জি ডি পিন্টু: উনবিংশ শতাব্দীর শেষ দিকে যে চলচ্চিত্র শিল্পের বিস্ময়কর আবির্ভাব বিশ্ববাসীকে আপ্লুত করে সদর্পে এগিয়ে এসেছে, সময়ের পালাবদলে সেই চলচ্চিত্র শিল্প – একবিংশ শতাব্দীর প্রথম প্রহরেই ভয়াবহ সংকটে নিপতিত। বিশেষ করে বর্তমান ডিজিটাল প্রযুক্তিগত আধুনিকায়নের প্রেক্ষিতে, প্রেক্ষাগৃহ কালচারেও এসেছে বিরাট পরিবর্তন। যেহেতু চলচ্চিত্র প্রেক্ষাগৃহের বিশাল পর্দায় দৃশ্যমান ঘটনা প্রবাহের সাথে দর্শকদের মনোজগতের মেলবন্ধন, সেহেতু চলচ্চিত্রের স্বার্থে প্রেক্ষাগৃহের অস্তিত্ব টিকিয়ে রাখার বিকল্প নেই। প্রেক্ষাগৃহ সমুহের আধুনিকায়নের মাধ্যমে দর্শকদের চলচ্চিত্র দর্শনে এবং শ্রবণে মুগ্ধতা আনার পরিবেশ সৃষ্টি করা খুব জরুরী। কাজেই এ মুহূর্তে সারা দেশে ছোট-বড় সিনেপ্লেক্স নির্মাণের প্রয়োজনীয়তা বিজ্ঞান সম্মত। সারা দেশের শিল্প কলা একাডেমীগুলোতে সল্প আসনের সিনেপ্লেক্স নির্মাণ করা যেতে পারে। ইতোমধ্যে সংস্কৃতি মন্ত্রণালয় নীতিগত ভাবে বিষয়টি আমলে নিয়েছে বলে জানা গেছে। সিনেপ্লেক্সের সারাউন্ডিং সাউন্ড সিস্টেমে দর্শক চলচ্চিত্র দর্শনে তাদের আই ভিউ থেকে হরিজেন্টাল স্কিনের ডান এবং বাম থাকে ১০০/১২০ ডিগ্রি এংগেলে বিশাল পর্দায় চলচ্চিত্র উপভোগ করতে পারেন। এভাবে দর্শক সিনেপ্লেক্সের আধুনিক পরিবেশে চলচ্চিত্র দর্শনে অভিভুত হয়। এমন বাস্তবতায় সারা দেশে প্রেক্ষাগৃহ সমূহ ডিজিটালাইজড্ করণ এবং ইকোনমী সিনেপ্লক্স নির্মাণের মাধ্যমে চলচ্চিত্র শিল্পকে ঘুরে দাঁড়ানোর লক্ষ্যে মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর বিশেষ আগ্রহে ইতোমধ্যে হাজার কোটি টাকা বরাদ্দ ঘোষণা করা হয়েছে।

বাংলাদেশের যে চলচ্চিত্র সোনালী পথ অতিক্রম করে এ দেশের শিল্প সংস্কৃতিকে প্রান্তিক পর্যায়ে ছড়িয়ে দিয়েছে, গনমানুষকে দিয়েছে নির্মল বিনোদন, বাঙালির স্বাধিকার আন্দোলনকে করেছে শানিত, মহান মুক্তিযুদ্ধে পালন করেছে সহায়ক শক্তির ভুমিকা সেই চলচ্চিত্রের পেছনের মহান মানুষটি হলেন-আমাদের মহান নেতা, জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান। ১৯৫৭ সালে ৩ এপ্রিল তৎকালীন প্রাদেশিক সরকারের শিল্প ও বাণিজ্যমন্ত্রীর দায়িত্ব পালন কালে তিনি ‘চলচ্চিত্র উন্নয়ন করপোরেশন বিল’ উত্থাপন করে পাস করিয়ে নেন। যার ধারাবাহিকতায় প্রতিষ্ঠিত হয়েছে আজকের বিএফডিসি। যার কারিগরি সহায়তায় এদেশে নির্মিত হয়েছে বহু কালজয়ী ছবি-জন্ম হয়েছে বরেণ্য শিল্পী, কলাকুশলীদের। বঙ্গবন্ধুর নিজের হাতে গড়া চলচ্চিত্র শিল্পের এমন দুঃসময়ে মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর সদয় আগ্রহের ফলশ্রুতিতে বরাদ্দকৃত এক হাজার কোটি টাকার সর্বোত্তম বিনিয়োগের মাধ্যমে চলচ্চিত্র শিল্প আবার ঘুরে দাঁড়াবে এবং পৌঁছাবে তার কাঙ্ক্ষিত লক্ষ্যে – এমনটাই প্রত্যাশা চলচ্চিত্র বোদ্ধাদের।

লেখক: স্থির চিত্রগ্রাহক, সভাপতি-সিনে স্থির চিত্রগ্রাহক সমিতি

Previous articleক্রাউন মিউজিক-এর ভাইস প্রেসিডেন্ট গুরুতর অসুস্থ
Next articleনতুন চলচ্চিত্রে আদর আজাদ

Leave a Reply