ঢাকাই সিনেমার ড্রেসম্যান খোকন। এসএসসি পরীক্ষায় পাশ করতে না পারায় বড় ভাইয়ের ভয়ে পালিয়ে ঢাকায় চলে আসেন তিনি। আশ্রয় নেন মামার বাসায়। মামা ড্রেস লাইনে কাজ করার ‍সুবাদে খোকনের কাজ পেতে সমস্যা হয়নি। তার কাছেই কাজ শিখেন। সে সময় ড্রেস তৈরিতে মামার বেশ সুনাম ছিল। খোকনের শুরুটা ‘আনার কলি’ সিনেমার কাজের মাধ্যমে। মামার সহকারী হিসেবে কাজ করেন ‘চন্দ্রলেখা’ ছবিতে। এরপর ড্রেসম্যান হিসেবে কাজ করেছেন অসংখ্য ছবিতে।

আগে সিনেমার কাজ বেশি থাকায় সমস্যা হতো না তাঁর। তবে বর্তমানে সিনেমার কাজ কম থাকায় ভালো নেই ড্রেসম্যান খোকন। কোন মতো পার করছেন দিন। অচল হওয়ার পথে। আক্ষেপ নিয়ে তিনি বলেন, আগে টেকনিশিয়ানদের যে সম্মান ছিল তা এখন আর নেই। বয়সের কারণে হাতে নেই কাজ। বয়সের কারণে কেউ কাজে নিতে চায় না। আবার অনেক নায়ক-নায়িকা পছন্দ করেন না। তাঁদের পছন্দ তরুণদের। তা ছাড়া যে সিনেমার কাজ পাই সেগুলোতে নামে মাত্র পারিশ্রমিক পাই। এ দিয়ে চলতে অসুবিধা হয়। তারপরও দিন চলছিল তবে করোনা ভাইরাসের কারণে বেকার হয়ে বসে আছি। হাতে নেই নতুন কাজ।

মাঝে একটি ছবির কাজ পেয়েছিলেন তিনি তবে জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কারপ্রাপ্ত এক নায়কের কারণে ছবিটি থেকে বাদ পড়েন তিনি। করোনার কারণে সবার মতোই কাজহীন ছিলেন খোকন। মাঝে মাঝে কিছু নাটকের কাজ পান। তবে তা দিয়ে চলে না।তিনি বলেন, একটা রাজার পোশাক নিলে ৫০০-১০০০ টাকা দেয় কেউ কেউ। উজিরের পোশাক নিলে ৩০০-৪০০ টাকা। নতুন পোশাক নিলে একটু বেশি আর পুরানো নিলে টাকা কম দেয়। এভাবেই চলে যাচ্ছে। করোনার সময় শিল্পী সমিতির সাধারণ সম্পাদক জায়েদ খান অনেক কিছু দিয়ে সহায়তা করেছে। এগুলো দিয়েই এতোদিন চলছে। হাতে নগদ টাকা নেই। সব কিছু শেষ হয়ে গেছে। কাজ বন্ধ থাকায় সামনের দিনগুলো কিভাবে চলবো বুঝতে পারছি না।

Previous articleঅসামাজিক বাস্তবতার অযাচিত চিত্র ‘পিতৃস্বত্বা’
Next articleমাসুম বাবুলের নির্দেশনায় আঁচল-জয়

Leave a Reply