চলচ্চিত্র সরকারি অনুদানের অর্থের পরিমাণ জেনেই আবেদন করেন নির্মাতারা। কিন্তু অনুদান পাওয়ার পর ‘একটি ছবি নির্মাণে এই অর্থ যথেষ্ট নয়’ অযুহাত দেখিয়ে পার করে দেন বছরের পর বছর। অন্যদিকে নির্মাতাদের অভিযোগ, এক অর্থবছর শেষ হয়ে নতুন অর্থবছরের ছবির কাজ শুরু হলেও আগের অর্থবছরের চিত্রনাট্যের অর্থ পেতে বারবার ছুটতে হয় মন্ত্রণালয়ে। চলচ্চিত্র সরকারি অনুদান এবং অনিয়মের অভিযোগ নিয়ে জমজমাট পাঠকদের চার পর্বের ধারাবাহিকের শেষ পর্ব আজ। চলচ্চিত্রে সরকারি অনুদানের সিনেমা নিয়ে এভাবেই ক্ষোভ প্রকাশ করলেন অনুদান বাছাই কমিটির অন্যতম সদস্য শাহনেওয়াজ কাকলি। প্রতিবছর যেসব চিত্রনাট্য পায় সরকারি অনুদান তার কতগুলো মানসম্পন্ন আর কতগুলোইবা শেষ করে নির্মাণ কাজ তার উত্তর জানা নাই সংশ্লিষ্ট মন্ত্রণালয়েরও।

তবে সৃজনশীল এই কাজে নির্মাতাদের আরো বেশি দায়িত্বশীল হওয়ার পরামর্শ চলচ্চিত্র সংশ্লিষ্টদের। তবে নির্মাতাদেরও অভিযোগ রয়েছে অনুদানের টাকা পেতে তাদের বারবার ছুটতে হয় মন্ত্রণালয়ে। আবার অনেকের অভিযোগ যোগ্য লোকের কাছে অনুদানের টাকা পৌঁছায়না বলেই এমন অনিয়ম। এতোসব অভিযোগের মধ্যে এও সত্য বেশকিছু অনুদানের সিনেমা আন্তর্জাতিক অঙ্গনে হয়েছে পুরষ্কৃত। ‘এমিলের গোয়েন্দা বাহিনী’ ও ‘সূর্য দীঘল বাড়ি’ যেমন প্রশংসিত হয়েছে ঠিক তেমনি অনুদানের ‘দেবী’ সিনেমাটি পেয়েছিল সুপারহিট তকমা ও বাণিজ্যিক সাফল্য। ২০১৫-১৬ অর্থবছরের অনুদানে নির্মিতব্য চলচ্চিত্র ‘শিকলবাহা’ বার্লিন থেকে ডব্লিউসিএফ জয়ের পর যৌথ প্রযোজক হিসেবে পেয়েছে ইউরোপের প্রযোজনা সংস্থা ওয়াইডাম্যান ব্রসকে।

Previous articleশিপনের নতুন চলচ্চিত্র ‘সুজুকি’
Next articleএকক নাটক ‘লাজুক দুলাভাই’

Leave a Reply