ছবিতে মোশাররফ করিম, কেয়া পায়েল, শর্মিলী আহমেদ, জাহিদ হাসান, ঊর্মিলা, তানজিন তিশা, আফরান নিশো, মেহজাবীন ও অপূর্ব। কোলাজ

সৈয়দ ইকবাল: কতো সুন্দর অতীতই না ছিল টিভি নাটকের? এক সময় বিটিভিতে প্রচারিত নাটকগুলো থেকে সাজানো ড্রয়িংরুমের আদলে মধ্যবিত্ত বাঙালীদের ঘর সাজানো হতো। তখনকার সময়ের একেক অভিনয়শিল্পীর পোশাক-আশাক, আচার-আচরণ ও কথাবার্তা মানুষের লাইফস্টাইলে ফুটে উঠতো। আর এখন! ইউটিউবের এই যুগে টিভি নাটক দিনকে দিন অশ্লীলতায় ঘাঁ ভাসিয়ে দিচ্ছে। ভিউয়ের জন্য ডাবল মিনিংয়ের নাটকগুলো যেনো সমাজের অন্য জায়গার ইঙ্গিত দিচ্ছে। ইউটিউবের কোম্পানিগুলো তাদের বানানো কনটেন্টগুলো ‘নাটক’ শব্দ জুড়ে দিয়ে নাটকের সত্যিকারের অর্থকে প্রশ্নবিদ্ধ করছে। সবমিলিয়ে টিভি নাটকের ভবিষ্যৎ নিয়ে বিশেষজ্ঞরা খুব উদ্ধেগ প্রকাশ করছেন। অথচ এক সময় বিটিভির একেকটা নাটকের জন্য দর্শকরা অপেক্ষার প্রহর গুণেও নিজেকে ধণ্য মনে করতেন। আর প্রচারের পর নাটকের গল্প বা অভিনেতা-অভিনেত্রীদের অভিনয় কতটা প্রাঞ্জল ছিল, তা নিয়ে আড্ডার টেবিলে চলত আলোচনা।

সে সময় ‘সকাল সন্ধ্যা’, ‘ঢাকায় থাকি’, ‘শুকতারা’, ‘সংশপ্তক’, ‘অয়োময়’, ‘কোথাও কেউ নেই’, ‘রূপনগর’, ‘আজ রবিবার’, ‘জোনাকী জ্বলে’ ইত্যাদি ধারাবাহিক নাটক সারা দেশের দর্শকদের কাছে খুবই জনপ্রিয় ছিল। নব্বইয়ের দশকেও বিটিভি তার দর্শকদের বিনোদন চাহিদা পূরণ করেছে সুন্দরভাবেই। পরবর্তী সময়ে একমাত্র টেরিস্ট্রিয়াল চ্যানেল একুশে টেলিভিশন নানামাত্রিক নাটক দিয়ে মুগ্ধতায় ভাসিয়েছে পুরো দেশকে। নন-ফিকশন কিংবা রিয়েলিটি শোতে বাংলাদেশের টিভিওয়ালারা কখনো সুবিধাজনক অবস্থানে ছিলেন না। বরাবরই ভরসার জায়গা ছিল নাটক। এখন সেই নাটক থেকেও মুখ ফিরিয়ে নিচ্ছে দর্শক। ইউটিবের এই জমানায় মানহীন নাটকের সংখ্যা বেড়ে চলছে দিনকে দিন। কারণ এখন নাটক নির্মাণ করা হয় ইউটিউবের কথা মাথায় রেখেই। ইউটিউবে ভিউ হবে সেই নাটকের চাহিদা এখন তুঙ্গে। তাই তো অমুক শিল্পীর ভিউ আছে, তমুক শিল্পীর ভিউ নাই এই ধরনের আখ্যা দিয়ে গুটিকয়েক শিল্পীর হাতে জিম্মি হয়ে আছে টিভি নাটক। যার ফলে ইউটিউবের কারনে সস্তা আর চটকদার গল্পে নাটক বানাতে আগ্রহী হয়ে উঠেছে দেশের বেশ কিছু টেলিভিশন, প্রযোজনা হাউজ আর ইউটিউব কোম্পানিগুলো। এসব নাটককে এখন ‘ট্রেন্ডি’ নাটকও বলা হয়। এসব নাটক ভিউয়ের বিচারে এগিয়ে থাকায় স্পন্সররাও হুমরি খেয়ে পড়ছে।

যে নাটককে এক সময় বলা হতো সমাজের দর্পণ সেই ব্যাখ্যা তো দূরের কথা এখনকার নাটক মানেই পাড়ায় ছেলে মেয়েদের প্রেম আর ব্যাচেলারদের আড্ডা কিংবা মোবাইল ফোন ও ইন্টারনেটে নানান মজা করাই যেনো এখনকার নাটকের গল্প। আর তো রয়েছেই সুরসুরি আর ডাবল মিনিংয়ের নানান ধরনের নাটক। অনেক কিছুই সমাজে হচ্ছে। সমাজের ঘটে যাওয়া নানা অধ্যায়, বিবেকবোধ, সচেতনতাবোধ ও তার প্রতিচ্ছবি তুলে ধরাও একজন সৃষ্টিশীল মানুষের দায়িত্ব। অথচ এখনকার তথাকথিত টিভি নাটক দেখলে একজন যুবক বা উঠতি তরুণ কি শিখবে? টিভি নাটকের একটা বিরাট দর্শক হচ্ছে তরুণরা। ইউটিউব, অ্যাপ ও ওটিটি প্ল্যাটফর্মের কারনে এখনকার সময়ে মোবাইল ফোন, ল্যাপটপ ও ডেস্কটপেই মানুষ বিনোদনের জন্য ছবি-নাটক দেখে থাকেন। আর এসবের বেশিরভাগ দর্শক তরুণরা হওয়ায় বর্তমানে টিভি নাটকের অধিকাংশ ভিউয়ারও তারা। তাই তো সস্তা আর সুরসুরি মার্কা কনটেন্টগুলো বেশি জনপ্রিয় হচ্ছে। এখন যারা এই ব্যবসার সাথে সম্পৃক্ত তারা অনায়াসেই এগুলো নির্মাণ করতেই পারেন। তাহলে সেগুলোকে ‘নাটক’ বলাটা কতোটা যুক্তিসংগত? কারণ নাটকের যে সংজ্ঞা সেটা মেনে কি আসলেই এগুলো নির্মিত হচ্ছে? বোধ করি না। তাহলে এগুলোকে ‘ওয়েব কনটেন্ট’ বলা যেতে পারে। এখানেও একটা বিষয় উল্লেখ করার আছে।

বর্তমান সময়ে স্পন্সরদের কাঙ্খিত টার্গেট অনলাইন বা ডিজিটাল মাধ্যম থেকেই পূরণ হচ্ছে বলে স্পন্সরদাতাদের কাছ থেকে জানা যায়। কারণ ডিজিটাল মাধ্যমে ভিউ দৃশ্যমান। ফলে দিনকে দিন ডিজিটাল মাধ্যমেই স্পন্সরদাতাদের আগ্রহ বেড়েই চলেছে। ঠিক এ কারনেই ইউটিউব এর জন্য বানানো কনটেন্ট এজেন্সির মাধ্যমে ‘টিভি রাইটস’ নিয়ে বর্তমানে টিভিতে বেশকিছু নাটক প্রচার হচ্ছে। এতে করে দিনকে দিন টেলিভিশন চ্যানেলগুলো তাদের নিজস্বতা হারাচ্ছে বলেও কেউ কেউ উল্লেখ করেন। যার ফলে ঐ একই শিল্পীদের নিয়েই টিভি কর্তৃপক্ষ ও ইউটিউব মালিকরা হুমরি খেয়ে পড়ছে। যার দরুণ সেই অভিনয়শিল্পীরা দিনকে দিন তাদের সম্মানী বাড়িয়েই চলেছে। কারণ তাদের বাজারে চাহিদা যে বেড়েই চলেছে। স্পন্সর কোম্পানিগুলোও তাদের পণ্যের প্রসারের জন্য সেই অভিনয়শিল্পীদের ছাড়া অন্য কোনো অভিনয়শিল্পী হলে স্পন্সরে আগ্রহ প্রকাশ করছে না। অথচ একটা সময় বিষয়টা ছিল অন্যরকম। গল্প আর চরিত্রে যে অভিনয়শিল্পী ডিমান্ড করতো তা চ্যানেলের সাথে আলোচনা করে একটা ভালো নাটক নির্মাণে সবাই বদ্ধপরিকর ছিল। আর এখন হলো- অমুক শিল্পী, তমুক শিল্পীরা থাকলেই হবে। গল্প যাই হোক না কেন!

টিভি নাটকের গন্তব্য কোথায়?

দেশের একজন বিশিষ্ট অভিনেতা বললেন, যেদিন থেকে আমাদের টিভি নাটকের ক্ষেত্রে রিহার্সেল অর্থাৎ মহড়ার প্রচলনটা উঠে গেছে সেদিন থেকেই মূলতঃ টিভি নাটকের অধঃপতন শুরু হয়েছে। তিনি বলেন, শুধু টিভি নাটক নয় যে কোন দলবদ্ধ কাজ করার আগে এক বা একাধিক বৈঠক হওয়া জরুরি। পরস্পরকে জানা ও বোঝার জন্যও তো এটা করা দরকার। মহড়া বা রিহার্সেল তো দূরের কথা- এখনকার নাটকে তো ঠিক মতো স্ক্রিপ্টও থাকে না। কয়েক পাতার একটা লাইনআপ নিয়ে নির্মাতারা শুটিংয়ে চলে যান। এরপর সেটে ভিউওয়ালা সেই অভিনয়শিল্পীরা তাদের মতো করে ডায়লগ আর অভিনয় শুরু করেন। এখনকার সময়ে অনেক অভিনয়শিল্পীই নিজের অভিনীত নাটক দেখার ক্ষেত্রেও খুব একটা আগ্রহ দেখান না। ফলে অভিনয়ে একটা নাটক থেকে আরেকটা নাটকে উতরে যাবার তাড়নাও কারও মাঝে দেখা যায় না।

এখনকার অধিকাংশ নাটকে তথাকথিত নায়ক-নায়িকাই মুখ্য। সাথে রয়েছে ভিলেন জাতীয় দুই একটি চরিত্র। আমাদের টিভি নাটকে বাবা-মা, চাচা-চাচী, মামা-মামী, খালা-খালু, দাদা-দাদী, নানা-নানী এমনকি ভাই-বোনকেও তেমন দরকার পড়ে না। নায়ক-নায়িকাকে ঘিরেই নাটকের কাহিনী। সেখানেও ঘুরে ফিরে একই মুখ। যেন একটা তেলেসমাতি কারবার চলছে আমাদের টিভি নাটকে। এখন তো আবার ঘরানা ঘরানা অভিনয়শিল্পী। অমুক তুমকের সাথে ছাড়া অভিনয় করবেন না, তুমুক নায়ক আবার তখনই নাটকের শিডিউল দিচ্ছেন যখনই তার কাঙ্খিত নায়িকাকে কাস্ট করা হয়। এখন তো কয়েকজন নায়ক-নায়িকা তাদের সিন্ডিকেটের বাইরে গিয়ে কাজও করছেন না। শুধু তাই নয়- এখন অনেক নায়ক-নায়িকারা আবার প্রযোজনা হাউজের বাইরে গিয়ে কাজ করছেন না। অর্থাৎ প্রযোজনা হাউজ (বেশির ভার ইউটিউব কোম্পানি) মোটা অংকের এডভান্স অভিনয়শিল্পীকে দিয়ে তার শিডিউল নিয়ে রাখছেন। ফলে সেই অভিনয়শিল্পী তার বাইরে গিয়ে কাজ করতে পারছেন না। এমনও হচ্ছে কোনো কোনো অভিনয়শিল্পীর কো আর্টিস্ট অন্য কারো সাথে কোনো নাটকে অভিনয় করলে পরবর্তীতে তার সাথে সে কাজ করছেন না। এ রকম নোংরা কিছু বিষয় চলছে বর্তমানে টিভি নাটকে।

বর্তমান সময়ে পরিচালকের চেয়ে নাটকের সহকারী পরিচালকদের অবস্থা আরও করুণ। তাদেরকে অনেক কিছু ম্যানেজ করতে হয়। নাম প্রকাশে একজন সহকারী পরিচালক বলেন, ইদানিং চ্যালেঞ্জিং চরিত্রে অভিনয়ের ব্যাপারে অনেক অভিনেতা-অভিনেত্রীই মনযোগ দেখান না। বিশেষ করে তথাকথিত নামকরা আর্টিস্টরা তো পরিচালকের কথা শুনতেই চান না। অনেকে তরুণ নাট্য পরিচালকদেরকে ডিকটেড করেন। একবারের বেশি শর্ট দিতে রাজি হন না। মুড নাই বলে হঠাৎই হয়তো শুটিং ছেড়ে বেড়িয়ে যান। তাছাড়া মোবাইলের যন্ত্রনাতো আছেই। সাম্প্রতিক সময়ের একটি অভিজ্ঞতার কথা বর্ননা করে তিনি বলেন, একটি নাটকে কাহিনীর প্রয়োজনে নায়িকাকে কাঁদতে হবে। শুটিং শুরু হলো নায়িকাকে কাঁদতে বলা হচ্ছে। তিনি অবাক হয়ে বললেন, এটা কান্নার দৃশ্য নাকি? আমিতো ভাই কাঁদতে পারব না। আমাকে দিয়ে কান্না আসে না। তাকে যখন প্রশ্ন করা হলো আপনি কি এই স্ক্রিপ্টটা পড়েছেন? তার সহজ সরল উত্তর স্ক্রিপ্ট পড়ার সময় কোথায়? গত রাতে ৪টায় শুটিং থেকে বাসায় ফিরেছি। ঘুমাতে ঘুমাতে ভোর পাঁচটা। পরের দিন সকাল ১১টায় তো শুটিং এ চলে এলাম। স্ক্রিপ্ট পড়ব কখন?

টিভি নাটকে নামের বাহার!

দেশের টেলিভিশন চ্যানেল ও ইউটিউবে প্রচার হওয়া কয়েকটি নাটকের উদ্ভট নাম- ‘সেন্ড মি নুডস’, ‘বেড সিন’, ‘ছ্যাঁকা খেয়ে ব্যাকা’, ‘বাবু খাইছো’, ‘সেলিব্রেটি কাউ’, ‘ফালতু’, ‘লেডি কিলার’, ‘প্লে­বয়’, ‘ক্রেজি লাভার’, ‘ড্যাশিং গার্লফ্রেন্ড’, ‘বংশগত পাগল’, ‘চ্যাতা কাশেম’,‘ছ্যাঁছড়া জামাই’, ‘চিটার’, ‘প্রোটেকশন’, ‘শোবার ঘর’ ইত্যাদি। এসব নাম শুনেই আর নাটক দেখতে চাইছেন না দর্শকরা। নাটকের মান কেন এতটা নিচে নামল, তার উত্তরই খুঁজছেন নাট্যপ্রেমীরা। অনেক পরিচালক বা ইউটিউব প্রযোজকের মতে, এমন আকর্ষণীয় নাম না হলে মানুষ নাটক দেখতে আগ্রহী হবেন না। নাটকে মজাটাই আসল।

অনেক সিরিয়াস নাটকই নাকি মাঝপথে বন্ধ হয়ে যায়। কোনো কোনো অভিনেতা বলেন, ‘টিভিতে নাটক প্রচারের ক্ষেত্রে কিছু নিয়ম মেনে চললেও ইউটিউবে নেই। ফলে অশালীন ভাষার ব্যবহার হচ্ছে। যার যোগ্যতা আছে সেও অভিনয় করছে ইউটিউব চ্যানেলের নাটক-ওয়েব সিরিজে, যার নেই সেও করছে। ইউটিউব চ্যানেল একটি নিয়মের মধ্যে আসা উচিত। বিশেষ করে অনলাইনে দর্শকদের টোপ গেলাতেই এমন নামের নাটক নির্মাণ করছেন। এসব নাটকের নির্মাতাদের তালিকায় সিনিয়র থেকে তরুণ, সব কাতারের নির্মাতাই আছেন। সব নাটকের নাম এমন তা নয়। ‘এই শহরে’, ‘আমাদের সমাজ বিজ্ঞান’,‘কিংকর্তব্যবিমূঢ়’, ‘মায়া সবার মতো না’, ‘কাঠপেন্সিলের কাহিনি’, ‘আগন্তুক’, ‘বড় ছেলে’, ‘শুনতে কি পাও’, ‘কতোটা পথ পেরুলে’, ‘দহনকালের ভালোবাসা’, ‘আকাশ বদল’- এর মতো সুন্দর নামের নাটকও আছে। মজার বিষয় হচ্ছে, ঘুরেফিরে একই অভিনয়শিল্পীরা এই দুই ধরনের নাটকগুলোতে অভিনয় করছেন। তবে সব নাটকই যে খুব নিম্নমানের হচ্ছে তা নয়। ‘কেন’, ‘প্রিয়া তুমি’,‘বড় ছেলে’, ‘আন এক্সপেকটেড’, ‘বোধ’, ‘বুকের বাঁ পাশে’, ‘গেম ওভার’, ‘উবার’, ‘মধ্যরাতের সেবা’ সহ আরো কিছু নাটক আলোচিত হয়েছে।

লেখক: সাংবাদিক ও নাট্যকার।

Previous articleমোশাররফ করিমের ‘মায়ার জালে’ পায়েল
Next articleযুগান্তর চাকমার ‘বাহুর জোর’-এ রানী খান

Leave a Reply