প্রায় সাত মাস বন্ধ থাকার পর অবশেষে আগামীকাল (১৬ অক্টোবর) স্বাস্থ্যবিধি মেনে খুলছে দেশের সিনেমা হল। নিরাপত্তার চাদরে মোড়ানো থাকবে প্রেক্ষাগৃহগুলো। সরকারি নির্দেশনা অনুযায়ী ৫০ শতাংশ দর্শক ঢুকতে পারবেন প্রতিটি শো-এ। অর্থাৎ, ২০০ জনের আসন থাকলেও বসানো হবে ১০০ জনকে। একটি টিকিটও বেশি বিক্রি করতে পারবেন না হল মালিকরা। স্পর্শজনিত সংক্রমণ ঠেকাতে মানা হবে সামাজিক দূরত্ব। দীর্ঘদিন পরে বিনোদন ফের দর্শক মুঠোয়। তবে তাতে যুগলেরাও পাশাপাশি বসতে পারবেন কি না, রয়েছে সন্দেহ। কোভিড-বিধির শর্ত মানলে সিনেমা হলে অন্তত শুরুর পর্যায়ে এই দূরত্বটাও তাঁদের সহ্য করতে হবে। সরকারের সিনেমা হল খোলার নির্দিষ্ট দিনেও অবশ্য দেশের প্রায় হল খুললেও বন্ধই থাকছে মধুমিতা, বলাকা, অভিসার ও জোনাকী। ভালো ছবি ছাড়া সিনেমা হল খুলতে নারাজ তারা। হল খোলার প্রথম দিনেই মুক্তি পাচ্ছে বস্তাপচা একটি ছবি। এতে করে দর্শককে হলমুখি না করে বরং হলবিমুখ করবে বলে মনে করেন মধুমিতা হলের কর্ণধার ইফতেখার উদ্দিন নওশাদ।

শুক্রবার থেকে খুলছে সারা দেশের সিনেমা হল। তবে নতুন ভালো মানের চলচ্চিত্র না থাকায় বন্ধই থাকছে ঢাকার ঐতিহ্যবাহী প্রেক্ষাগৃহ মধুমিতা। হলটির মালিক মনে করেন, যেনতেন ছবি নয়, শাকিব খানের সিনেমা দিয়ে হল খোলা উচিত। বস্তাপচা ছবি মুক্তি দিলে দর্শক সংখ্যা বাড়বে না বরং কমবে। এতে করে যে সিনেমা হল খোলা রয়েছে তাও অচিরে বন্ধ হয়ে যাবে। তিনি মনে করেন, ভালো চলচ্চিত্র মুক্তি পেলে সিনেমা হলের সিট ভাঙ্গা থাকলেও দর্শক হলে এসে সিনেমা দেখবে। দর্শক ভালো মানের সিনেমা চায়। তাদের চাহিদা অনুযায়ী চলচ্চিত্র দিতে হবে। সিনেমা হল খোলার জন্য প্রস্তুত থাকলেও ছবি সঙ্কটে প্রেক্ষাগৃহগুলো।

বেশির ভাগ হল কর্তৃপক্ষই একসঙ্গে টিকিট কেটে আসা দর্শকদের পাশাপাশি বসার বিধি নিষেধ নিয়ে অস্বস্তিতে। তারা মনে করছেন, একই পরিবারের দুজন বা যুগলকে পাশাপাশি বসতে না দিলে অনেকেই হলবিমুখ হতে পারেন। তাঁদের আশা চীন, জাপানের মতো অনেক দেশেই ধাপে ধাপে সিনেমা হলে দর্শক-সংখ্যা বাড়ানোর অনুমতি মিলছে। এখানে কী হবে, তা নির্ভর করছে কোভিড পরিস্থিতির উপরেই।

Previous articleইউটিউবে সংবাদ প্রচার করতে লাগবে সরকারি অনুমতি
Next articleহল মালিক সমিতির উপদেষ্টার ভাইয়ের মৃত্যু

Leave a Reply