অভিনেতা আজিজুল হাকিম ও তার স্ত্রী নাট্যকার জিনাত হাকিম আজ (১৪ ডিসেম্বর) রাজবাড়ী জেলার গোয়ালন্দ থানার উজানচর গ্রামে কিছু খাদ্যসামগ্রী দিয়ে গ্রামবাসীদের সহায়তা করার উদ্যোগ নিয়েছেন। গত রোজার ঈদে এ উদ্যোগ নেয়া হলেও বন্যার জন্য তা স্থগিত হয়ে যায়।

জিনাত হাকিম এ প্রসঙ্গে বলেন, ‘বন্যার কারণে আমরা করোনার প্রকোপে ক্ষতিগ্রস্থ গ্রামবাসীদের সহায়তা করতে পারিনি। বন্যায় মানুষের দুর্ভোগ বেড়ে যায়। পরবর্তীতে আমি আমার দাদাবাড়ীর স্কুল সাহাজউদ্দিন মন্ডল ইনিস্টিউটের প্রধান শিক্ষিকা আরিফা বেগম (পারভীন) আপার সাথে পরামর্শ করে খাদ্যসামগ্রী ও শীতবস্ত্র বিতরণের সিদ্ধান্ত নেই। তারিখ নির্ধারণ করি। এরপর দূর্ভাগ্যজনকভাবে পারভীন আপা এবং দুলাভাই করোনায় আক্রান্ত হন। তারা সুস্থ হবার পর আমরা সপরিবারে করোনায় আক্রান্ত হই। বর্তমানে করোনার প্রকোপ এবং শীতের তীব্রতাও বাড়ছে। শারীরিক অসুস্থতার জন্য ডাক্তারের পরামর্শে বাসাতেই আছি। তাই আমরা সিদ্ধান্ত নিয়েছি আত্মীয়-স্বজন ও স্থানীয় প্রশাসনের গণ্যমান্য ব্যাক্তিবর্গ ও সাংবাদিক ভাইদের সহযোগিতায় গ্রামবাসীদের নিকট আমাদের উপহার পৌঁছে দেব। যার মধ্যে রয়েছে পাঁচশো কম্বল ও পাঁচশো খাদ্যসামগ্রীর প্যাকেট।

জানা গেছে, খাবারের প্যাকেটে ১০ কেজি চাল, ডাল, তেল, সাবান, লবণ, সেমাই, দুধ, চিনি, মাস্ক ইত্যাদি থাকছে। জিনাত হাকিমের খালাতো বোন তানজিলা আফরোজ সুজানা শীতবস্ত্র সংগ্রহে সহযোগিতা করেছেন। জিনাত হাকিম মনে করেন করোনার এ সময়ে একে অপরের পাশে থাকা প্রয়োজন। তিনি বলেন, নিম্নবিত্ত ও মধ্যবিত্তের যারা কর্মহীন হয়ে পড়েছেন তাদের পাশে সবার এগিয়ে আসা উচিত। যে যার সামর্থ অনুযায়ী সাহায্যের হাত বাড়িয়ে দিন। আমাদের এই উদ্যোগে অন্যরাও উৎসাহিত হবে বলে আমাদের প্রত্যাশা।

উল্লেখ্য, গত ১০ নভেম্বর আজিজুল হাকিমের করোনা সনাক্ত হয়। পরিস্থিতির অবনতি হলে ১২ নভেম্বর তাকে বাংলাদেশ স্পেশালাইজড হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। পরবর্তীতে ২৫ নভেম্বর তিনি সুস্থ হয়ে বাসায় ফিরে আসেন। জিনাত হাকিম তার পরিবারের সুস্থতার জন্য সকলের দোয়া চেয়েছেন।

Previous articleআমজাদ হোসেনের ২য় মৃত্যুবার্ষিকী আজ
Next articleভিউ দিয়ে জনপ্রিয়তা যাচাই হয় না: কুমার বিশ্বজিৎ

Leave a Reply