সিনেমা হল বন্ধ ঠেকাতে বিদেশী ছবি আমদানি প্রসঙ্গে ঐকমত হয়েছেন বাংলাদেশ চলচ্চিত্র প্রযোজক পরিবেশক, প্রদর্শক এবং পরিচালক সমিতি। একই সঙ্গে সরকারের কাছে ছবির বাজার বৃদ্ধির লক্ষ্যে যৌথ প্রযোজনা নীতিমালা সহজীকরণেরও দাবিও জানানো হয়। বুধবার রাজধানীর একটি রেস্টুরেন্টে চলচ্চিত্র প্রদর্শক সমিতির আহ্বানে তিন সমিতির নেতারা হল বাঁচাতে সংকট উত্তরণে ঐকমতের ভিত্তিতে বিদেশী (ভারতীয়) ছবি আমদানির ব্যাপারে ঐক্যমত পোষণ করেন। তবে ছবিগুলো কিভাবে, কোন সময় আমদানি হবে এ ব্যাপারগুলো নিয়ে তিন সমিতির একটা যৌথনীতিমালা জরুরি। সেটার ভিত্তিতে সবকিছু হোক। সবকিছুর আগে দেশীয় নির্মাতা এবং প্রযোজকদের স্বার্থ দেখতে হবে বলে সভায় জোর দেন পরিচালক সমিতির সভাপতি মুশফিকুর রহমান গুলজার।

প্রদর্শক সমিতির উপদেষ্টা সুদীপ্ত কুমার দাসের সঞ্চালনায় তিনি আরো বলেন, এ মুহুর্তে হল বাঁচানো বা বন্ধ ঠেকানো বড় চ্যালেঞ্জ। এ বিষয়টি নিয়ে কোনো দ্বিমত নেই। যেহেতু দেশীয় কনটেন্ট পর্যাপ্ত নাই তাই শর্তসাপেক্ষে বিদেশী (ভারতীয়) ছবি আমদানিতে আমরা সমর্থন দিচ্ছি। মনে রাখতে হবে সবার আগে আমাদের প্রযোজক-নির্মাতার ভবিষ্যত এগুলো ঠিক রেখেই সবকিছু করতে হবে। তবে দেশীয় চলচ্চিত্রের বাজার সৃষ্টিতেও ঐক্যবদ্ধ থাকতে হবে নইলে মধ্যসত্বভোগীরা সব নষ্ট করে দেবে এ ব্যাপরেও সতর্ক থাকতে হবে।

প্রযোজক সমিতির সভাপতি খোরশেদ আলম খসরু বলেন, এ কথা স্বীকার করে নিতে হবে এ মুহুর্তে হল বাঁচলেই বাঁচবে চলচ্চিত্র। তাই আমরা তিন সমিতি ঐক্যবদ্ধ হয়েছি। সংকট উত্তরণে আপাতত বিদেশী ছবি আসতে পারে। তবে একই সঙ্গে আমাদের উৎপাদনেও মনোযোগী হতে হবে। প্রযোজকদেরও উৎসাহিত করার জন্য বানিজ্যিক ছবিতে সরকারি লগ্নি বাড়ানোর প্রতি এই নেতা জোর দেন।

নির্মাতা সোহানুর রহমান সোহান সরকারের কাছে এককালীন দুইশ কোটি টাকা সিনেমা নির্মাণে প্রণোদনা দেওয়ার আহ্বান জানান। অপরদিকে প্রদর্শক সমিতির সাবেক সাধারণ সম্পাদক মির্জা আব্দুল খালেক বলেন, ছবি আমদানি হোক সেটা সমস্যা নেই সমস্যা এগুলো চলবে কোথায়? এগুলো সিনেপ্লেক্স ছাড়া চলার সুযোগ নেই। তাই সবার প্রতি আহ্বান থাকবে জরুরিভিত্তিকে হল প্রযুক্তিগত উন্নয়ন আনতে। এছাড়া সব লেজেগোবড়ে হয়ে যাবে। একই সঙ্গে সরকারের কাছে জোর দাবি থাকবে যৌথ প্রযোজনা নীতিমালা সহজীকরণ করতে তাহলে প্রযোজকরা বিনিয়োগ আগ্রহী হবেন। এ মুহুর্তে ছবি আমাদনির পাশাপাশি যৌথ প্রযোজনা দ্রুত সহজীকরণ দরকার।

তিনি আরো বলেন, সিনেমায় আমাদের ইন্ডাস্ট্রিয়াল ট্রেডভেল্যু জিরো। দীর্ঘদিন ধরেই এ নিয়ে আলোচনা হচ্ছে কিন্তু শিল্পের সুবিধা পাচ্ছি না। এ জায়গাটি নিয়েও ভাবতে হবে।

প্রযোজক নেতা কামাল কিবরিয়া লিপু বলেন, আমদানি হোক তবে সেটা নির্দিষ্ট একটা সময়ের জন্য। একই সঙ্গে সরকারের কাছে দাবি থাকবে বাণিজ্যিক ছবিকে সব রকম সুবিধা দিয়ে ইন্ডাস্ট্রি চাঙা করার। আমদানি নির্ভর ইন্ডাস্ট্রি খুব বেশি রান করবে না এই ভাবনাটাও মাথায় রাখতে হবে। এজন্য নিজেদের তৈরি করতে হবে। আশা করছি সরকার এ ব্যাপারে ভাবছে।

ঐক্যবদ্ধ বৈঠক প্রসঙ্গে প্রদর্শক সমিতির উপদেষ্টা বলেন, তিন সমিতি ঐক্যবদ্ধ হয়েছি সিনেমার সংকট উত্তরণে। আমাদের মধ্যকার আলোচনাগুলো নতুন বছরের প্রথম সপ্তাহের শেষদিকে তথ্যমন্ত্রী মহোদয়ের কাছে দেবো। ঐদিন গণমাধ্যমকর্মীরাও থাকবেন। মন্ত্রী মহোদয় দাবিগুলো নিয়ে প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে আলোচনা করবেন। আশা করছি শিগগিরই সবার জন্য একটা সুখবর দিতে পারবো।

প্রদর্শক সমিতির সভাপতি কাজী শোয়েব রশিদের সভাপতিত্বে অন্যান্যের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন, প্রযোজক সমিতির সাধারণ সম্পাদক শামসুল আলম, কামাল কিবরিয়া লিপু, অপূর্ব রায়, মো. হিমেল, পরিচালক সমিতির সাধারণ সম্পাদক বদিউল আলম খোকন, আব্দুস সামাদ খোকন, সোহানুর রহমান সোহান, কবিরুল রানা, প্রদর্শক সমিতির সিনিয়র সহসভাপতি মিয়া আলাউদ্দিন, কোষাধক্ষ্য আজগর হোসেন এবং প্রদর্শক সমিতির সাধারণ সম্পাদক আওলাদ হোসেন উজ্জল।

প্রসঙ্গত, সিনেমা হল বাঁচাতে প্রদর্শক সমিতি ১০টি ভারতীয় ছবি আমদানির দাবি জানিয়ে আসছিলো। পরবর্তীতে তথ্যমন্ত্রী ড. হাছান মাহমুদ বিষয়টি স্পর্ষকাতর এবং অন্যান্য সংগঠনের সংশ্লিষ্টতা রয়েছে উল্লেখ করে প্রযোজক এবং পরিচালক সমিতির ঐক্যমত প্রয়োজনীতার কথা বলেন এবং পরামর্শ দেন তিন সমিতি মিলে ঐক্যবদ্ধ হতে। এরই ধারাবাহিকতায় প্রদর্শক সমিতি এই বৈঠক আহ্বান করে।

Previous articleরিজভী-পুস্পিতার ‘তুমি কেনো বোঝোনা’
Next articleমামলা করেছেন স্বনামধন্য গায়িকা, আসিফ বললেন, ‘ভালোবাসা অবিরাম’

Leave a Reply