দেশের সঙ্গীতাঙ্গনে অনুপম সুপ্রতিষ্ঠিত প্রতিষ্ঠান। তাদের পৃষ্টপোষকতায় প্রতিষ্ঠা পেয়েছেন অনেকেই। শ্রুতিমধুর গানের পৃষ্টপোষকতায় প্রতিষ্ঠানটি সুনামের সঙ্গে কাজ করে যাচ্ছে। শ্রোতাদের প্রিয় এই প্রতিষ্ঠানটি তারই ধারাবাহিকতায় প্রয়াত প্লে ব্যাক সম্রাট এন্ড্রু কিশোরের জন্মদিনকে শ্রদ্ধাভরে স্মরণ করতে কালজয়ী গান ‘আমার বাবার মুখে প্রথম যেদিন শুনেছিলাম’ গানটি নতুন করে শ্রোতাদের কাছে এনেছে অনুপম রেকর্ডিং মিডিয়া। আজ বুধবার ক্ষণজন্মা কালপুরুষ এন্ড্রু কিশোরের জন্মদিনে গানটি প্রকাশ্যে আসে। গানটিতে নতুন করে কন্ঠ দিয়েছেন মোমিন বিশ্বাস।

প্রয়াত সঙ্গীত পরিচালক আহমেদ ইমতিয়াজ বুলবুলের লেখা ও সুরে গানটি বেলাল আহমেদ পরিচালিত ‘নয়নের আলো’ ছবির সুপারহিট তকমা পাওয়া। এটি ১৯৮৪ সালে মুক্তি পায়। এরপর চার দশক কেটে গেলেও আজও গানটি শ্রোতাদের কাছে সমান জনপ্রিয়। এই গানটিকে তাই এ যুগের শ্রোতাদের কাছে তুলে দিতে নতুন করে সঙ্গীতায়োজন করে মিউজিক ভিডিও উপহার দিতে প্রয়াস চালিয়েছে অনুপম। পুরোটাই এন্ড্রু কিশোরকে ট্রিবিউট করে। গানটি বাজনা বাজা স্টুডিওতে রেকর্ড হয়েছে। পুন:সঙ্গীতায়োজন করেছেন আর কে সরকার রিপন। ভিডিও নির্মাণ ছিলেন শরিফুল ইসলাম শরীফ। কন্ঠ দেওয়ার পাশাপাশি ভিডিও পারফর্ম করেছেন মোমিন বিশ্বাস। গত ৩১ অক্টোবর থেকে গানটির প্রমো অনুপমের অফিসিয়াল পেজে দেখা যাচ্ছে।

গানটি রেকর্ড হয়েছিলো এন্ড্রু কিশোর জীবিতাবস্থায় অর্থাৎ সিঙ্গাপুরে যাওয়ার দুই সপ্তাহ আগে। আর এর পরিকল্পনা হয় নরসুন্দরের দোকানে এমনটাই জানালেন কণ্ঠশিল্পী মোমিন। জানালেন-মিরপুরে দাদা জহির নামে এক গান পাগল নরসুন্দরের কাছে চুল কাটাতেন! তিনি সিঙ্গাপুরে চিকিৎসা নিতে যাওয়ার ঠিক দু-সপ্তাহ আগে জহিরের সেলুনে বসে দাদা চুল কাটাচ্ছিলেন। এ সময় জহির ভাই আমাকে (মোমিন) বললেন অনেকেই দাদার গান রিমেক করে আপনি কেন করেন না? আমি চুপ করে আছি, দাদা নিজেই আড়চোখে পাশের চেয়ারে আমার দিকে তাকিয়ে বললেন-‘করতে পারিস কিন্তু-’। দাদার সম্মতি পেয়ে বললাম-‘দাদা কোন গান করা যায়?’ দাদা তখন এই গানটি নির্বাচন করে দিলেন এবং গানের কয়েকটি জায়গা নতুনভাবে দেখিয়ে দিলেন এবং গানটি আমি সেভাবেই গাওয়ার চেষ্টা করি! এরপর গানটি রেকর্ড করা হয়।

তিনি জানান, অনুপম রেকর্ডিং মিডিয়ায় কর্ণধার আনোয়ার হোসেনের উদ্যোগে এই গানটি অনুপমের ইউটিউব চ্যানেল থেকে আজ (৪ নভেম্বর) মুক্তি পায়। পুরো প্রক্রিয়াটির জন্য অনুপম রেকর্ডিং মিডিয়ার প্রতি কৃতজ্ঞতা।

Previous articleজুথির ‘মিশন বাসর ঘর’
Next articleঅর্ধশত ছবির ভবিষ্যৎ অনিশ্চিত

Leave a Reply