রঞ্জু সরকার: সিংহাসন সবার জন্য থাকে না। একজনের জন্যই সিংহাসন নির্দিষ্ট। তিনি দীর্ঘ পাঁচ দশক ধরে সমৃদ্ধ করে যাচ্ছেন বাংলা গানের ভাণ্ডার। অসংখ্য ছবিতে করেছেন প্লেব্যাক। যার সুরেলা কন্ঠ মুগ্ধ কোটি কোটি শ্রোতা দর্শক। অসংখ্য জনপ্রিয় সিনেমার গানে কন্ঠ দিয়েছেন এই কিংবদন্তি শিল্পী। ১৩বার পেয়েছেন জাতীয় চলচ্চিত্র পুরষ্কার। গেয়েছেন প্রায় ১৩ হাজার গান। ১৯৮৪ সালে একুশে পদক, ১৯৯৬ সালে স্বাধীনতা পুরস্কারসহ তাঁর ঝুলিতে অসংখ্য সম্মাননা। তিনি কোকিলকণ্ঠী বাংলা গানের পাখি কোটি মানুষের হৃদয়ে সাড়া জাগানো এক জীবন্ত কিংবদন্তি সামিনা ইয়াসমিন। দীর্ঘ কর্ম বিরতি কাটিয়ে সম্প্রতি তিনি অভিনেত্রী কবরীর সরকারি অনুদানের ‘এই তুমি সেই তুমি’ নামের সিনেমায় কন্ঠ দিয়েছেন। প্রথমবারের মতো গুণী এই শিল্পী কন্ঠ দিলেন মিউজিক্যাল ফিল্মে। শেখ নজরুলের কথায় ‘সুখের অসুখ’ শিরোনামের এই মিউজিক্যাল ফিল্মে তার সহশিল্পী মোমিন বিশ্বাস। গত রবিবার সন্ধ্যায় জমজমাটের সঙ্গে কথা হয় এই গুণী শিল্পীর। এক সময় প্রায় প্রতিদিনই সিনেমার গানের ব্যস্ততা থাকলেও এখন তাঁর কন্ঠে অভিমানের সুর। বর্তমান চলচ্চিত্রের গান টানে না এই শিল্পীকেও। জানালেন, এজন্য হয়তো বর্তমান চলচ্চিত্রের এমন সংকট। মরমী শিল্পী আব্দুল আলীম থেকে শুরু করে তিন প্রজন্মের সাথে কন্ঠ মিলানো সাবিনা ইয়াসমিন অবসরে নিজের গান না শুনলেও শোনেন দেশ বিদেশের শিল্পীদের গান।

তার কাছে প্রশ্ন রাখি একটা সময় সুবর্ণ সময় পেয়েছেন। প্রতিদিনিই ছিল নতুন ছবির গান নিয়ে ব্যস্ততা। তবে গান আগের চেয়ে কমে গেছে- করোনার জন্য কমেনি। আগে থেকেই গান কমে গেছে। বর্তমানে যে ধরনের ছবি হচ্ছে সে ধরনের ছবিতে মনে হয় আমার গান প্রয়োজন হচ্ছে না যার কার কেউ ডাকে না। বর্তমান সময় সুরের ধন্যতা, কথার ধন্যতা। কি বলবেন? সব গান যে খারাপ হচ্ছে তা কিন্তু নয় তার মাঝেও অনেক ভালো গান তৈরি হচ্ছে। আগে সামাজিক গল্প নির্ভর ছবি নির্মাণ হতো। গল্পর সাথে এতো সুন্দর ভাবে গান তৈরি হতো যা বলে শেষ করা যাবে না। বর্তমানে ছবি সুন্দর হচ্ছে কিনা জানি না। ভালো ছবি তৈরি হলেও এখন আর গান কেন জানি মনে দাগ কাটতে পারছে না। একবার শুনলে সবাই ভুলে যায়। বিভিন্ন অনুষ্ঠানে গেলে সবাই পঞ্চশ বছরের আগের গান শুনতে চায়। এখনকার গান কেউই শুনতে চায় না। এখনকার গান কেউর মনে দাগ কাটাতে পারছে না। আগে একটি গানের জন্য অনেক পরিশ্রম করতাম। একটি গান করতে চার-পাঁচ দিন সময় লেগে যেতো। এভাবেই গানের সৃষ্টি হতো। এখন একদিনই গান তৈরি হয়। গুণী এই শিল্পী এখনকার সময়ের সাথে তাল মেলাতে চান না সেই চেষ্টাও করবেন না।

অনেকের সাথেই গান গেয়েছেন কার সাথে গান করে উপভোগ করেছেন? এটা বলা মুশকিল। একেকজন একেক ধাঁচে গান করতো এটা ভাগ করে বলা যাবে না। সবার সাথে গান করেছি কেউ বাকি নেই। তিন প্রজন্মর সাথে গান করেছেন ভাবতেই ভালো লাগে সাবিনার। যোগ করে বলেন, রোমাঞ্চ অনুভব করি। এফডিসিতে ১০০ টেকও দিয়েছি এগুলো মনে পড়লে খুবই ভালো লাগে। কোন গানটি গাইতে বেগ পেতে হয়েছিল? ‘জন্ম আমার ধন্য হয়েছি’ গাইতে অনেক বেগ পেতে হয়েছিল। এরকম অনেক গানই রয়েছে। তবে চেষ্টা করেছি কাটিয়ে যেতে। আরও বেশ কিছু গান গাইতে বেগ পেতে হয়েছিল।। সাবিনা ইয়াসমিনের কোটি ভক্ত। অবসরে আপনি কার গান শুনেন? বেশ কয়েকজনের গান শুনি। ইউটিউবে গান শোনা হয়। অনেক শিল্পীই আছে।

নিজের গান শুনেন না তিনি। নিজের গান শুনলে মনে হয় আরেকবার কন্ঠে তুলতে পারলে ভালো হতো। কোন গানটি গাওয়ার পর মনে হয়েছে আরেকবার গাইতে পারলে ভালো হতো? অনেক গানই আছে। সব কয়টি জানালা, আমার মনের ভেতর অনেক জ্বালা এ রকম অনেক গানই রয়েছে। তিন প্রজন্মর সাথে গান করেছেন। অনেকেই আপনার গান গেয়েছেন। কার কন্ঠে আপনার সাথে মিলে যায়? কবরী, অঞ্জু, অঞ্জনা, শাবানা, ববিতা সহ অনেকেই। নায়িকার কথা বলার ধরন যেনে চেষ্টা করতাম তাদের মতো করে করার। দোয়েলের লিপে যে রকম গান গেয়েছি তেমন ওর মেয়ে দীঘির লিপে গান গেয়েছি সেটা ভালো লেগেছে। বর্তমানে কপিরাইট নিয়ে অনেক কথা হয়। যে নিয়মে কপিরাইট হচ্ছে আপনি কি আপনার গানে কপিরাইট পাচ্ছেন? বেশ আক্ষেপ নিয়ে এ শিল্পী বলেন, কেউই মেধাস্বত্ত্ব পাচ্ছে না। কপিরাইটের জন্য অনেক আগ থেকে যুদ্ধ করছি। আলাউদ্দিন আলী চেষ্টা করতে করতে চলে গেলেন। শিল্পীদের মেধাস্বত্ত নেই। গ্রামীনফোন থেকে শুরু করে হাজারটা মোবাইল ফোন ওয়েলকাম টিউন, কলার টিউন ব্যবহার করে কেউতো মেধাস্বত্ত্ব দিচ্ছে না। রেডিও টেলিভিশনে গান বেজে চলেছে। কেউ মেধাস্বত্ত্ব পায় না। পেলে তাহলে আব্দুল আলিমের পরিবার এতো কষ্টে থাকতো না। সে হাজার হাজার গান গেয়েছেন।

Previous articleনতুন উদ্যমে আসছে বিটিভির অনুষ্ঠানমালা
Next articleরোমিও’র ‘স্বপ্ন পূরণ’

Leave a Reply