ছবি: জমজমাট

একটা সময় ছিল যখন সপরিবার নাটক উপভোগ করতেন এ দেশের নাটকপ্রেমী দর্শকরা। সামাজিক বক্তব্যধর্মী নাটকগুলোই দর্শকরা বেশ পছন্দ করতেন। শিক্ষামূলক নাটককেও দর্শকরা ফিরিয়ে দিতেন না। নাটকে ফুটে উঠত সামাজিক ও পারিবারিক মূলবোধ। সময়ের সঙ্গে সঙ্গে টিভি নাটকের সেই চিরচেনা চেহারা মোটেও সুখকার নয়। কথাগুলো বলছিলেন জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কারপ্রাপ্ত অভিনেত্রী খালেদা আক্তার কল্পনা। প্রায় ৫০০ চলচ্চিত্রে অভিনয় করেছেন তিনি। তাঁর দীর্ঘদিনের অভ্যাস, অভিনয়ের পাশাপাশি নাটকের চিত্রনাট্য লেখা। সেসব চিত্রনাট্য তিনি বেশ কজন নির্মাতার কাছে পাঠান। সেসব গল্প পারিবারিক, ফলে বেশির ভাগ ক্ষেত্রেই তাঁকে শুনতে হতো, পরিবার নিয়ে নাটক আজকাল কেউ দেখে না। এসব প্রচার হয় না। এসব কথায় ভীষণ কষ্ট পেয়ে প্রতিবাদস্বরূপ পারিবারিক গল্পের নাটক লেখেন তিনি। প্রতিবাদ করে সফলও হয়েছেন তিনি।

এই অভিনেত্রীর লেখা নাটক ‘বেকার’। পারিবারিক গল্পের নাটকটি ঢাকা বেতারে প্রচারিত হবে। দীর্ঘ ক্যারিয়ারে এবারই তিনি নিজের লেখা বেতার নাটকে প্রথম কণ্ঠ দিলেন। তিনি বলেন, পারিবারিক নাটকটি একটি চ্যালেঞ্জ নিয়ে লিখেছি। এ ধরনের পারিবারিক নাটক লিখে যেসব সিনিয়র নির্মাতার কাছে গল্প দিতাম, তাঁরা সেটা নিয়ে বিভিন্ন রকম কথা বলতেন। আমার নিজের কানে শোনা, তাঁরা বলতেন, এসব পারিবারিক গল্প নাকি কেউ খায় না। এই অভিনেত্রী এখন থেকে নিয়মিত বেতারে অভিনয় করতে চান। নাটকটি আগামী শুক্রবার বেলা ৩টায় ঢাকা বেতারে প্রচারিত হবে।

খালেদা আক্তার কল্পনা এফডিসির নতুন মুখের সন্ধানে কার্যক্রমের মাধ্যমে নির্বাচিত হয়ে ১৯৮৪ সাল থেকে চলচ্চিত্রে কাজ শুরু করেন। এ পর্যন্ত পাঁচ শতাধিক চলচ্চিত্রে অভিনয় করেছেন তিনি। মিজানুর রহমানের ‘হনুমানের পাতাল বিজয়’ চলচ্চিত্রে প্রথম অভিনয় করলেও তার অভিনীত প্রথম মুক্তিপ্রাপ্ত চলচ্চিত্র হচ্ছে মতিন রহমানের ‘রাধাকৃষ্ণ’। অভিনয় আসার পূর্বে কল্পনার পেশা ছিলো শিক্ষকতা।

Previous articleঅভিনেত্রী হতে চান অনামিকা জুথি
Next articleচলচ্চিত্র নির্মাণের প্রস্তুতি নিচ্ছেন নাজমুল রনি

Leave a Reply