নাদিয়া ইসলাম। ছোটবেলা থেকে শোবিজে কাজ করার স্বপ্ন নিয়ে বেড়ে ওঠেন। কিছুতেই স্বপ্ন পূরণের সুযোগ পাচ্ছিলেন না তিনি। নাদিয়া কিছুটা হতাশ হয়ে যান। তবে তিনিও নাছোরবান্দা সহজে হাল ছাড়ার মেয়ে নন তিনি। এরইমধ্যে পরিচয় হয় সাজু নামের এক ফেসবুক বন্ধুর সাথে। আস্তে আস্তে কথার এক পর্যায়ে তাকে শেয়ার করেন স্বপ্নের কথা। সাজু ছিলেন মিডিয়ারই একজন। তিনি সুযোগ করে দেন স্বপ্ন পূরণের। একটি স্বল্পদৈর্ঘ্য চলচ্চিত্রে প্রধান চরিত্রের ছোট বোনের চরিত্রে অভিনয় করার মাধ্যমে শোবিজে কাজ করার স্বপ্নের প্রথম ধাপ শুরু করেন নাদিয়া। এরপর দুই দিনে নয়টির মতো স্বল্পদৈর্ঘ্য চলচ্চিত্রে কাজ করেছেন তিনি। তারপর থেকে চেনা জানার পরিধি বাড়তে থাকে। একে একে কাজের পরিমাণও বৃদ্ধি পেতে থাকে। এ পর্যন্ত ৬০টির মতো স্বল্পদৈর্ঘ্য চলচ্চিত্রে কাজ করেছেন নাদিয়া।

এরপর পরিচয় হয় অভিনেতা আমানুল হক হেলাল এর সাথে তিনি নাটকে অভিনয় করার সুযোগ করে দেন। রাসেল গাজী পরিচালিত নাদিয়ার প্রথম নাটক ‘ব্যাচালার ভাবী’। স্বল্পদৈর্ঘ্য চলচ্চিত্রের পাশাপাশি পাঁচটি মিউজিক ভিডিও করেছেন নাদিয়া। দ্বিতীয় নাটক শামীম জামান পরিচালিত ‘পাবলিকের নেতা’। এরপর আরও কয়েকটি নাটকে অভিনয় করেন তিনি। এক বছরের ক্যারিয়ারে খুব অল্প সময়ে নিজেকে মেলে ধরতে সক্ষম হন তিনি। নাদিয়া বলেন, নাটকে কাজের সুযোগ করে দেন অভিনেতা আমানুল হক হেলাল ভাই। তার কারণেই নাটকে কাজ করতে পেরেছি। তার মাধ্যমেই জনপ্রিয় অভিনেতা ও নির্মাতা শামীম জামানের নাটকে কাজের সুযোগ পাই। ভালো কিছু কাজের মাধ্যমে নিজেকে অভিনেত্রী হিসেবে প্রতিষ্ঠিত করতে চাই। চ্যালেঞ্জ নিয়ে এগিয়ে যেতে চাই।

Previous articleসাত মাসের বিরতি ভেঙ্গে খুললো শিল্পকলা একাডেমি ও স্টার সিনেপ্লেক্স
Next articleজেন্টল পার্কের ভার্চুয়াল ফ্যাশন শো

Leave a Reply