চলচ্চিত্র-নাটকে বিয়ের কোনো দৃশ্যে ‘কবুল’ শব্দ উচ্চারণ বন্ধ চেয়ে গত ২৯ অক্টোবর সুপ্রিম কোর্টের আইনজীবী মো. মাহমুদুল হাসান জনস্বার্থে একটি নোটিশ পাঠান। তথ্য সচিব, আইন মন্ত্রণালয় সচিব, ধর্ম মন্ত্রণালয় সচিব এবং বাংলাদেশ ফিল্ম সেন্সর বোর্ডকে (বিএফসিবি) এ নোটিশ পাঠানো হয়েছে। নোটিশ পাওয়ার তিন দিনের মধ্যে চলচ্চিত্র, নাটকের বিয়ের দৃশ্যায়নে ‘কবুল’ শব্দ উচ্চারণে নিষেধাজ্ঞা জারি করতে প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ নেয়ার আরজি জানানো হয়েছে। অন্যথায় এ বিষয়ে হাইকোর্টে রিট আবেদন করা হবে উল্লেখ করা হয়েছে।

নোটিশের পর উকিলের কাছে এক মক্কেল খোলা চিঠি লিখেছেন। জমজমাটের কাছে তার একটি কপি আসে। তিনি চিঠিতে উল্লেখ করেন, প্রিয় উকিল মহোদয়, সালাম লইবেন। সম্প্রতি আপনি চলচ্চিত্র-নাটকে বিবাহ দৃশ্যে ‘কবুল’ উচ্চারণ নিষিদ্ধ করণের জন্য একখানা উকিল নোটিশ পাঠিয়াছেন। আপনি বলিয়াছেন অভিনয়ে বিবাহ দৃশ্যে পাত্র- পাত্রী ‘কবুল’ বলিলে তাহারা আইনত স্বামী-স্ত্রী হইয়া যায়। আপনার এমন উদ্ভট বক্তব্য লইয়া আমজনতা বেশ ঠাট্টা মশকরা করিতেছে। কেউ কেউ বিষয়টি লইয়া হাসি তামাশার ছলে নানান কৌতুকের আসর জমাইতেছে। আইনের নানান বিষয় আমার মতো আম জনতা বুঝিবার কথা নয়। সেই জন্যই আপনি উকিল, আমরা আপনার মক্কেল। সবাই বলাবলি করিতেছে যে, পাকি আমল হইতে শুরু হওয়া বাংলার নিখাদ সংস্কৃতির বিরুদ্ধে যে ষড়যন্ত্র শুরু হইয়াছে। আপনি এবং আপনার ঐ নোটিশটি নাকি তাহার সর্বশেষ প্রয়াস মাত্র। পাকি আমল হইতে বাংলার ঐতিহ্য এবং ইতিহাস সমৃদ্ধ সংস্কৃতির শিকড় উৎপাটন করিয়া জাতি সত্ত্বার অস্তিত্ব ধ্বংসের সর্বশেষ সংস্ককরনই হইলো আপনার নোটিশটি। আপনি একজন শিক্ষিত মানুষ হিসাবে একটা বিষয় অজানা থাকার কথা নয় যে, চলচ্চিত্রই হইলো সকল নন্দিত শিল্পের প্রবাহমান স্রোতধারার মহা মিলনের মহাস্থান। সেই চলচ্চিত্র শিল্প আজ নানা কারণে দুর্যোগের মুখোমুখী। জাতিসত্বার অস্তিত্ব রক্ষার জন্য জাতির স্বীয় সংস্কৃতির প্রকাশ বিকাশ অপরিহার্য। সেই সংস্কৃতিকে ধংস করিবার ষড়যন্ত্র এখন প্রকাশ্যেই শুরু হইয়াছে।

সম্প্রতি ক্রাউন এন্টারটেইনমেন্ট এর একটি নাটক লইয়া রমরমা নাটকীয়তা জাতি প্রত্যক্ষ করিলো। সনাতনী উগ্রবাদীদের অশুভ প্রয়াস খুব একটা আগায় নাই। সংস্কৃতমনা জাতি হিসাবে আমাদের যে গৌরবময় ইতিহাস রহিয়াছে তাহাকে চুরমার করিবার জন্য চরম সাম্প্রদায়িক দ্বি জাতিতাত্বিক অপশক্তি পাকি আমল হইতে ধর্ম এবং সংস্কৃতিকে সাংঘর্ষিক পর্যায়ে লইয়া আসিয়াছে। এমন কি পাকি আমলে রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরকে এবং তার সৃষ্টিকে নিষিদ্ধ করিতে দ্বিধা করে নাই। ১৯৫৬ সাল হইতে বানিজ্যিক চলচ্চিত্রের যাত্রা শুরু হইলেও আজ পর্যন্ত উল্লেখিত ‘কবুল’ বিষয়ে কেউ উচ্চ বাচ্য করে নাই। ধর্মকে হাতিয়ার হিসেবে সর্বক্ষেত্রে ব্যবহারকারী পাকি শাসন আমলেও এমন অসম্প্রাদায়িক বিষয় লইয়া কেউ কোন কথা বলে নাই। অথচ হঠাৎ কেন আপনার মগজ মোবারকে এমন উদ্ভট, অর্থহীন বিষয়টি বিনা পাসপোর্টে কি ভাবে প্রবেশ করিলো তাহা কাহারো কাছে বোধগম্য হইতেছে না। আপনার আনিত বিষয়টি যদি সত্যিই আইন সিদ্ধ হয়, তবে কেন বাঘা বাঘা আইনজীবিগণ ইহা লইয়া পূর্বে কোন কথা বলেন নাই। সুতরাং কেউ কেউ বলিতেছেন যে, কিছু উগ্রবাদীর স্থুল মস্তিস্ক হইতে উৎগিরিত বিষবাস্প-যা সামাজে ছড়িয়ে ছিটিয়ে আতংক আর বিভক্তির মাধ্যমে সংস্কৃতি ধ্বাংসের অপচেষ্টায় লিপ্ত-যাহারা সিনেমা হলে, উদীচি, ১লা বৈশাখের অনুষ্ঠানে বোমা মারিয়া মানুষ হত্যা করিয়া দেশ ও জাতিকে ধ্বংস করিতে চায় আপনি নাকি তাহাদের এজেন্ডা বাস্তবায়নের জন্য বিশ্বস্থ এজেন্সি খুলিয়া বসিয়াছেন।

সুতরাং রাষ্ট্র ও জাতির ভবিষ্যৎ নিরাপত্তার স্বার্থে আপনাকে এখনি গোয়েন্দা নজরদারীতে আনা উচিৎ বলিয়া অনেকে মনে করিতেছেন। আপনি অভিনয় এবং বাস্তবতাকে এক করিয়া আপনার জ্ঞানের সীমাবদ্ধতাকে প্রকারন্তরে প্রকাশ করিয়া নিজেই হাসির পাত্র হইয়াছেন। এসব কথা জানিয়া শুনিয়া আপনার মক্কেল হিসেবে বড়ই পেরেশানিতে আছি। আমার জন্য দোয়া করিবেন। আল্লাহ আপনাকে সহ সবাইকে হেদায়েত দান করুন। মহান আল্লাহ সবার সহায় হোউন।

ইতি

মো: আলী নেওয়াজ, মাষ্টার।

Previous articleনতুন লুকে অপু বিশ্বাস
Next articleচ্যালেঞ্জিং চরিত্রে কাজ করতে চান আফ্রিনা আজাদ

Leave a Reply