খোকন বাবার একমাত্র সন্তান। বাবা খোকাবাবু ও স্ত্রী নাজ এই হচ্ছে খোকনের পরিবার। খোকন বিয়ের আগে বেশ অস্থির প্রকৃতির ছিল। কিন্তু বিয়ের পর বদলে যায় খোকন। বসতে থাকে বাজারে বাবার আড়তে। ছোট বেলায় খোকনের মা মারা গেলে ফুফুর কাছে বড় হয়। অন্য দিকে স্ত্রী বিয়োগের পর থেকেই বদলে যায় খোকাবাবু। স্বভাবে বাচ্চাদের মত হয়ে যায়। সারাক্ষণ ছেলে খোকনের বন্ধুদের সাথে খেলাধুলা করে বেড়ায় খোকাবাবু। এই নিয়ে খোকনের দুঃখের শেষ নেই। এভাবেই ‘খোকাবাবু’ নাটকের গল্পটি এগিয়ে যাবে।

নাটক প্রসঙ্গে সুজিত বিশ্বাস বলেন, ‘আমার অনেক ভালো লাগার একটি নাটক ‘খোকাবাবু’। একটু না বেশ আলাদা সাধের একটি গল্প। আমি মোটেও নাট্যকার নয়, কিন্তু মাঝে মাঝে কিছু চরিত্র আমার মাথায় ভীষণ ভাবে ঘুরপাক খায়। ইচ্ছে হয় তাদেরকে অন্যদের মাঝেও ফুটিয়ে তুলি। তার একটা চেষ্টা খোকাবাবু। এর জন্য পরিচালক আজাদ কালাম ভাই এবং গুরু সালাহউদ্দিন লাভলুকে জানাই অশেষ কৃতজ্ঞতা ও শ্রদ্ধা। কারণ তাদের সহযোগিতায় অসাধারণ হয়ে উঠেছে ‘খোকাবাবু’ নাটকটি। ধন্যবাদ ইউনিটের সবাইকে। ধন্যবাদ জানাই প্রযোজনা প্রতিষ্ঠান ক্রাউন এন্টারটেইনমেন্টকে।’

আজ শনিবার রাত ৮টায় আরটিভিতে প্রচার হবে নাটকটি। এতে অভিনয় করছেন সালাহউদ্দিন লাভলু, ঊর্মিলা কর শ্রাবন্তী, মিলন ভট্টাচার্য্য, হিমি হাফিজসহ অনেকে। পরিচালনা করেছেন আজাদ কালাম। আর প্রযোজনা করেছে ক্রাউন এন্টারটেইনমেন্ট।

Previous articleআঁচল-মঈনের ‘যমজ ভূতের গল্প’
Next articleজাহিদ হাসানের ‘হুলস্থুল টিভি’

Leave a Reply