তিনি একাধারে সাংবাদিক, পরিচালক, উপস্থাপিকা। বলছি নানামুখী প্রতিভার অধিকারী নানজীবা খানের কথা। এত অল্প বয়সে যে জীবনকে ইচ্ছামত রঙে রঙে সাজানো যায়, তা নানজীবা খানকে না দেখলে বোঝা যাবে না। নানজীবার জীবন একদিন ক্ষুদ্র থেকেই শুরু হয়েছিলো। তারপর শুধু এগিয়ে যাওয়ার গল্প। সম্প্রতি বিভিন্ন ক্ষেত্রের বিশিষ্টজনদের নিয়ে নির্মাণ করেছেন জনসচেতনতামূলক এক্সপেরিমেন্টাল ডকুফিল্ম `দ্য আনওয়ান্টেড টুইন’। এর গল্প, চিত্রনাট্য ও পরিচালনা করেছেন নানজীবা। পরিচয়হীন শিশু ও বয়ঃসন্ধিকালে নারী উন্নয়নকে কেন্দ্র করে এটি নির্মিত হয়েছে। ডকুফিল্মটির বিভিন্ন বিষয় নিয়ে জমজমাট এর সাথে কথা বলেন তিনি।

‘দি আনওয়ান্টেড টুইন’ কি?

‘দি আনওয়ান্টেড টুইন’ একটি এক্সপেরিমেন্টাল সিএসআর (কর্পোরেট সোসিয়াল রেসপন্সিবিলিটি) প্রজেক্ট। যেখানে ১৭ টি এসডিজি (সাসটেইনেবল ডেভেলপমেন্ট গোল) কে কেন্দ্র করে ২০০ টি সামাজিক সমস্যা ভিজুয়াল ডকুমেন্টারি ফিল্ম ও ফটোশুটের মাধ্যমে তুলে ধরা হয়েছে। প্রজেক্টির নাম ‘দি আনওয়ান্টেড টুইন’-এ সিএসআর অ্যাওয়ারনেস এক্সপেরিমেন্টাল কোলাবোরেশন প্রজেক্ট ফর এসডিজি। এ ক্রিয়েশন বাই নানজীবা খান। অনেকের ধারণা এটা যমজ মানুষজনদের নিয়ে কোনো কাজ যেটা একদম ভুল। আক্ষরিক অর্থে আনওয়ান্টেড মানে অবাঞ্ছিত। দি আনওয়ান্টেড টুইন মানে মানুষের লুকায়িত ‘দ্বৈত সত্তা’। তাই আমরা চেহারা দুই ভাগ করে কাজ করছি।

এটিকে এক্সপেরিমেন্টাল বলা হচ্ছে কেন?

আমরা চেহারা ভাগ করে কাজ করছি। এক সাইডে পজেটিভ আরেক সাইডে নেগেটিভ ক্যারেক্টার। ধরে নেন আমরা পানি দূষণ যেভাবে তুলে ধরেছি, একপাশে প্রানবন্ত লুক হাতে পরিষ্কার পানি আরেক পাশে চোখে ডার্ক সার্কেল, মুখে ব্রণের দাগ অসুস্থ লুক আর হাতে ময়লা পানি। সাথে মিলিয়ে গ্রাফিক্সের ব্যাকগ্রাউন্ড। কোটেশন হতে পারে দূষিত পানি স্বাস্থ্যের জন্য ক্ষতিকর। এই ভাবে ফেইস আর্ট, প্রপ্স ও গ্রাফিক্সের ব্যাকগ্রাউন্ড এই ৩টি জিনিসের কম্বিনেশনে আমরা ২০০টি ইস্যু তুলে ধরেছি।

কারা কারা কাজ করেছে?

চিত্রনায়িকা ববি হক, ব্যারিস্টার তুরিন আফরোজ, জ ই মামুন, মারিয়া নুর, শিমুল মোস্তফা, শম্পা রেজা, মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর ডেপুটি প্রেস সেক্রেটারি শাখাওয়াত মুন, জিতু আহসান, সানারাই দেবী সানু, অন্তু করিম, তৌহিদ আফ্রিদি, দেবাশীষ বিশ্বাস, তানজীব সারোয়ার, আরজে নীরব, ডি যে সনিকা, পিন্টু ঘোষ, মাবরুর রশিদ বান্নাহ, মীর সাব্বির, শ্বাগতা, বন্যা মির্জা, তানহা তাসনিয়া, অর্ষা, তাসকিন রহমান, তুষ্টি, মডেল ইমি, রুমা, বুলবুল টুম্পা, আসাদুজ্জামান নুর, আফসানা মিমি, মৌসুমি হামিদ, মিস ওয়ার্ল্ড বাংলাদেশ তোরসা, ফেরদৌস বাপ্পী, শারমিন আঁখি, দোয়েল ম্যাস, কণ্ঠশিল্পী মিলন মাহমুদ, পূজা, লুইপা, বেলাল খান, ইলিয়াস হোসাইন, জুয়েল, স্বপ্লীল সজীব, সাবরিনা সাবা, ঝিলিক, প্রতীক হাসান, সুকন্যা তিথি, নওশাবা, নাদিয়া, চাঁদনী, রাহা তানহা খান, মৌসুমি মৌ, শ্রাবণ্য তৌহিদা, শান্তা জাহান, মুনমুন আহমেদ, মৌটুসি বিশ্বাস, মুস্তাফিজ গুলজার, ফটোগ্রাফার প্রীত রেজা, শাওন, সারিকা সাবাহ, মনির খান শিমুল, মিশু সাব্বির, জুনায়েদ আহমেদ পলক, দিপু মনি, এফ এস নাইম, সানজিদা প্রীতি, আলিসা প্রধান, লাক্স স্টার মীম মানতাসা, চৈতি, সামিয়া অথৈ,অ্যানি খান, লাভগুরু তামিম, কায়েস চৌধুরী, এভ্রিল, সাকিব বইন রশিদ, সামদানী ডন, ইরেস যাকের, স্পর্শিয়া, মাজনুন মিজান, সালমান মুক্তাদির, হৃদি হক, দিলারা জামান, শতাব্দী ওয়াদুদ, ববি হাজ্জাজ, হাসান মাসুদ, ফ্যাশন ডিজাইনার এমদাদ হক ও লিপি খন্দকার, সাঞ্জু জন, হোমায়রা হিমু, ছন্দা, শিরিন আলম, আরজে ত্যাজ, অহনা, ফারজানা চুমকি, সূচনা আজাদ, নাজনিন মুন্নী, সাইদ বাবু, শহীদুল আলম সাচ্চু, জাকিয়া বারী মম সহ কর্পোরেট, পলিটিক্যাল, মিডিয়া বিভিন্ন পেশার ২০০ জন আইকনরা মডেল হিসেবে কাজ করেছেন।

এত বড়মাপের মানুষদের কিভাবে এক করলেন?

পলিটিক্যাল, শিক্ষা, মেডিক্যালসহ অন্যান্য পেশার মানুষদের সামাজিক কাজগুলার জন্য এস্কপেরিমেন্টাল ছবি তুলার সুযোগ হয়ে উঠে না কারণ তাদের প্রফেশনটাই ভিন্ন। আবার ফ্যাশন ইন্ডাস্ট্রির মডেলদের সামাজিক এই ধরণের কাজে খুব একটা দেখা যায় না। আবার নাটকের আর্টিষ্টদের ফ্যাশন রিলেটেড কাজ কম করা হয় পেশাগত কারণেই সবার এই ধরণের কাজ করা হয় না। তাই ভাবলাম এমন কিছু করবো যাতে সবাইকে একসাথে করে মানুষেরকে সচেতন করা যায়। আমার সাড়ে ১৪ বছরের ক্ষুদ্র ক্যারিয়ারে যাদের সাথে কাজ করা হয়েছে কিন্তু হয়নি চিনি অথবা চিনি না আমার থিমের সাথে চেহারা মিলে গেলেই নক করেছি।

ছবিগুলো কবে কোথায় রিলিজ হবে?

অনেশ্বা প্রকাশন আমাদের পাবলিকেশন পার্টনার তারা ২০০ টি ছবির সঙ্কলোন আকারে একটি ম্যাগাজিন বের করবে। এই প্রজেক্টির প্রচারণায় বিশেষ ভূমিকা পালন করছে ইউ জি বি (ইউনাইটেড গ্লোরি অব বাংলাদেশ)। আমাদের ফার্স্ট লুক রিলিজ দেওয়া হয়ে গেছে। মেইন ছবি গুলা চলতি মাস থেকে ইউ জি ব’র অফিসিয়াল ফেইসবুক পেইজ থেকে বুস্ট করা হবে। এছাড়া দি আনওয়ান্টেড টুইনসহ জড়িত কোম্পানি, সংস্থা ও ফ্যাশন ব্রান্ডেগুলার ফেইসবুক পেইজে দেখা যাবে। দর্শকের রুচিবোধ পরিবর্তন করার দায়িত্ব নির্মাতার। নির্মাতাদের মেরুদণ্ড শক্ত রাখতে হবে। আপনার সীমাবদ্ধতা দেখার জন্য দর্শক বসে নাই তাদের জীবনেও অনেক সীমাবদ্ধতা আছে। তাই মার্কেট অ্যানালাইসিস করে কাজ করা প্রয়োজন।

Previous articleনাটক ‘গার্লফ্রেন্ড শুধু গিফট চায়’
Next article৪৫ মিলিয়ন মাইল ফলকে অমিতাভ বচ্চন

Leave a Reply