ঢাকাই সিনেমার গুরুত্বপূর্ণ সংগঠন চলচ্চিত্র প্রযোজক-পরিবেশক সমিতি। এই সংগঠনটি দীর্ঘ সাত বছর ধরে নানা জটিলতায় সময় কাটিয়েছে। ছিল না কোনো কার্যক্রম বা কমিটি। সিনেমা প্রযোজনা থেকেও দূরে রয়েছেন বেশির ভাগ প্রযোজক। প্রযোজকদের মধ্যে স্থবিরতা কাটিয়ে দীর্ঘ সাত বছর পর গত বছরের জুলাই মাসে অনুষ্ঠিত হয় চলচ্চিত্র প্রযোজক সমিতির নির্বাচন। এতে বিজয়ী হয় খোরশেদ আলম খসরু ও সামসুল আলম প্যানেল। নির্বাচনের আগে তারা বলেছিলেন নির্বাচিত হলে সবাই নতুন ছবি নির্মাণ করবেন। নির্বাচনকে ঘিরে চলচ্চিত্র সংশ্লিষ্ট সকলে স্বপ্ন দেখেছিলেন যোগ্য ব্যক্তিরা নির্বাচিত হলে বাংলা চলচ্চিত্রের চলমান সংকট অনেক কমে আসবে। তবে তা না কমে বরং সেই সংকট আরও তীব্র হয়েছে। নির্বাচণের এক বছর অনেক আগে পার হলেও ফলাফল শূণ্য। অথচ এখানে কাজ নিয়ে ভাবনার চেয়ে কাঁদা ছোড়াছুড়ি বেশি। সম্প্রতি জায়েদ খানের বিরুদ্ধে স্বার্থ বিরোধী কাজের অভিযোগে এনে বয়কট করেন প্রযোজক সমিতিসহ চলচ্চিত্র সংশ্লিষ্ট কয়েকটি সংগঠন। এখানেই শেষ নয় এ সময় জায়েদ খানের প্রযোজক সমিতির সদস্যপদ স্থাগিত করা হয়।

এরপর জায়েদ খান বাণিজ্য মন্ত্রণালয়ে এ বিষয়ে অভিযোগ করেন। বাণিজ্য মন্ত্রণালয়ের একজন উপ-সচিব অভিযোগ তদন্ত করে প্রতিবেদন দাখিল করেছেন। এতে জানা যায়, শিল্পী সমিতির সাধারণ সম্পাদক, প্রযোজক ও নায়ক জায়েদ খানের বিরুদ্ধে তোলা অভিযোগ মিথ্যা। সোমবার (১৬ নভেম্বর) বাণিজ্য মন্ত্রণালয় থেকে পাঠানো আদেশে বলা হয়েছে, জায়েদ খানের প্রযোজক সমিতির সদস্যপদ সাময়িকভাবে বাতিল করার বিষয়টি যুক্তিসঙ্গত প্রতীয়মান হয়নি। চলচ্চিত্র নির্মাণ ও অভিনয়ের ক্ষেত্রে তাকে বাধা না দেওয়ার জন্য অনুরোধ করা হলো।

প্রজ্ঞাপনে আরও উল্লেখ করা হয় বাংলাদেশ প্রযোজক ও পরিবেশক সমিতির কার্যনিবাহী কমিটির নির্বাচন বিষয়ে মহামান্য হাইকোর্টের আদেশ অমান্য করে নির্বাচনে প্রার্থী হয়ে সভাপতি খোরশেদ আলম খসরু ও সাধারণ সম্পাদক পদে সামসুল আলম নির্বাচিত হয়েছেন বিষয়টির সত্যতা রয়েছে। সেহেতু, বাংলাদেশ চলচ্চিত্র প্রযোজক ও পরিবেশক সমিতি-এর ২০১৯-২০২১ কার্যনির্বাহী পরিষদের কমিটি বাতিল করে উক্ত সমিতির কার্যক্রম সঠিকভাবে পরিচালনা এবং নির্বাচন অনুষ্ঠানের স্বার্থে বাণিজ্য সংগঠন অধ্যাদেশ, ১৯৬১ এর ১০ ধারা মোতাবেক খন্দকার নূরুল হক, উপসচিব, বাণিজ্য মন্ত্রণালয়কে বাংলাদেশ প্রযোজক ও পরিবেশক সমিতির প্রশাসক নিয়োগ করা হলো। তিনি দায়িত্ব গ্রহণের ১২০ (একশত বিশ) দিন সময়ের মধ্যে সংগঠনের দৈনন্দিন কাজ পরিচালনাসহ সুষ্ঠ ও নিরপেক্ষ নির্বাচন সম্পন্ন করে নির্বাচিত কমিটির নিকট দায়িত্ব হস্তান্তরপূর্বক এ মন্ত্রণালয়কে অবহিত করবেন। মামলা ও নানা জটিলতার কারণে ৭ বছর ধরে বন্ধ ছিল এই সমিতির নির্বাচন। এর আগে নির্বাচন হয় ২০১১ সালের ১৮ আগস্ট।

Previous articleঅপূর্ব-ফারিণের ‘হেট ইউ করোনা’
Next articleরোডিও ক্যাপিটাল ব্যাকস্ট্রিট ভয়েজে রাফি ও স্মরণ

Leave a Reply