বৈশ্বিক মহামারি করোনা ভাইরাস গোটা বিশ্বকে ওলাট-পালট করে দিয়েছে। থমকে গেছে জনজীবন। করোনায় বন্ধ হয়ে যায় অনেকের একমাত্র আয়ের উৎস। অনেকেই প্রতিনিয়ত করছেন বেঁচে থাকার লড়াই। জীবনের বড় একটা ধাক্কা খেয়ে একটু ভালো থাকার জন্য প্রতিনিয়ত লড়াই করছেন নারায়ণগঞ্জের বঙ্গবন্ধু সড়কের ২নং রেল গেইট, মিড টাউন শপিং কমপ্লেক্সের পুতুল পাঞ্জাবীর কর্ণধার এস.কে শাহিন। ৩৫ লক্ষ টাকার লোকশান এখনও মাথায় বোঝা হয়ে বেড়াচ্ছে। বড় শো রুমটি বন্ধ করে বেছে নিতে হয় ছোট একটি শো রুম। তবুও লড়াই করে একটু ভালো থাকার চেষ্টা করছেন তিনি। সবার মতো তারও ব্যবসার অবস্থা নাজেহাল।

শাহিন চাকুরি ছেড়ে বেছে নেন ব্যবসা। এক সময় পুতুল পাঞ্জাবীর রমরমা ব্যবসা ছিল। দেশের লেটেস্ট কালেকশন ছিল তাঁর শো রুমে। সেই দিন এখন শুধুই অতীত। সময়ের পরিক্রমায় অনেক শো রুম এবং ব্যান্ড হওয়ায় দিনদিন ব্যবসার অবস্থা খারাপ হতে থাকে। দেশের নামিদামি তারকা মডেলরা এক সময় পুতুল পাঞ্জাবীর মডেল হয়েছেন। ১৯৮০ সাল থেকে পাঞ্জাবীর ব্যবসা করছেন তিনি।

পুতুল পাঞ্জাবীর কর্ণধার শাহিন বলেন, করোনাকালীন সময়ে ব্যবসার অবস্থা খুবই খারাপ। শুধু আমার একা না সারা বাংলাদেশেই মানুষের অবস্থা খারাপ। কারো উপর দোষ দিয়ে কোন লাভ নেই এটা আল্লাহর ইচ্ছায় হয়েছে। কর্মচারীদের বেতন দিতে হিমশিম খেতে হচ্ছে। আগে ব্যবসা খুব ভালো ছিল। নারায়ণগঞ্জে যখন থেকে পাঞ্জাবীর ব্যবসা শুরু করি এবং যে পরিমাণে কালেকশন রাখি এই পরিমাণে কারো কাছে কোন কালেকশন ছিল না। এখন নারায়ণগঞ্জে অনেক পাঞ্জাবীর শো রুম হয়েছে। যার জন্য বিক্রির পরিমাণও কম গেছে। বছর শেষে দেখা যায় ব্যবসা লসের দিকেই বেশি যাচ্ছে।

যোগ করে তিনি বলেন, পুতুল পাঞ্জাবীর ব্যবসা নারায়ণগঞ্জে আর কেউর নেই। বড় একটা শো রুম ছিল ৩৫ লক্ষ টাকা লস হওয়ায় সেই শো রুমটি ছেড়ে দিতে হয়। সেই লসের বোঝা এখনও টানতেছি। সব মিলিয়ে বর্তমানে ব্যবসার অবস্থা খুবই খারাপ। করোনার কারণে অনেক বড় ধরনের ক্ষতি হয়েছে। আমরা ব্যবসায়ীরা সুযোগ সুবিধাও পাচ্ছি না। আমাদের যদি বিদ্যুৎ বিলও মওকুফ করে দিতো অনেক উপহার হতো। আমরা তো কেউর কাছে চাইতে পারি না। সরকার যদি ব্যবসায়ীদের দিক বিবেচনা করে সহযোগিতার হাত বাড়ায় তাহলে সবাই খুব উপকৃত হতাম।

Previous articleকরোনা আক্রান্ত হয়ে হাসপাতালে নাসির উদ্দিন ইউসুফ
Next articleআশিক-ফারজানা রিক্তার ‘তমসা ঘোর রাত্রি’

Leave a Reply