সময়টা ভালো যাচ্ছে না। পরিবেশ পরিস্থিতি কিছুই আমাদের অনুকূলে নেই। চলতি বছর শোবিজ ইন্ডাস্ট্রির ঘুরে দাঁড়ানোর বছর হিসেবে বুকে এক বুক স্বপ্ন নিয়ে শুরু হলেও মার্চে আসা অচেনা করোনা ভাইরাস পাল্টে দেয় জনজীবন থেকে বিনোদন দুনিয়া। নানা ঘটনা আর আলোচনায় বিদায় নিচ্ছে দু-হাজার বিশ। প্রতিদিনই ভিন্ন ভিন্ন ঘটনায় উত্তাল ছিল শোবিজ দুনিয়া। বর্ষপুঞ্জি থেকে বিদায় নিচ্ছে আরও একটি বছর। বিদায়ের আগমনী পথে আসবে আরেকটি বছর। পুরানো বছরে সকল ব্যর্থতা, সাফল্য-জ্বরা-জীর্ণ ধুয়ে মুছে যাক প্রত্যাশার একুশে।

কমেছে ছবির সংখ্যা: ঢাকাই সিনেমার মন্দা দশা এটা নতুন খবর নয়। বিভিন্ন কারণে দু-হাজার বিশ সালে আশাবাদী ছিল ঢাকাই সিনেমার ইন্ডাস্ট্রি। কিন্তু বছর শেষে ঝুঁলিতে যুক্ত হয় শুধুই হতাশা। করোনার ডামাডালে পুরো ইন্ডাস্ট্রি থমকে যায়। করোনায় বিধ্বস শোবিজ অঙ্গন। তবু ঘুরে দাঁড়ানোর প্রত্যাশা সবার। শোবিজের জন্য চলতি বছর ভালো ছিল না। দেশে সিনেমা মুক্তি কমে আসছে। গত বছরের চেয়ে কমেছে পরিচালক সমিতিতে নতুন ছবি নিবন্ধন। করোনার কারণে দীর্ঘ সাত মাস বন্ধ ছিল প্রেক্ষাগৃহ। জিমিয়ে জিমিয়ে মুক্তি পেয়েছে ২৬টি সিনেমা। মহামারির আগে মুক্তি পায় জয় নগরের জমিদার, গণ্ডি, বীর, হৃদয়জুড়ে, শাহেনশাহ, হলুদবনি, চল যাই, আমার মা ছবিগুলো। মার্চে প্রেক্ষাগৃহ বন্ধ হয়ে পরে অক্টোবরে খোলার পর পর্যায়ক্রমে মুক্তি পায় সাহসী হিরো আলম, ঊনপঞ্চাশ বাতাস, বিশ্বসুন্দরী, রূপসা নদীর বাঁকে, একজন মহান নেতা, গোর, আমি তোমার রাজা তুমি আমার রানি ছবিগুলো। এ বছর হাতেগোনা কয়েকটি ছবি মুক্তি পেলেও মানহীন ছবির সংখ্যাই বেশি। এ বছর তালিকায় নেই ব্যবসা সফল ছবি। চলতি বছর বেশ কয়েকটি বড় বাজেটের ছবি মুক্তি দেওয়ার কথা থাকলে লোকশানের অজুহাতে ছবিগুলো মুক্তির তালিকা থেকে পিছিয়ে যায়। কবে নাগাত ছবিগুলো মুক্তি পাবে তা নিয়ে রয়েছে শঙ্কা। ২০১৯ সালে মুক্তি পেয়েছে ৪৬টি দেশী সিনেমা, ২টি যৌথ প্রযোজনার সিনেমা আর ১০টি আমদানীকৃত সিনেমা। কিন্তু একটি সিনেমাও ব্যবসায়িক ভাবে সফল হয়নি। হাতে গোনা কয়েকটি সিনেমা পুঁজি ফেরত পেলেও, বাকি সিনেমাগুলো মুখ থুবড়ে পরে।

প্রথমবারের মতো চিত্রতারকা শাকিব খানের ছবি মুক্তি পায় অনলাইনে। ‘নবাব এলএলবি’ ছবিটি অর্ধেক মুক্তি দিয়ে সমালোচিত হয়। এতেই শেষ নয় ছবির একটি দৃশ্য বাংলাদেশ পুলিশকে বিকৃতি করে উপস্থাপন করা হয়েছে। যার কারণে ছবিটির পরিচালক অনন্য মামুন ও অভিনেতা শাহীন মৃধা গ্রেপ্তার হয়। বর্তমানে দুজনেই কারাগারে রয়েছেন। গ্রেপ্তারের তালিকায় অভিনেত্রী অর্চিতা স্পর্শিয়ার নাম থাকলেও পরবর্তীতে তার নামটি বাদ যায়। পরিচালক অনন্য মামুন আগে থেকেই বির্তকিত। এর আগে নারী পাচারের অভিযোগে গ্রেপ্তার হয়। বছর শেষে ফের বির্তক জন্ম দিলেন তিনি। যা পুরো শোবিজ ইন্ডাস্ট্রির ভাবমূর্তি নষ্ট করেছে বলে অনেকেই মনে করেন। শুধু তাই নয় চলচ্চিত্র সংশ্লিষ্টদের দাবি অনলাইনে সিনেমা মু্ক্তির জন্য সেন্সর সময়ের দাবি। এটি অচিরেই বাস্তবায়ন করা উচিত বলে মনে করছেন তারা। বছর শেষে বহুল প্রতীক্ষিত ‘বিশ্বসুন্দরী’ ছবিটি মুক্তি পেলেও সিনেমা হলে দর্শক টানতে ব্যর্থ হয়। চলতি বছর বন্ধ হয়েছে দেশের বেশ কিছু সিনেমা হল। ভেঙে ফেলা হয়েছে বঙ্গবন্ধুর তৈরি বিএফডিসির ৩,৪ নাম্বার ফ্লোর। লকডাউন কাটিয়ে আলোচনায় ছিল এফডিসির সংগঠনদের কাদা ছোড়াছুড়ি। ডুবে যাওয়া এ সিনেমা ইন্ডাস্ট্রিকে টেনে তুলে ধরতে দরকার ভালো মানের সিনেমা। জমজমাটের এক সাক্ষাতকারে প্রবীন অভিনেতা প্রবীর মিত্র বলেছিলেন এফডিসি ভূতের বাড়ি। এখানে কাজ নেই। আর কাজের চেয়ে অকাজের লোকই বেশি। যার প্রমাণ পাওয়া যাচ্ছে প্রতিনিয়ত। চলতি বছরের এফডিসির বিভিন্ন সংগঠের নানা কোন্দলই বলে দেয় এফিডিসিতে কাজের লোকের বড়ই অভাব।

নাটকের তালিকা সীমিত: ভালো-মন্দের মিশলে কাজের সংখ্যা কম হলেও বেড়েছে অনলাইনের জন্য কাজ। সুখ দুঃখ হাসি আনন্দ বেদনা কিংবা সামাজিক সচেতনতা। প্রতি বছর এমন নানা নাটক নির্মাণ করেন নবীন প্রবীন নির্মাতারা। তবে চলতি বছর পহেলা বৈশাখ ও রোজার ঈদ করোনা ভাইরাসের কারণে টিভি চ্যানেলগুলো ছিল নাটক খরায়। লকডাউনে কাজহীন হয়ে ঘরবন্দি থাকেন নাটক সংশ্লিষ্টরা। এ বছর নাটকের তালিকা সীমিত। করোনাকালে প্রযোজনা প্রতিষ্ঠা ক্রাউন এন্টারটেইনমেন্ট নাটকের জন্য আশীর্বাদ হয়ে আসে। দেশের ক্রান্তিলগ্নে অনেক প্রযোজক মুখ ফিরিয়ে নিলেও ক্রাউন নিয়মিত নাটক নির্মাণ করছেন। চলতি বছর কম সংখ্যক নাটক নির্মিত হলেও বেশ কিছু নাটক প্রংশিত হয়েছে। তার মধ্যে রয়েছে ইতি. মা, বোধ, ব্যাঞ্জনবর্ণ, আমার অপরাধ কী?, বাবারা সব পারে, ভিকটিম, মা আই মিস ইউ, মানুষের গল্প, শহর ছেড়ে পরাণপুর, দেখা হবে, একাই একশো, যে শহরে টাকা ওড়ে, আড়াই মন স্বপ্ন, ইরিনা, মুখ আসমান, তৃতীয়জন, ১৪ আগষ্ট, জন্মদাগ ইত্যাদি।

করোনার কারণে শুটিং বন্ধ রাখার নির্দেশ দেয় টেলিভিশনের সব সংগঠন। সরকার ও সংগঠনের নির্দেশ অগ্রাহ্য করে গত ১০ মে শুটিংয়ে অংশ নেন জনপ্রিয় অভিনেতা জাহিদ হাসান। এতে সমালোচনার মুখে পড়েন তিনি। একই কারণে অভিযোগ উঠেছিল ছোটপর্দার আরেক জনপ্রিয় অভিনেতা শহীদুজ্জামান সেলিমের বিরুদ্ধেও। গত মে মাসের মাঝামাঝি একটি বিজ্ঞাপনে অংশ নিয়ে তিনি সমালোচিত হন। অভিনয় শিল্পী সংগঠনের সভাপতি হয়ে তিনি কীভাবে আইন অমান্য করলেন এই ছিল প্রশ্ন! প্রেম-বিয়েকে কেন্দ্র করে অসংখ্যবার সমালোচনার মুখে পড়েছেন মডেল, অভিনেত্রী রাফিয়াথ রশীদ মিথিলা। চলতি বছর এ অভিনেত্রীর একটি স্থিরচিত্রকে কেন্দ্র করে নেটিজেনদের সমালোচনার মুখে পড়েন তিনি। চলতি বছর ওয়েব সিরিজের নামে অশ্লীল কনটেন্ট আলোচিত একটি বিষয়। এ নিয়ে সবচেয়ে বেশি বিতর্কের মুখে পড়ে বিঞ্জ। এতে অভিনয় করে সমালোচিত হয় মৌটুসী বিশ্বাস, নাজিয়া হক অর্ষা, হিল্লোল, অহনা, হিমি, শ্যামল মাওলা, তাসনুভা তিশা প্রমুখ। এতে বেশ রগরগে দৃশ্য এবং অশ্রাব্য সংলাপ বলতে দেখা গেছে শিল্পীদের, যা দর্শকের জন্য নতুন অভিজ্ঞতা। তবে বছর শেষে প্রশংসিত হয় চঞ্চল চৌধুরী অভিনীত ‘তাকদীর’। অন্যদিকে মঞ্চনাটক পরিবেশন ছিল ঢাকার শিল্পকলা এবং নাটক পাড়া পর্যন্ত সীমিত আকারে বিস্তৃত। সঙ্গীতাঙ্গন ছিল করোনার থাবায় পুরোপুরি কাহিল। সারা বছর কোথায় কনসার্ট অনুষ্ঠিত হয়নি। তবে চঞ্চল চৌধুরী এবং শাওনে জল ভর জল ভর রাধে গানটির পরিবেশন ছিল উল্লেখ করার মতো।

সুখের ঘরে দু:খের আগুন: দীর্ঘ নয় বছরের সুখের সংসারের ইতি টানলেন ছোটপর্দার তারকা অভিনেতা অপূর্ব। নাজিয়া হাসান অদিতির সঙ্গে বিচ্ছেদ হয়েছে তার। চলতি বছরের ২৬ জানুয়ারি বিচ্ছেদ ঘটে জনপ্রিয় চিত্রনায়িকা শাবনূরের। নিজেদের মধ্যে বনিবনা না হওয়ায় স্বামী অনিককে ডির্ভোস দেন তিনি। লকডাউন উপেক্ষা করে গত ১০ মার্চ হুট করে ৩ টাকার দেনমহরে নাট্যনির্মাতা কামরুজ্জামান রনিকে বিয়ে করেন আলোচিত-সমালোচিত চিত্রনায়িকা পরীমনি। কিন্তু তিন টাকার বিয়ে তিন মাসও যায়নি। বিয়ের কয়েকদিন পরই আলাদা থাকা শুরু হয় তাদের। অবশেষে প্রকাশ্যে আসে তাদের বিচ্ছেদের খবরও। যদিও এ নিয়ে সরাসরি কিছু বলেননি তারা। এর আগে বিনোদন সাংবাদিক তামিম হাসানের সঙ্গে ২০১৯ সালের ১৪ এপ্রিল বাগদান সম্পন্ন হয়েছিল পরীর। কথা ছিল যেকোনো ১৪ এপ্রিল বিয়ে করবেন তারা। তাদের আর বিয়ে করা হয়নি। বিয়ের আগেই পথ আলাদা হয়ে যায় তাদের। এক সময়ের জনপ্রিয় চিত্রনায়িকা মুনমুন। গত বছর এ নায়িকার বিচ্ছেদ হয়। বিচ্ছেদ আগে হলেও প্রকাশ্যে আসে চলতি বছরের সেপ্টেম্বরে। ২০০৯ সালে মোশাররফ হোসেন নামে এক অভিনেতাকে বিয়ে করেছিলেন মুনমুন। সালমান ও যশ নামে দুই সন্তান রয়েছে তাদের। বিয়ের এক বছর নয় মাস পর ভেঙে গেল ছোটপর্দার অভিনেত্রী শবনম ফারিয়ার সংসার।

হারিয়েছি যাদের: দু-হাজার বিশ সাল মানব ইতিহাসে এক ভয়ানক বছরের নাম হয়ে থাকবে। চলতি বছর হারিয়েছি বেশ কয়েক জন অভিনয়শিল্পীকে তাদের মধ্যে উল্লেখযোগ্য- বাংলাদেশের মুক্তিযুদ্ধকালে স্বাধীন বাংলা বেতার কেন্দ্রের অন্যতম সংগঠক ও সুপরিচিত সাংস্কৃতিক ব্যক্তিত্ব কামাল লোহানী। তিনি গত ২০ জুন মারা যান। ৯ আগস্ট মৃত্যুবরণ করেন বরেণ্য সংগীতব্যক্তিত্ব আলাউদ্দীন আলী। গত ২৪ মার্চ মারা গেছেন ‘বেদের মেয়ে জোছনা’ খ্যাত প্রযোজক, পরিচালক মতিউর রহমান পানু। ক্যান্সারের সঙ্গে চার বছরের লড়াই শেষে চির বিদায় নিলেন অভিনেতা, নির্দেশক আলী যাকের। গত ৬ জুলাই বিদায় নেন সংগীতের নক্ষত এন্ডু কিশোর। কিডনি ও চোখের সমস্যা নিয়ে না ফেরার দেশে চলে যান অভিনেত্রী মিনু মমতাজ। গত ১৪ সেপ্টেম্বর করোনায় আক্রান্ত হয়ে মারা গেছেন নন্দিত অভিনেতা সাদেক বাচ্চু। বছরের শেষ দিকে এসে অর্থাৎ বুধবার (২৩ ডিসেম্বর) হৃদরোগে আক্রান্ত হয়ে মারা যান বাংলাদেশের পথনাটকের অন্যতম পুরোধা নাট্যজন মান্নান হিরা। এছাড়া হারানোর তালিকায় আরো রয়েছেন- সুরকার সেলিম আশরাফ, অভিনয়শিল্পী ফেরদৌসী আহমেদ লীনা, মঞ্চাভিনেত্রী-নির্দেশক ইশরাত নিশাত, অভিনেতা সেলিম আহমেদ, সংগীতশিল্পী জবা চৌধুরী, চলচ্চিত্র প্রযোজক কেএম জাহাঙ্গীর খান, চলচ্চিত্র পরিচালক মহিউদ্দিন ফারুক প্রমুখ। নতুন বছর নতুন প্রত্যেয়ে শুরু করবেন শোবিজ সংশ্লিষ্টরা। সমস্ত বিষাদের খবর দিয়ে হলেও বিদায় নিচ্ছে এই কালো বছরটি। এটাই সব পথকে বড় সান্তনা। আশা করি মানব সভ্যতার সামনে এমন বছর আর ফিরে আসবে না।

Previous articleশীতার্তদের পাশে চিত্রনায়িকা অপু বিশ্বাস
Next articleবাবা হারালেন জায়েদ খান

Leave a Reply