রং যখন সমৃদ্ধ ও বৈভবশালী, গড়ন তখন পরিপূর্ণ ও প্রাচুর্যময়। শিল্পী সেজানের এই উক্তিটি যেন জলকাব্য-৩ প্রদর্শনীর সঙ্গে মিলে যাচ্ছে। যেখানে বাধনহীনভাবে রং ও জল নিয়ে চিত্র রচনা করেছে শিল্পীরা। মাধ্যমের বালাই না করে রঙই যেন মূখ্য হয়েছে এখানে। তরুণ ও বরেণ্য মিলে ৩২ জন শিল্পীর কাজ নিয়ে সাজিয়েছে এজ গ্যালারির জলকাব্য-৩। তাদের চিত্রের বিষয় ছিল ল্যান্ডস্কেপ, প্রকৃতি ও নদীর জীবনময়তা। যার স্পষ্ট ছাপ পাওয়া যায় গ্যালারির সকল শিল্পকর্মে।

নবীন ও তরুণ শিল্পীদের মধ্যে রয়েছে- আজমির হোসেন, নবরাজ রায়, নাফিউজ্জামান নাফি, নাজমুল হক বাপ্পি, সাবির আহমদ, মিন্টু দে, কায়সার হোসেন, কামরুজ্জোহা, শারমিন আক্তার লিনা, সোহাগ পারভেজ, সৈকত হোসেন, সুলতান ইসতিয়াক, ওয়ারির রহমান সামি, জাহাঙ্গির আলম, আল আখির সরকার, আনিসুর রহমান, খাকিন্নুহার কানন প্রমুখ। তারা সকলেই নিজ অবস্থানে সমদ্বিত; অনেকে বিদেশে শিক্ষা গ্রহণ করে বর্তমানে দেশের শিল্পচর্চায় নিজের অবস্থান অক্ষুণ্ণ রাখছে।

বরেণ্য শিল্পীদের মধ্যে রয়ে রয়েছে- অলোকেশ ঘোষ, হামিদুজ্জামান খান, জামাল আহমেদ, মনিরুল ইসলাম, সমরজিৎ রায় চৌধুরী, রনজিৎ দাশ, বিরেন সোম, আনিসুজ্জামান, আরিফুল ইসলাম প্রমুখ। যারা সকলেই বাংলার শিল্প গুরুমান্য। তাদের অবদানে বাংলার শিল্পজগত হয়েছে সমৃদ্ধ ও উজ্জ্বল। তবে প্রবীণ শিল্পীরা কিছুটা আন্তরিক ও স্বজনপ্রিতী কর্মকাণ্ড ত্যাগ করলে নবীন শিল্পীদের সম্ভাবনার জন্য আগামীর পথ হবে দ্বীপ্তময়।

সর্বোপরি এখানে রং ও জলের গল্পে উঠে এসেছে। জীবনের নানা ঘটনা, স্থান, অবস্থান কিংবা অনুভূতিদ্বয়। শিল্পীদের মৌলিক আবিষ্কার গুলো হলো তার চিত্রকর্ম। আর তা যদি দর্শকের মনেও মৌলিক কিছু আবেদন ও স্বপ্ন দেওয়া বা তৈরি করা যায়; তাতেই শিল্পীর স্বার্থকতা।

Previous articleসৌমিত্র চট্টোপাধ্যায় ভারতবর্ষের অভিনয়ের একটা ডিকশনারি: ওমর সানী
Next articleফরচুন বরিশালের শুভেচ্ছাদূত হলেন জায়েদ খান

Leave a Reply