করোনায় আক্রান্ত হয়ে রাজধানীর শেখ রাসেল গ্যাস্ট্রোলিভার হাসপাতালে লাইফ সাপোর্টে থাকা অবস্থায় শুক্রবার রাত ১২টা ২০ মিনিটে শেষ নিঃশ্বাস ত্যাগ করেন অভিনেত্রী সারাহ বেগম কবরী (ইন্না লিল্লাহি ওয়া ইন্না ইলাইহি রাজিউন)। তার মৃত্যুর খবরটি নিশ্চিত করেন বাংলাদেশ চলচ্চিত্র পরিচালক সমিতির যুগ্ন সচিব কবিরুল ইসলাম রানা।

এর আগে হঠাৎ করে খুসখুসে কাশি ও জ্বরে আক্রান্ত হলে করোনার উপসর্গ ভেবে চিন্তায় পড়েন সারাহ বেগম কবরী। পারিবারিক চিকিৎসকের পরামর্শে নমুনা পরীক্ষা করালে রিপোর্ট পজিটিভ আসে। গত ৫ এপ্রিল রাতে তাকে ঢাকার কুর্মিটোলা জেনারেল হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। গত ৭ এপ্রিল রাতে তার শারীরিক অবস্থার অবনতি হয়। চিকিৎসকরা দ্রুত তাকে আইসিইউ স্থানান্তরের কথা জানান। তখন এই কবরী শেখ রাসেল গ্যাস্ট্রোলিভার ইনস্টিটিউট ও হাসপাতালে স্থানান্তর করা হয় বলে এক ভিডিও বার্তায় জানান কবরীর ছেলে শাকের চিশতী। গত ১৫ এপ্রিল বিকেলে তাকে লাইফ সাপোর্টে নেয়া হয়েছিলো।

১৯৬৪ সালে সুভাষ দত্তের ‘সুতরাং’ দিয়ে চলচ্চিত্রে অভিষেক হয় কবরীর। ১৯৬৫ সালে অভিনয় করেন ‘জলছবি’ ও ‘বাহানা’য়, ১৯৬৮ সালে ‘সাত ভাই চম্পা’, ‘আবির্ভাব’, ‘বাঁশরি’, ‘যে আগুনে পুড়ি’। ১৯৭০ সালে ‘দীপ নেভে নাই’, ‘দর্পচূর্ণ, ‘ক খ গ ঘ ঙ’, ‘বিনিময়’ ছবিগুলো। কবরী অভিনয়ের পাশাপাশি কাহিনি, চিত্রনাট্য ও সংলাপ রচনা সহ  সিনেমা পরিচালনা করেছেন। বর্তমানে আওয়ামী লীগের রাজনীতির সঙ্গে যুক্ত রয়েছেন বরেণ্য এই অভিনেত্রী। তার মৃত্যুর খবরে চলচ্চিত্রাঙ্গনে শোকের ছায়া নেমে এসেছে।

Previous articleনাটকে অভিনয় করলেন সামিনা চৌধুরী
Next articleবাদ জোহর কবরীর জানাজা দাফন বনানী কবরস্থানে

Leave a Reply