বিগত চার বছর যাবত সিঙ্গাপুরে বার্ডস থিয়েটারের উদ্যোগে এশিয়ার বিভিন্ন নাটকের দল গুলোকে নিয়ে আয়োজন করে চলেছে ‘এশিয়ান ইয়ুথ থিয়েটার ফেস্টিভ্যাল’। আজ থেকে ৪ দিনের এই উৎসব এবার করোনা মাহামারীর কারণে আয়োজন করা হয় অনলাইনে। জুম সফটওয়্যারের এই উৎসবে অংশগ্রহণ করবে প্রতিটি দল। বিগত তিন বছর প্রাচ্যনাট এই ফেস্টিভ্যালে অংশগ্রহণ করে চলেছে। তারই ধারাবাহিকতায় এবারও এই ফেস্টিভ্যালে অংশগ্রহণ করেছে প্রাচ্যনাট।

সিঙ্গাপুর, মালয়েশিয়া, থাইল্যান্ড, লাওস, ভিয়েতনাম, ইন্দোনেশিয়া, ফিলিপাইন, মিয়ানমার এবং বাংলাদেশসহ মোট ১০টি দেশের থিয়েটার গ্রুপ এই ফেস্টিভ্যালে অংশগ্রহণ করছে। এবারের ফেস্টিভ্যালের থিম নির্ধারণ করা হয়েছে ‘মানব সংযোগ’। প্রাচ্যনাট পরিবেশন করবে আজাদ আবুল কালামের ভাবনায় এবং সাইফুল ইসলাম জার্নালের নাট্যরুপ ও নির্দেশনায় নাটক ‘নীল পুরুষ’। ২০ নভেম্বর মঞ্চায়ন হবে প্রাচ্যনাটের নাটক ‘নীল পুরুষ’। নাটকের কথা নীল পুরুষ।

নাটকে দেখা যাবে, একজন লোক তার বাব-মায়ের কাছে একটি চিঠি লিখছে। সে একটা বাঙালী পরিবারে জন্মগ্রহণ করেছিলো। সে যখন একটু বড় হয় তখন দেখা যায় যে সে বর্ণান্ধ। তারপর বড় হয়ে সে আমেরিকায় গিয়ে সবার কাছে দৃষ্টি আকর্ষণের মানুষ হয় যেহেতু তার গায়ের রং নীল। কিন্তু নানান বর্ণের মানুষ তার কাছে একই মনে হয় যেহেতু সে রং এর পার্থক্য করতে পারে না। সে সময় আমেরিকায় কৃষ্ণাঙ্গ হত্যার আন্দোলন চলছে। সে যোগ দেয় কৃষ্ণাঙ্গ হত্যার প্রতিবাদের মিছিলে। আবার কৃষ্ণাঙ্গরা যখন দোকানপাট লুট করছে, সম্পদ নষ্ট করছে তার প্রতিবাদে শেতাঙ্গরা মিছিল করছে সেই মিছিলেও যোগ দেয় সে। নীল পুরুষ সবার সাথে তাল মেলানোর চেষ্টা করলেও কৃষ্ণাঙ্গ কি শেতাঙ্গ, কেউই তাকে তাদের মনে করে দলে সংযুক্ত হতে দেয় না তার নীল রঙের শরীরের জন্য।

তারা যুক্তি দেয় যে না সে তামাটে না কৃষ্ণাঙ্গ না শেতাঙ্গ! কিন্তু সে এই হিসাব মেলাতে পারে না তার মতে সে তো এই পার্থক্য করতে পারে না, তার কাছে সবার গায়ের রং একই মনে হয়, সবাই সমান। এই সময়ে বিভ্রান্তিতে জর্জরিত সে তার বাবা-মা কে চিঠি লেখে যে যেহেতু সে বর্ণাদ্ধ সেহেতু সে রঙের পার্থক্যটা করতে পারে না। কিন্তু চুল ও শারীরিক গঠন দেখে সে বুঝতে পারে যে সেখানে বিভিন্ন ধরণের মানুষ আছে। সব শেষে নীল পুরুষ তার বাবা মাকে নিজের অস্তিত্ব নিয়ে প্রশ্ন করে যে সে আসলে কোন দলের মানুষ? সে আসলে কাদের?

এই নাটকের কলা-কুশলী হলো রকি খান, আহমেদ সাকি, উচ্ছ্বাস তালুকদার, সৌর্ন্দয প্রিয়দর্শিনী, অদ্রী জা আমিন, উর্মি সাহা রায়। ভাবনা আজাদ আবুল কালাম, নাট্যরুপ ও নির্দেশক সাইফুল ইসলাম জার্নাল, মঞ্চ, আলোক ভাবনা ও প্রয়োগ মো. শওকত হোসেন সজিব, প্রপস-তানজি কুন এবং স্বাতী, মিউজিক আন্দোলন মিঠুন এবং গোপী দেবনাথ, ভিডিওগ্রাফি সায়েম বিন মুজিদ, ফয়সাল ইবনে মিজান।

Previous articleরিসোর্ট ভাড়া দিতে না পারায় রাঙ্গনিয়া একদিন আটকে থাকে ‘ছায়াবৃক্ষ’ ইউনিট
Next articleহাসপাতালে আলী যাকের

Leave a Reply