দেশীয় চলচ্চিত্রে গতি প্রদান করার লক্ষ্য নিয়ে সরকারি অনুদান শুরু হলেও সেই লক্ষ্য থেকে এখন অনেকটাই পিছিয়ে এসেছে সংশ্লিষ্টরা। অভিযোগ রয়েছে ভালো মানের চিত্রনাট্য বাছাই কমিটিতে নির্বাচিত হলেও চূড়ান্ত কমিটিতে গিয়ে বাদ পড়ে যায়। আবার বাছাই কমিটিতে বাদ পড়া সিনেমাও সামনে চলে আসে, পায় অনুদানও। শুধু তাই নয় এসব কমিটিতে চলচ্চিত্র সম্পর্কে অভিজ্ঞ লোকের অভাব রয়েছে বলেও মনে করেন কেউ কেউ। চলচ্চিত্র সরকারি অনুদান এবং অনিয়মের অভিযোগ নিয়ে জমজমাট পাঠকদের জন্য চার পর্বের ধারাবাহিকের দ্বিতীয় পর্ব আজ। ২০১৮-১৯ অর্থবছরে চলচ্চিত্র নির্মাণের জন্য নয়জন নির্মাতা অনুদান পায় ৪ কোটি ১০ লাখ টাকা। প্রথমে তালিকায় আট জনের নাম থাকলেও পরবর্তীতে হঠাৎ করেই যোগ হয় একটি নাম। সেই বছরই অনুদানের জন্য সিনেমা জমা দেন নির্মাতা ড. মো. জাহাঙ্গীর হোসেন। বাছাই কমিটিতে যা পায় সর্বোচ্চ নাম্বার। অথচ চূড়ান্ত কমিটিতে গিয়ে বাদ পড়ে সিনেমাটি।

শুধু তাই নয় তার আগের বছরও এই ‘হীরালাল সেন উপাখ্যান’ সিনেমাটি সর্বোচ্চ নাম্বার পেয়ে বাদ পড়ে অনুদানের তালিকা থেকে। তবে এমন ঘটনা নতুন নয়। বরং তার আগেও এমন উদাহরণ তৈরি হয় চলচ্চিত্র নির্মাতা আবু সাইয়্যিদির সাথে। বেলায়াত হোসেন মামুন, সাধারণ সম্পাদক, ফেডারেশন অব ফিল্ম সোসাইটিজ অব বাংলাদেশ বাছাই কমিটির অন্যতম সদস্য ও চলচ্চিত্র নির্মাতার কণ্ঠ এমন উচ্চকিত নানা অসঙ্গতির কথায়। শাহনেওয়াজ কাকলি। অনুদান নীতিমালা লঙ্ঘন করার অভিযোগে ২০১৮-১৯ অর্থবছরের চলচ্চিত্র অনুদানের ঘোষণা স্থগিত চেয়ে এবং জমাকৃত সব চলচ্চিত্র নির্মাণ প্যাকেজ প্রস্তাব পুনর্নিরীক্ষণের জন্য উচ্চ আদালতে রিট আবেদন করেন জাহাঙ্গীর আলম, অদ্রি হৃদয়েশ, সুপিন বর্মন এবং নির্মাতা খন্দকার সুমন। এরপর চলচ্চিত্রের আঙ্গিনায় নয়, এখন তারা চোখ রাখছেন আদালতের বারান্দায়।

Previous articleবিজয়ের মাসে স্বল্পদৈর্ঘ্য চলচ্চিত্র ‘ছুটির দিনে’
Next articleশ্রাবন্তীর নতুন খবর

Leave a Reply