।

জায়েদ খান আরো বলেন, ‘ওয়াসিম ভাই কিছুদিন ধরে অনেক অসুস্থ ছিলেন। হাঁটতে পারছিলেন না। বিছানাতে শুয়েই কাটইছে সময়। ওয়াসিম ভাই’ ১৯৭২ সালে ঢাকাই সিনেমায় ওয়াসিমের অভিষেক হয় সহকারী পরিচালক হিসেবে ‘ছন্দ হারিয়ে গেলো’ চলচ্চিত্রে।

নায়ক হিসেবে তার যাত্রা শুরু হয় মহসিন পরিচালিত ‘রাতের পর দিন’ সিনেমার মাধ্যমে। দিন যতই যেতে থাকে ওয়াসিমের জনপ্রিয়তা ততই আকাশচুম্বী হয়। বাণিজ্যিক ঘরানার সিনেমার অপরিহার্য নায়ক হয়ে ওঠেন তিনি। শাবানা, ববিতা, কবরী, অলিভিয়া, সুচরিতা, অঞ্জু ঘোষ, অঞ্জনা, নূতন-সে সময়ের এসব অভিনেত্রীর সঙ্গে জুটি বেঁধে অভিনয় করেন তিনি। তার অভিনীত উল্লেখযোগ্য ছবির মধ্যে রয়েছে ‘ছন্দ হারিয়ে গেলো’, ‘রাতের পর দিন’, ‘দোস্ত দুশমন’, ‘দি রেইন’, ‘রাজদুলারী’, ‘বাহাদুর, ‘মানসী’, ‘সওদাগর’, ‘নরম গরম’, ‘বেদ্বীন’, ‘ঈমান’, ‘লাল মেম সাহেব’ প্রভৃতি। ‘বেদ্বীন’, ‘ঈমান’, ‘মানসী’-এ সিনেমাগুলোতে তার অভিনয় ব্যাপক প্রশংসিত হয়।

Previous articleকবরীকে শেষ শ্রদ্ধা জানালেন চলচ্চিত্র শিল্পী সমিতি
Next articleওপারে ভালো থাকবেন ওয়াসিম আঙ্কেল : শাকিব খান

Leave a Reply