প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ঘোষিত তহবিল থেকে ঋণ সুবিধা পেতে সমিতির নিবন্ধণ নিতে হবে বলে জানিয়েছে বাংলাদেশ চলচ্চিত্র প্রদর্শক সমিতি। ‘প্রশাসক প্রত্যাহার’ পরবর্তী শনিবার পুর্নবহাল কমিটির প্রথম বৈঠকে এ সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়। রাজধানীর ধানমন্ডি ক্লাবে এই বৈঠক অনুষ্ঠিত হয়। বৈঠকে এক হাজার কোটি টাকার ‘বিশেষ তহবিল’ গঠনের ঘোষণায় প্রধানমন্ত্রীকে ধন্যবাদ জানানো হয়। পাশাপাশি প্রক্রিয়াটিকে এগিয়ে নিতে আন্তরিক থাকার জন্য তথ্যমন্ত্রী ড. হাছান মাহমুদের প্রতি কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করা হয়। এতে সভাপতিত্ব করেন সংগঠনের সভাপতি কাজী শোয়েব রশিদ। প্রধান উপদেষ্টা সুদীপ্ত কুমার দাস এবং আন্তর্জাতিক ও আইন বিষয়ক সম্পাদক এম ইউনূস রুবেলকে বিদ্যামান সিনেমা হলের লিস্ট, বর্তমান অবস্থা যাচাই বাছাই, ভূতপূর্ব অবস্থা পর্যবেক্ষণ করে হালনাগাদ করণের দায়িত্ব দেওয়া হয়।

বৈঠকে নেওয়া সিদ্ধান্ত প্রসঙ্গে সভাপতি কাজী শোয়েব রশিদ বলেন, ‘ঋণ নেওয়ার জন্য আমরা তিনটি ক্যাটাগরির কথা বলেছি। এগুলো হলো, বন্ধ হওয়া হল চালু ও সংস্কার, পুরনো হল সংস্কার এবং নতুন সিনেপ্লেক্সের জন্য ঋণ সুবিধা। এটা আমাদের প্রস্তাবনা। বাকিটা মন্ত্রণালয় দেখবে। ঋণের পরিমাণ নির্ভর করছে কার কতটুকু দরকার। তবে এক্ষেত্রে রাজধানী, বিভাগ, জেলা ও উপজেলার জন্য সর্বোচ্চ ঋণ কত হতে পারে, তা ঠিক করার একটা প্রক্রিয়া ইতোমধ্যে শুরু করেছি।’

সাধারণ সম্পাদক আওলাদ হোসেন উজ্জল বলেন, ‘ঋণের বিষয়টি এলেই হয়তো অনেকে এতে যুক্ত হতে চাইবেন। তবে আমরা সমিতির তরফ থেকে বিষয়টি কঠোরভাবে দেখভাল করবো। ঋণ দেওয়ার ক্ষেত্রে হলের লাইসেন্সের মেয়াদ, রিনিউ করা কিনা দেখতে হবে। আর হুট করে নতুন লাইসেন্স নেওয়াটা সহজ হবে না। সমিতির পক্ষ থেকে আমরা ঋণ বণ্টনে সর্বোচ্চ সহযোগিতা করবো মন্ত্রণালয়কে।’

তিনি জানান, এ ব্যাপারে বিস্তারিত জানতে সমিতির অফিসে যোগাযোগ করার জন্য বিদ্যমান হল মালিক, নতুন সিনেপ্লেক্সে নির্মাণে আগ্রহীদের প্রতি অনুরোধ করেছি। ইতিমধ্যে কয়েকজন নতুন সিনেপ্লেক্স নির্মাণের করার আগ্রহ নিয়ে আমাদের কাছে এসেছেন। আমরা তাদের প্রস্তাবনা প্রজেক্ট প্রোফাইল আকারে জমা দিতে বলেছি। নিবন্ধনকৃত প্রকৃত হল মালিকরা অগ্রাধিকার পাবে। তারপর বাকিরা এভাবেই এগুবো।

বৈঠকে অন্যানের মধ্যে সিনিয়র সহসভাপতি মিঞা আলাউদ্দিন, সহসভাপতি আমির হামযা, সহ-সাধারণ সম্পাদক শরফুদ্দিন এলাহী সম্রাট, সাংগঠনিক সম্পাদক আবুল হোসেন, কোষাধ্যক্ষ আজগর হোসেন, রফিক উদ্দিন, ফারুক হোসেন মানিক, আশরাফুল ইসলাম বাবু উপস্থিত ছিলেন।

সম্প্রতি প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা সিনেমা হল বাঁচাতে এক হাজার কোটি টাকার বিশেষ তহবিল গঠনের ঘোষণা দেন। এর পরপরই তথ্যমন্ত্রী ড. হাছান মাহমুদ ৪ অক্টোবর সংবাদ ব্রিফিং এ তথ্য জানান, আমরা স্বল্প সুদে সংশ্লিষ্টদের ঋণের ব্যবস্থা করে দেবো। সেজন্য বাংলাদেশ ব্যাংক ১ হাজার কোটি টাকার একটি তহবিল গঠন করবে। এর আওতায় বন্ধ হয়ে যাওয়া সিনেমা হল পুনরায় চালু, যেগুলো টিকে আছে তার সংস্কার এবং নতুন সিনেমা হল চালুসহ এ খাতের জন্য বেশ কিছু বড় উদ্যোগ থাকবে।

Previous article‘তুমি আছো, তুমি নেই’
Next articleথমকে গেল ‘নবাব এলএলবি’র মুক্তি

Leave a Reply