করোনা ভাইরাসে অনেকে অনেক কিছু হারালেও সংগীত শিল্পী কুমার বিশ্বজিৎ এর ঝুঁলিতে আছে ছেলেকে কাছে পাওয়ার আনন্দ। শুধু তাই নয় নিজেরে পুরানো গানগুলোকে নতুন সংগীত আয়োজন করার দীর্ঘ দিনের পরিকল্পনা ছিল তারও বাস্তবায়ন শুরু করেছেন এ সময়। করোনার শুরু থেকেই ঘরবন্দি তিনি। করোনার মহামারীতে কেমন কাটছে এ সংগীত শিল্পীর সময়। জানতে চাইলে জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার জয়ী এ শিল্পী বলেন, অনলাইনে যুক্ত হয়ে বাংলাদেশ পুলিশ, আর্মি ও আইনজীবি তাঁদের জন্য কাজ করেছি। বাসায় বসেই নিজেকে কাজে ব্যস্ত রেখেছি। অনেকের জন্য কম্পোজিশন ও সুর করেছি।

করোনায় জীবন-যাপনে কি পরিবর্তন এসেছে? করোনায় অনেকগুলো প্রাপ্তি আছে। ছেলের সাথে দীর্ঘ দিন এক সাথে থাকতে পারছি যেটা করোনা না হলে হয়তো থাকা হতো না। এটি আমার জন্য বড় প্রাপ্তি। পুরানো ৫০টির মতো গান নতুন করে সংগীত আয়োজন করার জন্য নির্বাচন করেছি। আমার অনেক ভালোলাগা ও জনপ্রিয় গান নতুন করে দর্শকের সামনে নিয়ে আসতে পারলে গানগুলো প্রাণ ফিরে পাবে। প্রত্যাশাও পূরণ হবে। একটি গানের ভিউ কি গানের জনপ্রিয়তা নির্ধারণ করে? দেখা এক জিনিস ভালো লাগা আরেক জিনিস। ভিউয়ার্স আর পছন্দকারী দুই জিনিস কখনো এক হতে পারে না। ভিউ দিয়ে জনপ্রিয়তা যাচাই হয় না।

Previous articleঅসচ্ছলদের সহায়তায় হাকিম দম্পতি
Next articleপ্রতীক হাসানের ‘তুমি আমার বাবু আমি তোমার বেবী’

Leave a Reply