তাজুল ইসলাম

না জেনেই কেউ কেউ বলছেন, ‘বিজয়া’ সনাতনী ধর্মের গল্প। কিন্তু বাস্তবে ‘বিজয়া’ কোন ধর্মীয় গল্প নয়। আমাদের চারপাশে ঘটে চলা জীবনের গল্প নিয়েই এই নাটক। এখানে লাভ জিহাদ, ধর্মান্তর, কারও ধর্মীয় অনুভতিতে আঘাত-এ ধরনের কিছুই নেই। বাংলাদেশের মিডিয়া ও মিডিয়ার বাইরে, দেশে এবং দেশের বাইরে এমন বহু দম্পতি আছেন যেখানে স্বামী হিন্দু, স্ত্রী মুসলমান বা স্বামী মুসলমান ও স্ত্রী ভিন্ন ধর্মাবলম্বী। মিডিয়ার অভ্যন্তরে যারা আছেন তারা আমাদেরই পরিবারের সদস্য। কিন্তু একবারের জন্যও আমরা বিষয়টাকে নেতিবাচক ভাবে দেখি না। কারণ, এটা করলে তাদের আবেগে আঘাত দেয়া হবে। আর এটা আমরা করবোই বা কেন? বরং আমাদের কাছে এ ধরনের আন্তঃধর্মীয় বিয়ে একেবারেই স্বাভাবিক ঘটনা। তারপরও আন্তঃবিয়ে কিংবা আন্তঃ ধর্মীয় প্রনয় উস্কে দেয়া একেবারেই অনুচিত। আমরা যখন ঐ দম্পতিদের সাথে কাজ করি তখন এক বারের জন্যও মনে হয় না সেখানে স্ত্রী মুসলমান, স্বামী হিন্দু।

এবার আসি ‘বিজয়া’র গল্প প্রসঙ্গে-

এই গল্পের লেখক আন্তর্জাতিকভাবে পরিচিত জঙ্গীবাদ বিরোধী ব্যাক্তিত্ব। তাঁকে যারা চেনেন তারা সবাই জানেন তার কাছে কবি বড়ু চণ্ডীদাসের বাণী- ‘সবার উপরে মানুষ সত্য, তাহার উপর নাই’-ই একমাত্র আদর্শ। আর এই অবস্থান থেকেই তিনি ‘বিজয়া’ নাটকের গল্প লিখেছেন। ‘সবার উপরে মানুষ সত্য, তাহার উপরে নাই’ কবি বড়ু চণ্ডীদাস রচিত এই বাণীকে আত্মস্থ করেই নির্মাণ হয়েছে ‘বিজয়া’ নাটকটি। এই কাহিনী, সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতি রক্ষা এবং প্রত্যেক ধর্মের পরস্পরকে শ্রদ্ধাজ্ঞাপনের আখ্যান। এক বৃদ্ধ লোক-সংগীত শিল্পী কদম ঠাকুর অন্য ধর্মের রাশেদকে তার সংগীতের উত্তরসূরি এবং ছাত্র হিসেবে গ্রহণ করেন। তিনি রাশেদের ধর্মীয় পরিচয় নয়, সংগীত প্রতিভাকে অগ্রাধিকার দেন। রাশেদের গান শুনে মুগ্ধ হয়ে যায় কদম ঠাকুরের যুবতী মেয়ে বিজয়াও। তাদের মধ্যে বন্ধুত্ব গড়ে উঠলে গ্রামবাসীর ভুল বোঝানোয় কদম ঠাকুর সেটাকে প্রেম হিসেবে ধরে নেন এবং জোর করেই মেয়েকে স্বচ্ছল হরিদাসের সাথে বিয়ে দিয়ে দেন। হরিদাস এবং বিজয়ার বনিবনা না হলে, কদম ঠাকুর বুঝতে পারেন তিনি আসলে রাগের বশে ভুল সিদ্ধান্ত নিয়েছেন।

তিনি শুধু এতদিন গান গেয়েই এসেছেন, ‘জাত গেল জাত গেল বলে একই আজব কারখানা’…কিন্তু এই গানের মর্মার্থ বোঝেননি। কদম ঠাকুর বিজয়ার কাছে ক্ষমা চাইলেও তার আত্মদহন কমে না। অসুস্থ কদম ঠাকুর মারা গেলে বিজয়ার স্বামীও তাকে ত্যাগ করে। বিজয়া বাবার বাসায় ফিরে এলে তার মা দেবী দুর্গার কাছে প্রার্থনা করতে থাকেন তার মেয়ের একটা সুস্থ ও সুন্দর জীবনের জন্য। দেবী দুর্গার আশীর্বাদে বিজয়া আবার বাঁচার সুযোগ পায়। গুরু কদম ঠাকুরের প্রতি কৃতজ্ঞতা এবং গুরুদক্ষিণা প্রদানের জন্য রাশেদ এবং তার স্ত্রী আমেনা, বিজয়ার পাশে এসে দাঁড়ায়। তাদের সাহায্যে বিজয়া আবার ঘুরে দাঁড়ায় জীবনে। পুজার উপহার রুপে বিজয়া, বন্ধু রাশেদ ও আমেনাকে তুলে দেয় তার নিজের হাতে বানানো নকশীকাঁথা এবং রাশেদ ও আমেনা বিজয়াকে তুলে দেয় ফ্রেমে বাঁধানো দেবী দুর্গার একটি ছবি…শাঁখ, ঢাক এবং উলুধ্বনিতে মুখরিত হয়ে ওঠে চারপাশ। ধর্মীয় সম্প্রীতর মহতী বার্তা ছড়িয়ে পড়ে গোটা সমাজে।

এখন আর একটি কথা বলি। কোন নির্মাতা বা প্রযোজনা প্রতিষ্ঠান একটি নাটক তৈরি করলেই সেটা টেলিভিশন চ্যানেলে প্রচার হয় না। এখানেও কিছু পদ্ধতি আছে। একটা গল্প যখন তৈরি হয় প্রথমে একটা ড্রাফট হয়, তার পর ফাইনাল গল্প সংক্ষেপ তৈরি হয়, তারপর স্ক্রিপ্ট হয়, তারপর স্ক্রিপ্ট এডিট হয়, তার পর শুটিং করতে করতে লজিক্যাল প্রবলেম বা বিতর্কিত কিছু থাকলে সেটা ছাটাই করা হয়, তার পর এডিট মিউজিক হয় এবং চ্যানেলে ৩-৪ সদস্যের একটা প্রিভিউ কমিটি সেটা প্রিভিউ করে। বিতর্কিত কিছু থাকলে এডিট দেয়া হয়, কখনো কখনো নাটক সম্প্রচার অযোগ্য বলেও বাদ দেয়া হয়।

আমরা কেন ‘বিজয়া’ প্রচার করছি না?

একটা নাটককে ঘিরে এপাড়-ওপাড় বাংলায় যে ধরনের উম্মাদনা চলছে তা আমাদেরকে ভীষণভাবে ব্যথিত করেছে। আমরা চাই না কিছু লোক ‘বিজয়া’র গল্প সম্পর্কে সামান্যতম ধারণা না থাকা সত্ত্বেও অহেতুক বিতর্ক ছড়িয়ে দূর্গাপূজার উৎসবকে ম্লান করে দিক। বরং আমরা চাই, দূর্গাপূজা পরিণত হোক সার্বজনীন উৎসবে। গত ঈদে আমরা ডজন-ডজন নাটক প্রযোজনা করেছি। যার ফলে ঈদ হয়ে উঠেছে আরো উৎসবমুখর। হিন্দু পরিবার কেন্দ্রীক অনেক গল্পও ক্রাউন এন্টারটেইনমেন্ট প্রযোজনা করেছে, যা সব ধর্মের মানুষের কাছে প্রশংসিতও হয়েছে।

হিন্দু নির্মাতা কি ক্রাউনের কাজ করবেন না?
হিন্দু নির্মাতারা ক্রাউনের কাজ করছেন। কিন্তু আমাদের কোনো নাটক বানিয়ে তারা যেন নিজ ধর্মের বা মুসলমান দর্শকদের কাছে অপদস্থ না হন তাই আমরা বলতে চেয়েছি, ওনাদের গল্পগুলো ভালোভাবে দেখে নেয়ার ব্যাপারে। হতেও পারে হিন্দু ধর্মাবলম্বী একজন নির্মাতা মুসলমানদের চরিত্র নিয়ে নাটক করতে গিয়ে তারই ধর্মানুসারীদের রোষানলে পড়লেন। এটা আমরা কখনোই হতে দেবো না।

কেন এই বিতর্ক?

সমস্যাটা ‘বিজয়া’ নাটক নয়। সমস্যা হলো ‘ক্রাউন এন্টারটেইনমেন্ট’। এতো অল্প সময়ে সর্বোচ্চ সংখ্যক নাটক প্রযোজনা করে অগণিত শিল্পী, কলাকুশলী ও দর্শকের ভালোবাসা পেয়েছে যা অনেকেরই শিরপীড়ার কারন। কারা এসব করছে তা আমরা জানি। দেশে আইনের শাসন আছে। আমরা আইনের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। আইন তার নিজস্ব গতিতে দুষ্টদের দমন করবে।

লেখক: তাজুল ইসলাম, ক্রাউন এন্টারটেইনমেন্ট-ডেপুটি সিইও।

Previous articleপ্রশংসা কুড়াচ্ছে নুসরাত ফারিয়ার নতুন গান
Next article২৩ অক্টোবর খুলছে স্টার সিনেপ্লেক্স

Leave a Reply