নায়ক আলমগীর নামটা শুনলেই চোখের সামনে ভেসে ওঠে জনপ্রিয় অসংখ্য বাংলা চলচ্চিত্রের নাম। চলচ্চিত্র অভিনেতার পাশাপাশি তিনি একজন প্রযোজক ও পরিচালক। বাংলাদেশের চলচ্চিত্রের আজীবন সম্মাননাপ্রাপ্ত আলমগীরের নামে একটি ভুয়া ফেসবুক পেজ থেকে ধর্ম বিষয়ক একটি স্টেটমেন্টকে কেন্দ্র করে বিব্রতকর পরিস্থিতির মুখোমুখি হচ্ছেন আলমগীর। তিনি জানালেন ফেসবুকে তার নিজের নামে অফিসিয়াল কোন পেজ নেই। তার একমাত্র আইডি এম এ. আলমগীর নামেই আছে। যার নিয়ন্ত্রণ রয়েছে তার নিজেরই কাছে।

প্রসঙ্গে আলমগীর বলেন, ‘এর আগেও আজ থেকে প্রায় পাঁচ বছর আগে একইভাবে একই ইস্যু নিয়ে আমাকে নানানভাবে বিব্রত করার চেষ্টা করা হয়। অনুরূপভাবে আবারও একটা দীর্ঘ সময় পর আমাকে একই বিষয়ে কোন কথা না বলা বা স্টেটমেন্ট না দেবার পরও মিথ্যে একটি বিষয়কে কেন্দ্র করে আমাকে বিব্রতকর পরিস্থিতির মুখোমুখি হতে হচ্ছে। কেন, কী উদ্দেশ্যে কারা আমার এমন ক্ষতি করছেন তা আমার বোধগম্য নয়। কি বা তাদের লাভ সেটাও বুঝতে পারছি না আমি। তবে ঘটনা যাই হোক না কেন, ধর্ম নিয়ে যে স্টেটমেন্টের ‍ভুয়া ফেসবুক পেজ এ উল্লেখ করা হয়েছে তা দুই ভাবে মিথ্যে। এক. ফেসবুক পেজটি আমার নয়, দুই. আমি ধর্ম নিয়ে কোন ধরনের স্টেটমেন্ট দেইনি। বিষয়টি দেশবাসী’সহ আমার যারা ভক্ত আছেন, গুনগ্রাহী আছেন, আমার যারা শুভাকাঙ্খী আছেন তাদের কাছে স্পষ্ট করার জন্য আমি সংবাদ মাধ্যমের মুখামুখি হয়েছি। আশা করছি বিষয়টি সবাই যার যার অবস্থানে থেকে অনুধাবন করতে পারবেন। পরিশেষে এতোটুকু বলতে চাই, কারো জন্যই এই ধরনের বিব্রতকর পরিস্থিতি সুখকর নয়। তাই কেউ ইচ্ছাকৃতভাবে কারো জন্য এই ধরনের পরিস্থিতি যেন সৃষ্টি না করেন সে বিষয়ে নিজে সজাগ থাকবেন। তাতে দেশ এবং দেশের মানুষের জন্যই কল্যাণকর হবে।’

সর্বশেষ আলমগীর অভিনয় করেন নিজের পরিচালিত ‘একটি সিনেমার গল্প’ চলচ্চিত্রে। এ ছবিতে তিনি চলচ্চিত্র পরিচালক চরিত্রে অভিনয় করেন। এ পর্যন্ত তিনি তিন শতাধিক চলচ্চিত্রে অভিনয় করেছেন। আলমগীর অভিনীত চলচ্চিত্রর মধ্যে রয়েছে ‘দস্যুরাণী’, ‘লাভ ইন শিমলা’, ‘মাটির মায়া’, ‘জিঞ্জীর’, ‘রজনীগন্ধা’, ‘ভাত দে’, ‘সখিনার যুদ্ধ’, ‘মা ও ছেলে’, ‘জজ ব্যারিস্টার’, ‘অপেক্ষা’, ‘স্বামী স্ত্রী’, ‘পথে হল দেখা’, ‘ক্ষতিপূরণ’, ‘মরণের পরে’, ‘পিতা মাতা সন্তান’, ‘অন্ধ বিশ্বাস’, ‘সত্য মিথ্যা’, ‘রাঙা ভাবী, ‘দোলনা’, ‘অচেনা’, ‘সান্ত্বনা’, ‘ক্ষমা’, ‘স্নেহ’, ‘দেশপ্রেমিক’, ‘পোকা মাকড়ের ঘরবসতি’, ‘মায়ের অধিকার’, ‘সত্যের মৃত্যু নাই’, ‘দুর্জয়’, ‘জীবন মরণের সাথী’, ‘হৃদয় ভাঙ্গা ঢেউ’, ‘মাটির ঠিকানা’ সহ অসংখ্য চলচ্চিত্র। স্বীকৃতি হিসেবে পেয়েছেন দশবার জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার।

Previous articleকরোনা জয় করলেন বর্ষীয়ান অভিনেতা সৌমিত্র চট্টোপাধ্যায়
Next articleপ্রশংসা কুড়াচ্ছে নুসরাত ফারিয়ার নতুন গান

Leave a Reply