রঞ্জু সরকার: ছোটপর্দার জনপ্রিয় অভিনেতা তারিক স্বপন। সাবলীল অভিনয় দিয়ে শোবিজে এরইমধ্যে আলাদা স্থান করে নিয়েছেন তিনি। ছোটপর্দায় বহু সফল গল্পের রূপকার হিসেবে দর্শকদের পছন্দের এক তারকার নাম তারিক স্বপন। ক্যারিয়ারের শুরু থেকেই অভিনয় করছেন নানা বৈচিত্র্যময় চরিত্রে। বর্তমানে তারিক স্বপন অভিনীত প্রায় বারোটির মতো ধারাবাহিক প্রচার হচ্ছে বিভিন্ন চ্যানেলে। এর শুটিং নিয়েই তার এখনকার ব্যস্ততা। ধারাবাহিকের পাশাপাশি একক নাটকেও অভিনয় করছেন। এরইমধ্যে শেষ করেছেন নির্মাতা সোহেল তালুকদারের ধারাবাহিক নাটক ‘সরল পাত্র চাই’। তারিক স্বপনের টিভি নাটকে অভিনয়ের শুরুটা হয়েছিল ২০০১ সালে সতীর্থ রহমান রুবেলের পরিচালনায় ‘জোৎস্নার কালো ছায়া’ নাটকের মাধ্যমে। এরপর শুধু সফলতার গল্প।

শুরুর কথা বলতে গিয়ে এ অভিনেতা বলেন, ছোটবেলায় সিনেমা হলে গিয়ে প্রচুর ছবি দেখতাম। সেই থেকেই মনের মধ্যে অভিনেতা হওয়ার স্বপ্ন দেখি। কিন্তু কোনো উপায় খুঁজে পেতাম না। গ্রামের বাড়ি সিরাজগঞ্জ। পাশের বাড়ি নন্দিত অভিনেতা জাহিদ হাসানের। ১৯৮৯ সালের দিকে তিনি মঞ্চ নাটকে অভিনয় করতেন। তার অভিনীত ‘অনুস্বর’ নামের একটা নাটক বিটিভিতে দেখেছিলাম। তার অভিনয় দেখার পর মুগ্ধ হয়ে স্থানীয় গ্রাম থিয়েটারে ভর্তি হই। ১৯৯৫ সালে জাহিদ ভাইকে আমার অভিনীত ‘হামেদ আলীর স্বর্গদর্শন’ নামের একটি মঞ্চ নাটকে অভিনয় করে দেখালাম। জাহিদ ভাই নাটকটি দেখে বেশ প্রশংসা করেছিলেন এবং বলেছিলেন ঢাকায় এসে যোগাযোগ করতে।

এরপর কি ঢাকায় চলে এলেন? উত্তরে তিনি বলেন, না। সিরাজগঞ্জ থেকে অনার্স শেষ করে ১৯৯৮ সালে ঢাকা আসি। এরপর ভাবলাম অভিনয়ের জন্য যোগ্যতা দরকার তাই ২০০১ সাল পর্যন্ত শহীদুল ইসলাম সাচ্চুর থিয়েটারে কাজ করি। ২০০২ সালে যোগ দেই নাট্যকেন্দ্রে। জাহিদ হাসানের প্রযোজনায় ‘জোৎস্নার কালো ছায়া’ নাটকে অভিনয় করলাম। কিন্তু আমার প্রচারিত টিভিতে প্রথম নাটক ছিল আশরাফুল আলম রন্টুর ‘অজানা অজান্তে’। নাট্যকেন্দ্রের হয়ে বেশ কিছু নাটকে একটানা কয়েক বছর অভিনয় করি। নাটকগুলোর মধ্যে রয়েছে- ‘বিচ্ছু’, ‘আরজ আলী মাতব্বর’ ও ‘প্রতিসরণ’। শুধু অভিনয় নয় অভিনয়ের পাশাপাশি রাজউকে চাকরিও করেছি। এ পর্যন্ত প্রায় ১৫০ এর মতো টিভি নাটকে অভিনয় করেছেন তারিক স্বপন।

যোগ করে এ অভিনেতা বলেন, যখন গ্রাম থিয়েটারে নাটক করতাম তখন আমার মা রাস্তার পাশে দাঁড়িয়ে নাটক দেখতেন। মা প্রায়ই বলতেন দেখিস তুই একদিন অভিনয়ে ভালো করবি। কথাগুলো এখনো আমার কানে বাজে। আমার মা, জাহিদ ভাই ও মৌ ভাবীসহ সব পরিচালকদের কাছেই আমি অনেক বেশি কৃতজ্ঞ। ভবিষ্যৎ পরিকল্পনা কি? উত্তরে তিনি জানান, নাট্যকার ও পরিচালক হতে চাই। অভিনয় ছাড়ছি না জীবনের শেষদিন পর্যন্ত অভিনয় করে যেতে চাই। সেই ২০০১ সাল থেকে ছোট-বড় বিভিন্ন চরিত্রে অভিনয় করে এগিয়ে যাচ্ছি সবার ভালোবাসায়। সামনের দিনগুলোতে আরো ভালো ভালো কাজ করতে চাই।

Previous articleনতুন চমক নিয়ে আসছেন বাপ্পী খান
Next articleলরেন মেন্ডেসের ‘গল্পটা এমনই ভালো’

Leave a Reply