মা অনেক সিনেমাপ্রেমী ছিলেন। রাজ্জাক, কবরীর সিনেমা মুক্তি পেলেই হলে গিয়ে সিনেমা দেখতেন। সব সময় মা আমাকে সিনেমা দেখতে নিয়ে যেতেন। তখন থেকেই অভিনয়ে আগ্রহ হয়। এসএসসি শেষ করে মঞ্চে যুক্ত হই। জীবিকার তাগিতে এক সময় ঢাকায় আসি। ঢাকায় আসার পর কোন কিছুই ভালো লাগে না মাথার মধ্যে একটাই চিন্তা টেলিভিশনে অভিনয় করব। শুরুটা মিনহাজুর রহমানের নির্দেশনায় ‘তমশ’ নাটক দিয়ে। এরপর আর পিছু ফিরে তাকাতে হয়নি। আলাপকালে অভিনয়ে আসার গল্প এভাবেই বললেন মাহমুদুল হাসান মিঠু। তাঁকে শোবিজের সবাই ভালোবেসে বড়দা মিঠু ডাকেন।

এক সময় বড়দা মিঠু স্বপ্ন দেখেন বড়পর্দায় কাজ করবেন। স্বপ্ন পূরণের সুযোগও পান তিনি। তবে সেখানে ছিল তিক্ত অভিজ্ঞতা। তিনি বলেন, একটি সিনেমাতে এসপি চরিত্রে অভিনয়ের সুযোগ পাই রীতিমতো মনের আনন্দে শুটিংয়ে যাই। মেকআপ নিয়ে শটের জন্য তৈরি শট নিবে এমন সময় প্রযোজক এসে বললেন উনি কে, ওনাকে এই চরিত্র দেওয়া যাবে না। সাথে সাথে পোশাক খুলে নেওয়া হয়। সে দিন খুব অপমান বোধ করি। অভিমান নিয়ে নাটকে ফিরে আসি।

বড়দা মিঠুর জীবনে ব্যর্থতা বলতে কিছু নেই। যা কিছু অর্জন করেছেন পুরোটাই সফলতার গল্প। এরইমধ্যে শেষ করেছেন মনতাজুর রহমান আকবার পরিচালিত ‘আয়না’ সিনেমার শুটিং। আগামী পাঁচ তারিখ থেকে অংশ নিবেন বন্ধন বিশ্বাস পরিচালিত সরকারি অনুদানের সিনেমা ‘ছায়াবৃক্ষ’র শুটিংয়ে। বড়দা মিঠু দুই পর্দায় কাজ করতে স্বাচ্ছন্দ্যবোধ করেন। ওয়েব সিরিজ প্রসঙ্গে বলেন, যা সংস্কৃতির সাথে যায় না সেটি কখনোই করব না। অন্যদেরও করা উচিত নয়। আমাদের আশেপাশে অনেক ভালো ভালো গল্প আছে যা চাইলেই আমরা সুন্দর ভাবে পর্দায় ফুঁটিয়ে তুলতে পারি। বর্তমান নাটক নায়ক-নায়িকা নির্ভর হয়ে গেছে। আমাদের নির্মাতাদের পারিবারিক গল্পে জোর দিতে হবে।

Previous articleরাম্মি খানের ‘হৃদ মাঝারে’
Next articleওয়াজের মধ্যে অনেক হুজুর ভুল তথ্য দেন, ঘৃণা ছড়ান: ফারুকী

Leave a Reply